আজকের তারিখ- Wed-15-07-2020

কঠোর নিয়ন্ত্রণে গার্মেন্টস চালু রাখার বিকল্প নেই

যুগের খবর ডেস্ক: নভেল করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে মানুষে মানুষে দূরত্ব নিশ্চিত করার বিকল্প নেই। এখন পর্যন্ত চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা সে কথাই বলছেন। আর তাই করোনায় আক্রান্ত দেশগুলো সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে বেছে নিয়েছে লকডাউনের পথ। বাংলাদেশও সই পথেই আছে – যদিও অত্যন্ত ঘনবসতি এবং উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে অর্থনৈতিক বিপর্যয় ঠেকাতে সেই লকডাউন কিছুটা শিথিল। তবে যে ক্ষেত্রগুলোতে নিয়ন্ত্রিত ব্যবস্থায স্বাস্থ্যবিধি মানা সম্ভব কেবল সেই ক্ষেত্রগুলোতেই কিছুটা শিথিল করা হচ্ছে। আর এর বাইরে সাধারণ বাজার-হাট বা চলাচলে মানুষের সমাগম কিছুটা বাধ্য হয়ে পেটের টানে আর কিছুটা অসচেতনতার কারণে। পেটের টানে মানুষ বের হতে বাধ্য হচ্ছে কেন্দ্রীয ব্যবস্থাপনায় ত্রাণ বা খাদ্য সামগ্রী মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছাতে না পারার কারণে। তবে মাসকমিউনিকেশন যেমন, গণপরিবহণ এবং মার্কেট এবং বিভিন্ন সামাজিক আচার – অনুষ্ঠান কড়াকড়িভাবেই বন্ধ রাখা হয়েছে। এই অবস্থায় আলোচনা, গার্মেন্টস কারখানা খোলা নিয়ে । এরও কারণ অধিকাংশ গার্মেন্টস কারখানার অবকাঠামো সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কাজ করার মত নয়। তারপরেও কেন প্রয়োজন হয়ে পড়ল তার কিছু কারণ অনুসন্ধানে জানা গেছে, বাংলাদেশের প্রধান বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন এবং বিপুল জনগোষ্ঠীর কর্মসংন্থানের এই খাত পড়েছে উভয় সঙ্কটে। একদিকে বিপুল পরিমান অর্ডার বাতিল হয়ে যাওয়ায় হুমকির মধ্যে পড়েছে দেশের তৈরি পোশাক খাত , আরেকদিকে এখনও যে অর্ডার আছে তা পূরণ করতে না পারলে বাজার হাতছাড়া হয়ে যাওয়ার আশঙ্কাও রয়েছে।
পরিস্থিতি বিবেচনায় সরকারের সঙ্গে আলোচনা করে কারখানাগুলোতে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে পালন করে কারখানা চালুর প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন গার্মেন্টস মালিকরা। কিন্তু বাস্তবে দেখা গেল তারা তা করছেন না। এই অবস্থাদৃষ্টে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের শনিবার ( ২ মে) গার্মেন্টস মালিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তাদের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে। এই প্রতিশ্রুতি পূরণে মালিকরা দৃঢ় না হলে একদিকে দেশ যেমন বিশাল অর্থনৈতিক ক্ষতির শিকার হতে পারে, হারাতে পারে বিপুল কর্মসংস্থান, আবার অন্যদিকে প্রাণঘাতী করোনার বিস্তার ঘটে অসংখ্য মানুষের প্রাণ যেতে পারে। যার কোনোটিই কোনোটির চেয়ে কম ক্ষতির হবে না।
তৈরি পোশাকের রফতানি আদেশ (অর্ডার) ধরে রাখতে সাভার-আশুলিয়া, গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জ এলাকায় ধীরে ধীরে গার্মেন্ট কারখানা খুলে দেওয়া হয়েছে। গার্মেন্ট মালিকরা বলছেন, দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) এবং সরকারের সঙ্গে আলোচনা করে সব কারখানা খুলে দিতে চান তারা। তবে যেসব কারখানার অর্ডার বাতিল হয়েছে, সেসব কারখানা হয়তো নাও খুলতে পারে।
এ ব্যাপারে তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়েছে। এরই মধ্যে স্বাস্থ্য সুরক্ষায় শ্রমিকদের মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এছাড়া রাখা হয়েছে শরীরের তাপমাত্রা মাপা, জীবাণুনাশক দিয়ে জুতা পরিষ্কার, হাত ধোয়াসহ নানা ব্যবস্থা। যা সব কারখানায় মানা হচ্ছে না-এটা অত্যন্ত জরুরি।

প্রতি বছর তৈরি পোশাক রফতানি করে বাংলাদেশ আয় করে ৩০ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি। গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরে তৈরি পোশাক রফতানি করে ৩৪ বিলিয়ন ( তিন হাজার ৪১৩ কোটি) ডলার আয় হয়েছিল। এই অর্থবছরে তৈরি পোশাক খাতের রফতানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৮ বিলিয়ন (তিন হাজার ৮২০ কোটি) ডলার। এর মধ্যে বিদেশি ক্রেতারা আট বিলিয়ন ডলারের রফতানি আদেশ বাতিল করলেও অধিকাংশ আদেশ এখনও বহাল আছে। কারখানার মালিকরা মনে করছেন, সময়মতো এসব অর্ডারের পণ্য সরবরাহ করতে না পারলে বাংলাদেশ থেকে অর্ডার চিরদিনের জন্য হাতছাড়া হয়ে যেতে পারে।
এছাড়া পুরনো অর্ডার আছে অন্তত ৪ বিলিয়ন ডলারের। এই অর্ডার যাতে হাতছাড়া না হয়, সেজন্য সব কারখানা খুলতে হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে বিকেএমইএর প্রথম সহ-সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, যেসব অর্ডার এখনও বহাল আছে, সেগুলো ঠিক রাখতে কারখানা চালু করা হচ্ছে। তিনি উল্লেখ করেন, প্রতি মাসে গড়ে তিন বিলিয়ন ডলারের অর্ডার থাকে। এপ্রিল, মে, জুন ও জুলাই এই চার মাসের অর্ডার থাকার কথা ১২ বিলিয়ন ডলার। এর মধ্যে আট বিলিয়ন ডলার বাতিল হয়েছে।এর মধ্যে বিজিএমইএর ১১৫০ কারখানার তিন দশমিক ১৮ বিলিয়ন ডলারের অর্ডার বাতিল হয়েছে। বাকি অর্ডারগুলো বাতিল হয়েছে বিকেএমইএর মালিকদের কারখানায়।
বাকি চার বিলিয়ন ডলারের অর্ডার এখনও আছে। এই অর্ডার বাঁচানোর লক্ষ্যেই কারখানাগুলো খোলা হচ্ছে। তিনি বলেন, ক্রেতাদের হাতে রাখতে হলে কারখানা খুলতে হবে। তার মতে, যদি একবার ক্রেতা হাতছাড়া হয়ে যায় তাহলে আর ফেরানো যায় না।
এ প্রসঙ্গে এফবিসিসিআইর সহ-সভাপতি ও বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, এমনিতেই অর্ডার বাতিল হচ্ছে, যেসব অর্ডার এখনও বহাল আছে, সেগুলোও যদি বাতিল হয়ে যায় তাহলে চিরদিনের জন্য অর্ডার হাতছাড়া হয়ে যাবে। তাতে করে দেশের অর্থনীতি আর দাঁড়াতে পারবে না। তিনি বলেন, এই করোনা মহামারির শেষ কবে তা কেউ বলতে পারছে না। এই আপদকালীন মুহূর্তে অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে আস্তে আস্তে শিল্প খুলে দেওয়া হচ্ছে। মূলত শ্রমিকদের আর্থিক নিরাপত্তা ও শিল্পের কথা চিন্তা করেই সরকার-ব্যবসায়ীরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানান তিনি।
এছাড়া করোনা চলাকালীন নতুন অর্ডার সেভাবে আসেনি। তবে কারখানা চালু হলে নতুন অর্ডার আসা শুরু হতে পারে বলে জানান বিকেএমইএ সহসভাপতি মোহাম্মদ হাতেম। তিনি বলেন, গত এপ্রিল থেকে আগামী জুলাই পর্যন্ত অন্তত চার বিলিয়ন ডলারের অর্ডার আছে। সেই অর্ডার অনুযায়ী পণ্য সরবরাহ করতে পারলে একদিকে ক্রেতা হাতে থাকবে, অন্যদিকে আরও নতুন নতুন অর্ডার আসবে।

এ বিষয়ে বিজিএমইএর মুখপাত্র কামরুল আলম বলেন, এখন নতুন অর্ডার না আসলেও বিভিন্ন দেশের ক্রেতারা খোঁজ-খবর নিচ্ছেন। ইতোমধ্যে ক্রেতারা তাদের অফিস খোলা শুরু করেছেন। কিছু কিছু ক্রেতার কাছ থেকে পণ্য তৈরির ইনকোয়ারি আসছে। যেমন জার্মানি থেকে কিছু কিছু ইনকোয়ারি এসেছে। ইতালি থেকেও এসেছে। যুক্তরাষ্ট্র থেকে হয়তো শিগগিরই ইনকোয়ারি পাঠাবে।
বিজিএমইএ ও বিকেএমইএর হিসেবে ২ মে পর্যন্ত অর্ধেক কারখানা খুলেছে। বিকেএমইএর প্রথম সহ-সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, যাদের হাতে কাজ নেই তারা ছাড়া সব কারখানাই ঈদের আগে খোলা হবে। তিনি বলেন, ২ মে পর্যন্ত বিকেএমইএ’র ২৯২টি কারখানা খুলেছে। ঈদের আগে আরও দুইশসহ মোট শ’পাঁচেক কারখানা খুলবে। এদিকে বিজিএমইএ’র মুখপাত্র কামরুল আলম বলেন, ১ মে’র আগ পর্যন্ত বিজিএমইএর এক হাজার ৬১ কারখানা খোলা। ৫ মে’র মধ্যে দুই হাজারের বেশি কারখানা খোলা হতে পারে। তবে বিজিএমইএর সদস্য নন এমন কারখানাসহ সারাদেশে অন্তত চার হাজার কারখানা খোলা আছে বলে একটি সূত্র দাবি করেছে। বিজিএমইএর সূত্র বলছে, সদস্যদের মধ্যে সরাসরি রফতানিকারক ২ হাজার ২৭৪টি কারখানা। এসব কারখানায় কাজ করেন ২৪ লাখ ৩৫ হাজার শ্রমিক। এর মধ্যে ১০ লাখ ৩৮ হাজার শ্রমিক বর্তমানে কাজ করছেন।
ঈদের আগে যাতে অধিকাংশ কারখানা খোলা যায়, সে ব্যাপারে কারখানার মালিকদের যথেষ্ট প্রস্তুতি রয়েছে বলে জানিয়েছেন বিজিএমইএর মুখপাত্র কামরুল আলম। তিনি বলেন, প্রত্যেক কারখানা যাতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চালু করতে পারে, সে ব্যাপারে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) এবং সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মধ্যে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, বিজিএমইএ, বিকেএমইএ, আইএলও এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যৌথভাবে কাজ করছে। এছাড়া শ্রমিকদের স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নেওয়া হচ্ছে। প্রতিটি শ্রমিককে সুরক্ষা দিতে কারখানাগুলোকে ঢেলে সাজানো হয়েছে। একই সঙ্গে কারখানাগুলো নির্দেশনা মানছে কিনা তা তদারকি করা হচ্ছে। তিনি বলেন, কোনও শ্রমিক যাতে করোনায় আক্রান্ত না হয়, সেজন্য আগে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আর যদি কেউ করোনায় আক্রান্ত হয়েও পড়ে, সেক্ষেত্রে শ্রমিকদের চিকিৎসা ও অন্যান্য সহযোগিতার জন্য মালিকদের পক্ষ থেকে সব ব্যবস্থা নেওয়া আছে। বিজিএমইএ থেকে মালিকদের নির্দেশনা দেওয়া আছে।
তিনি বলেন, আরও যদি কিছু করার দরকার হয়, বিজিএমইএ সেটাও করবে। অবস্থা বুঝে ব্যবস্থা নেবে। এজন্য সব কারখানাকে মনিটরিংয়ের আওতায় আনা হয়েছে। কারখানাগুলো স্বাস্থ্যবিধি মানছে কিনা, সেটি তদারক করতে প্রতিদিনই কিছু কারখানা পরিদর্শন করে বিজিএমইএ’র বেশ কয়েকটি দল। মনিটরিং টিম ২৪ ঘণ্টা কাজ করছে।
তবে অনেক কারখানা পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ’র নির্দেশনার চেয়ে বেশি সংখ্যক শ্রমিক দিয়ে কাজ করাচ্ছে বলে জানা গেছে। এছাড়া ধাপে ধাপে কারখানা খোলার কথা থাকলেও সেটি অমান্য করে তাদের অনেকে আগেভাগেই উৎপাদন শুরু করেছে। আবার দূরদূরান্ত গ্রামগঞ্জ থেকে শ্রমিক আনার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও মানেননি অনেক পোশাক শিল্পের মালিক। আবার ধাপে ধাপে শ্রমিক বাড়ানোর নির্দেশনা থাকলেও সেটি অনেক ক্ষেত্রেই মানা হচ্ছে না। একইভাবে কারখানায় আসা-যাওয়ার পথেও একই সমস্যা হচ্ছে।
যে কারণে দেশের চিকিৎসকসহ বিভিন্ন স্তরের মানুষজন গার্মেন্ট কারখানা খোলার সমালোচনা করছেন। তারা মনে করছেন, কারখানা সব খুলে দেওয়া হলে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বিপজ্জনকভাবে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )