আজকের তারিখ- Sun-09-08-2020

লোকসানেও বোরোতে বেঁচে থাকার স্বপ্ন কৃষকের: পঙ্গপালের আতঙ্ক

হাফিজুর রহমান হৃদয়, নাগেশ্বরী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: চলতি ইরি বোরো মৌসুমে ধান উৎপাদনে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়ি উপজেলা কৃষি বিভাগের। বিক্রিতে ধানের ন্যায্য মূল্য না থাকায় ধান উৎপাদনে ব্যয়ের তুলনায় আয় হচ্ছে কম। ফলে অন্যান্য ফসল উৎপাদনে আগ্রহী হয়ে উঠছে কৃষকরা। এর প্রভাব পড়েছে চলতি ইরি-বোরো মৌসুমে। তাই ধান উৎপাদনে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি উপজেলা কৃষি বিভাগের। উপজেলা কৃষি বিভাগ জানিয়েছেন চলতি ইরি বোরো মৌসুমে ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ২৪ হাজার ৮শ হেক্টর জমিতে। অর্জিত হয়েছে ২৪হাজার ৬শ হেক্টর জমিতে। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২শ হেক্টর কম। বিশিষ্ট জনের অভিমত-ধানের ন্যায্য মূল্য না পেয়ে কৃষকেরা ধান উৎপাদন থেকে বিমুখ হলে এর নীতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে জাতীয় খাদ্য তালিকায়। সরেজমিন উপজেলার কেদার, বল্লভেরখাস, কচাকাটা, নুনখাওয়া ও নারায়নপুর, বামনডাঙ্গা, রায়গঞ্জ ইউনিয়ন ঘুরে জানা যায়, আমন মৌসুমে এ অঞ্চলোতে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে বন্যাসহ অতি বৃষ্টি, অনাবৃষ্টি ও খরার কবলে পড়ায় আশানুরুপ ফসল ঘরে তুলতে পারেননি কৃষকরা। অপরদিকে ধানের দাম কম হওয়ায় হতাশ হয়ে পড়েন তারা। পরবর্তী সময়ে যার প্রভাব পড়ে তাদের জীবন ও জীবিকায়। অন্যান্য সময়ের তুলনায় ইরি বোরো মৌসুমে প্রাকৃতিক দুর্যোগ তুলনামূলক কম থাকায় এখন বোরোতেই বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখছে কৃষক। কৃষকরা তাদের পরিবার পরিজনের জীবন ও জীবিকা নির্বাহে ধানে লোকসান জেনেও এগিয়ে এসেছেন বোরো চাষাবাদে। আবার অনেকেই গত বন্যার ক্ষতি পুশিয়ে নিতে আশায় বুক বাঁধছেন ধানের প্রতিটি চারায় চারায়। স্বপ্ন দেখছেন ধানের ন্যায্য মূল্য পেয়ে পরিবার পরিজনের জীবন ও জীবিকার পথ সুগম করার। কিন্তু এবারও ফসলে পঙ্গপাল হানা দিতে পারে এসন সংবাদে আতঙ্ক হয়ে পড়েছে কৃষকরা।
আব্দুল কাদের নামের এক কৃষক বলেন, এমনিতেই ধানের দাম কম। তাতে আবার যদি পঙ্গপালে ধান খেয়ে ফেলে তাহলে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে না খেয়ে মরতে হবে। উপজেলার কচাকাটা ইউনিয়নের বোরো চাষী আজিবর রহমান বলেন, গত মৌসুমে ধান আবাদ করতে গিয়া অনেক লস্ খাইছি ভাই! কিন্তু আবাদ না কইরা কই যাই। আমার তো আর ব্যবসা বাণিজ্য নাই! আবাদ না করলে বৌ বাচ্চারে খাওয়ামু কী? তাই বৌ বাচ্চারে বাঁচাইতে লস্ দিয়া আবাদ করি! রায়গঞ্জ ইউনিয়নের কৃষক আজিজুল ইসলাম বলেন, ধান আবাদ করে কোনো লাভ নাই। পেটে খায় তাই অগত্যা আবাদ করি। বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের কৃষক আব্দুল বারেক
এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার মো. শামসুজ্জামান বলেন, ধানের চেয়ে ভুট্টা উৎপাদনে খরচ কম এবং ফলন ও দাম বেশি হওয়ায় এবার অনেকেই বোরো চাষ না করে ভুট্টা আবাদ করেছেন তাই লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ঘাটতি হয়েছে। তবে ফসল ভালো হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আর কৃষকরা পঙ্গপালের যে ভয় করছে এতে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। বাংলাদেশে পঙ্গপাল হানা দেবার কোনো প্রকার সম্ভাবনাই নেই বলে আমাদেরকে জানিয়েছেন উর্দ্ধতন কৃষি বিভাগ।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )