আজকের তারিখ- Sun-09-08-2020

লালমনিরহাটে লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি

লালমনিরহাট প্রতিনিধি: অপরিবর্তিত রয়েছে লালমনিরহাটের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি। চারদিন পর তিস্তার পানি কিছুটা কমলেও এখনও বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে ধরলার পানি।

লালমনিরহাট ও নীলফামারী ডিমলা পানি উন্নয়ন বোর্ড আজকালের খবরকে জানায়,‘ মঙ্গলবার সকাল ৬ টায় তিস্তার পানি বিপদসীমার ১৫ সেন্টিমিটার এবং দুপুরের পর আরও কমে  ২০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। অপর দিকে ধরলার পানি শিমুল বাড়ি পয়েন্টে বিপদসীমার ১৯ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এদিকে তিস্তার পানি কিছুটা কমলেও হাতীবান্ধার ব্যারাজ এলাকার ভাটির দিকে পানির অস্বাভাবিক স্রোত ধেয়ে আসায় নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে।
সরকারি হিসেবে জেলার ৫ উপজেলার ১২ টি ইউনিয়নের প্রায় ২২ হাজার পরিবারের লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হওয়ার কথা বলা হলেও দূর্ভোগের সংখ্যা আরও অনেক বেশি বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। সেই সাথে অভিযোগ উঠেছে এখনও সরকারিভাবে অনেক দূর্গত এলাকায় পৌছাঁয়নি ত্রাণ সামগ্রী।
জেলার সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাগুলো হচ্ছে, পাটগ্রাম উপজেলার দহগ্রাম, হাতীবান্ধা উপজেলার
সানিয়াজান, গড্ডিমারী, ডাউয়ামারী, পাটিকাপাড়া, সিন্দুর্না কালীগঞ্জ উপজেলার ভোটমারী, তুষভান্ডার, আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ও সদর উপজেলার রাজপুর, খুনিয়াগাছ, গোকুন্ডা, মোগলহাট ও কুলাঘাট ইউনিয়ন।
এদিকে বন্যার কারণে প্রায় ২ শ হেক্টর আমন বীজতলা ও সবজি ক্ষেত পানিতে তলিয়ে নষ্ট হওয়ার প্রাথমিক ধারণা করছে কৃষি বিভাগ। সেই সাথে ছোট বড় ৪০০টি পুকুর ও জলাশয় পানিতে তলিয়ে গিয়ে মাছ ভেসে গেছে।
কবলিত এলাকাগুলো সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে বিশুদ্ধ পানি ও শুকনো খাবারের তীব্র সংকট। ভেঙ্গে পরেছে স্যানিটেশন ব্যবস্থা সেই সাথে পানিবাহিত রোগের আশংকাও দেখা দিয়েছে।
এদিকে ভারী বর্ষণের কারণে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে জেলা শহরের অধিকাংশ রাস্তাগুলো তলিয়ে গেছে।  এতে মারাত্নক দূর্ভোগে পরতে হচ্ছে শহরবাসীকেও। বিশেষ করে শহরের বসুন্ধরা এলাকার নবাবের হাট যাওয়ার সড়ক, বড় মসজিদ থেকে রেল স্টেশন যাওয়ার রাস্তা, নর্থবেঙ্গল মোড় এবং আলোরুপা মোড়ে জলাবদ্ধতার কারণে প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা।
এবিষয়ে যোগাযোগ করা হলে পৌর মেয়র রিয়াজুল ইসলাম রিন্টু আজকালের খবরকে বলেন,‘ পানি নিস্কাশনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে, কাজ শেষ হলে এই দূর্ভোগ থাকবে না।’
অন্যদিকে সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির বিষযে জেলা প্রশাসক আবু জাফর জানান,‘ দূর্গত এলাকাগুলোতে প্রতিদিন ত্রাণ সরবরাহ করা হচ্ছে এবং পানি বাহিত রোগ প্রতিরোধের জন্য একাধিক মেডিকেল টিম কাজ করে যাচ্ছে।’
সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )