আজকের তারিখ- Tue-01-12-2020

চিলমারীতে নৌ দূর্ঘটনা # অল্পের জন্য রক্ষা পেল ১২০ জন মানুষের প্রাণ

স্টাফ রিপোর্টার: আমার ঈদের স্বপ্ন সব নদীতে ভেসে গেছে ভাই, আল্লাহ আমাকে বাঁচিয়েছে- কথা গুলি বলছিলেন আর অঝরে কাঁদছিলেন যুবকটি কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর বাসায় এসে। নৌকা র্দূঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে উলিপুর উপজেলার বুড়াবুড়ি ইউনিয়নের পূর্ব আঠারো পাইকা গ্রামের মোঃ উকিল উদ্দিনের ছেলে গার্মেন্টস শ্রমিক রবিউল সানি বলেন, আমি মানুষের চাপে নৌকার ছাঁদ ভেঙ্গে নদীতে পড়ে যাই। পানিতে পড়ে যাবার পর নৌকার ফ্যানের সাথে আটকে গেছি। ঈদের বোনাসসহ বেতন পাইছিলাম ১৯ হাজার ৫’শত টাকা। আসতে পথে খরচ হয়েছে ১হাজার ৫’শ টাকা। বাকী টাকা মানি ব্যাগে ছিল। মানিব্যাগ, মোবাইল সব পানিতে ভেসে গেছে। ছোট মেয়ের জন্য একটা জামা কিনেছিলাম। অনেক কষ্টে সেটা শুধু রক্ষা করতে পেরেছি। সে যে বাড়ি যাবে গাড়ী ভাড়ার টাকাও তার কাছে নেই। যুবকটির কান্না দেখে ইউএনও তাকে শান্তনা দেন এবং ব্যক্তিগত ভাবে ৫’শ টাকা হাতে দিয়ে তাকে সাথে নিয়ে দ্রæত চিলমারী নৌ ঘাটে চলে যান।
শুক্রবার কুড়িগ্রামের রাজীবপুর উপজেলা নৌঘাট থেকে সকাল ৯টায় সিরিয়ালের নৌকাটি অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে চিলমারী নৌঘাটের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। পথিমধ্যে রাজীবপুর উপজেলার কোদালকান্দি ইউনিয়নের শংকরমাধবপুর এলাকায় এলে ব্রক্ষপুত্র নদের মাঝখানে হঠাৎ নৌকার ছৈ এ বসে থাকা যাত্রীর অতিরিক্ত ওজনে ছৈটি ভেঙ্গে পরে। এতে নৌকার ভিতরে থাকা মোট ৩০ জন যাত্রী আহত হয়। অনেকে নদীতে পড়ে যায়।উক্ত নৌকায় আসা অপর যাত্রী শাহাদত হোসেন (৩৩) তিনিও স্বপরিবারে ঈদ করার জন্য, ঝিনাইগাতি উপজেলা হতে নৌ পথে আসছিলেন। তিনি সেখানে দারিদ্র বিমোচন অফিসে চাকুরী করেন। তার বাড়ী রাজারহাট উপজেলার ঠগরাইহাট এলাকার বাজি মাজরাই গ্রামে। তিনি নিজেও পানিতে ডুবে গিয়েছিলেন। তিনি বলেন, অল্পের জন্য নৌকাটি ডুবে যায়নি। তার অভিযোগ, ভাড়া ৮০ টাকা। আমাদের নিকট নিয়েছে ১০০ টাকা। করে কিন্তু টিকেট দেয়নি। নৌকাটিতে ৭০ থেকে ৮০ জন যাত্রী তোলাই যেখানে ঝুকিপূর্ণ, সেখানে বারবার নিষেধ করার পরও প্রায় ১২০জন যাত্রীকে তারা নৌকায় তুলেছিল। শাহাদত হোসেন স্থানীয় সাংবাদিকদের সামনে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অভিযোগ করে বলেন, চিলমারী ঘাটে পৌঁছে তারা যখন ঘাট সংশ্লিটদের নিকট বিচার চাইতে গেলেন, তখন তারা যাত্রীদের উপর উল্টো রাগারাগি করেন। ঘটনাটি অবহিত হবার পরপরই নির্বাহী কর্মকর্তা এ, ডবিøউ, এম রায়হান শাহ্ নৌ ঘাটে দ্রæত গিয়েও রাজিপুরের সেই নৌকাটিকে ধরতে না পারায় কারও বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে পারেননি। তবে তিনি বিষয়টি রাজিবপুর নির্বাহী অফিসারকে জানিয়েছেন মর্মে জানান। এদিকে চিলমারী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আমিনুল ইসলাম বলেন, ঘটনাটি যেহেতু রাজিবপুর থানা এলাকায় সেকারণে রাজীবপুর থানাকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে।চিলমারীতে নৌ দূর্ঘটনা # অল্পের জন্য রক্ষা পেল ১২০ জন মানুষের প্রাণ
স্টাফ রিপোর্টার: আমার ঈদের স্বপ্ন সব নদীতে ভেসে গেছে ভাই, আল্লাহ আমাকে বাঁচিয়েছে- কথা গুলি বলছিলেন আর অঝরে কাঁদছিলেন যুবকটি কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর বাসায় এসে। নৌকা র্দূঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে উলিপুর উপজেলার বুড়াবুড়ি ইউনিয়নের পূর্ব আঠারো পাইকা গ্রামের মোঃ উকিল উদ্দিনের ছেলে গার্মেন্টস শ্রমিক রবিউল সানি বলেন, আমি মানুষের চাপে নৌকার ছাঁদ ভেঙ্গে নদীতে পড়ে যাই। পানিতে পড়ে যাবার পর নৌকার ফ্যানের সাথে আটকে গেছি। ঈদের বোনাসসহ বেতন পাইছিলাম ১৯ হাজার ৫’শত টাকা। আসতে পথে খরচ হয়েছে ১হাজার ৫’শ টাকা। বাকী টাকা মানি ব্যাগে ছিল। মানিব্যাগ, মোবাইল সব পানিতে ভেসে গেছে। ছোট মেয়ের জন্য একটা জামা কিনেছিলাম। অনেক কষ্টে সেটা শুধু রক্ষা করতে পেরেছি। সে যে বাড়ি যাবে গাড়ী ভাড়ার টাকাও তার কাছে নেই। যুবকটির কান্না দেখে ইউএনও তাকে শান্তনা দেন এবং ব্যক্তিগত ভাবে ৫’শ টাকা হাতে দিয়ে তাকে সাথে নিয়ে দ্রæত চিলমারী নৌ ঘাটে চলে যান।
শুক্রবার কুড়িগ্রামের রাজীবপুর উপজেলা নৌঘাট থেকে সকাল ৯টায় সিরিয়ালের নৌকাটি অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে চিলমারী নৌঘাটের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। পথিমধ্যে রাজীবপুর উপজেলার কোদালকান্দি ইউনিয়নের শংকরমাধবপুর এলাকায় এলে ব্রক্ষপুত্র নদের মাঝখানে হঠাৎ নৌকার ছৈ এ বসে থাকা যাত্রীর অতিরিক্ত ওজনে ছৈটি ভেঙ্গে পরে। এতে নৌকার ভিতরে থাকা মোট ৩০ জন যাত্রী আহত হয়। অনেকে নদীতে পড়ে যায়।উক্ত নৌকায় আসা অপর যাত্রী শাহাদত হোসেন (৩৩) তিনিও স্বপরিবারে ঈদ করার জন্য, ঝিনাইগাতি উপজেলা হতে নৌ পথে আসছিলেন। তিনি সেখানে দারিদ্র বিমোচন অফিসে চাকুরী করেন। তার বাড়ী রাজারহাট উপজেলার ঠগরাইহাট এলাকার বাজি মাজরাই গ্রামে। তিনি নিজেও পানিতে ডুবে গিয়েছিলেন। তিনি বলেন, অল্পের জন্য নৌকাটি ডুবে যায়নি। তার অভিযোগ, ভাড়া ৮০ টাকা। আমাদের নিকট নিয়েছে ১০০ টাকা। করে কিন্তু টিকেট দেয়নি। নৌকাটিতে ৭০ থেকে ৮০ জন যাত্রী তোলাই যেখানে ঝুকিপূর্ণ, সেখানে বারবার নিষেধ করার পরও প্রায় ১২০জন যাত্রীকে তারা নৌকায় তুলেছিল। শাহাদত হোসেন স্থানীয় সাংবাদিকদের সামনে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অভিযোগ করে বলেন, চিলমারী ঘাটে পৌঁছে তারা যখন ঘাট সংশ্লিটদের নিকট বিচার চাইতে গেলেন, তখন তারা যাত্রীদের উপর উল্টো রাগারাগি করেন। ঘটনাটি অবহিত হবার পরপরই নির্বাহী কর্মকর্তা এ, ডবিøউ, এম রায়হান শাহ্ নৌ ঘাটে দ্রæত গিয়েও রাজিপুরের সেই নৌকাটিকে ধরতে না পারায় কারও বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে পারেননি। তবে তিনি বিষয়টি রাজিবপুর নির্বাহী অফিসারকে জানিয়েছেন মর্মে জানান। এদিকে চিলমারী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আমিনুল ইসলাম বলেন, ঘটনাটি যেহেতু রাজিবপুর থানা এলাকায় সেকারণে রাজীবপুর থানাকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )