আজকের তারিখ- Sat-31-10-2020
 **   চিলমারীতে যোগদানের ১বছর পূর্তিতে ইউএনওকে ফুলেল শুভেচ্ছা **   করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ৫৯০০ ছাড়াল **   জাতি বিনির্মাণে মানুষের মনন তৈরিতে গণমাধ্যম অনন্য: তথ্যমন্ত্রী **   চিলমারীতে ফাইলেরিয়া রোগের প্রচার প্রচারনা বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত **   ‘বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেয় লোক দেখাতে’ **   ইরফান আদালতে, অপেক্ষা রিমান্ড শুনানির **   চিলমারী উপজেলা আওয়ামী মৎস্যজীবি লীগের কমিটি অনুমোদন **   রাষ্ট্রপক্ষের প্রত্যাশা সাজা, আসামিপক্ষ ‌‘বেনিফিট অব ডাউট’ **   অপরাধী যেই হোক আইনের আওতায় আনা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী **   চিলমারীতে বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মজিদের মরদেহ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন

কুড়িগ্রামে ৩৩টি পয়েন্টে ভয়াবহ ভাঙন

যুগের খবর ডেস্ক: অবিরাম বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের পানিতে কুড়িগ্রাম জেলার সবক’টি নদ-নদীর পানি আরও বেড়ে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। পাশাপাশি জেলার নদীগুলোর ৩৩টি পয়েন্টে ভয়াবহ ভাঙন শুরু হয়েছে। এতে বসতবাড়ি ও অন্যান্য স্থাপনাসহ বিশাল জনপদ নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি জানান, লাগাতার ভারী বর্ষণ ও উজান থেকে আসা পাহাড়ি ঢলের পানিতে কুড়িগ্রামে নদী অববাহিকার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ার পাশাপাশি ধরলা, তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্র নদের ৩৩টি পয়েন্টে ভাঙন শুরু হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় ধরলা নদীর পানি ১২ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে সেতু পয়েন্টে বিপদসীমার ৩৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। নিম্নাঞ্চলের সদ্য রোপণকৃত রোপা আমনক্ষেত পানিতে তলিয়ে গেছে। তিনদফা বন্যা মোকাবিলা করার পর রোপা আমন ধান চাষ করে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছিল। এরই মধ্যে আবারও নদ-নদীর পানি বৃদ্ধিতে নিম্নাঞ্চলের মানুষজন শঙ্কিত হয়ে পড়েছে। জেলার সবগুলো নদীর পানি বৃদ্ধি পেলেও ব্রহ্মপুত্র ও তিস্তা নদীর পানি এখনও বিপদসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘন্টায় কুড়িগ্রামে ১২৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে বলে রাজারহাট কৃষি আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের দায়িত্বশীল র্মকর্তা সুবল সরকার জানান। অন্যদিকে তীব্র স্রোতের কারণে জেলার ধরলা, তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্র নদের ৩৩টি পয়েন্টে ভাঙন শুরু হয়েছে। কুড়িগ্রামের সদর উপজেলার হলোখানা ইউনিয়নের সারডোব, কাউয়াহাগাঘাট, ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নের জগমনের চর, মোগলবাসা ইউনিয়নের চরশিতাইঝাড় ও সন্নাসী, রাজারহাট উপজেলার ছিনাই ইউনিয়নের কালুয়া এলাকায় ধরলার ভাঙন তীব্র হয়ে উঠেছে। অন্যদিকে উলিপুর উপজেলার দলদলীয় ইউনিয়নের ঠুটাপাইকর, বজরা ইউনিয়নের চরবজরা, থেতরাই ইউনিয়নের পাকারমাথাসহ বেশ কয়েকটি পয়েন্টে তিস্তার ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করেছে। ইতিমধ্যে বজরা ইউনিয়নের চর বজরা ও কাশিমবাজার এলাকায় আড়াই শতাধিক বাড়িঘর বিলীন হয়ে গেছে। এছাড়াও ব্রহ্মপুত্রের ভাঙনের মুখে পড়েছে সদরের যাত্রাপুর, রৌমারী, রাজিবপুর, উলিপুর ও চিলমারী উপজেলার বেশ কয়েকটি এলাকা।
কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান জানান, গত দুইদিনে ধরলার ভাঙনে আমার ইউনিয়নের জগমনের চর এলাকার বেশকিছু বাড়ি নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। এসব পরিবারের লোকজন খোলা আকাশের নিচে আশ্রয় নিয়েছে। এছাড়াও ১৩শ ৫০টি পরিবার পানিবন্দি জীবন-যাপন করছে। বজরা ইউনিয়নের ইউপি ৩৩টি পয়েন্টে ভয়াবহ ভাঙন
সদস্য আব্দুল মালেক জানান, তার ইউনিয়নের গাইবান্ধা লাগোয়া চর বজরা গ্রামের আড়াই শতাধিক বাড়ি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। সেখানে এখনও ভাঙন চলছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম জানান, উজানে ও স্থানীয়ভাবে বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকায় নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। পাশাপাশি শুরু হয়েছে ভাঙন। আমরা ভাঙনরোধে বিভিন্ন এলাকায় জরুরি ভিত্তিতে জিও ব্যাগ ফেলছি ।
ভূরুঙ্গামারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি জানান, ভূরুঙ্গামারীতে টানাবৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা ঢলে দুধকুমার ও ফুলকুমার নদের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় তীরবর্তী এলাকার প্রায় ১৪টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এতে এই গ্রামগুলোর কয়েক হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। বন্যায় রোপা আমন ধানও সবজিক্ষেত তলিয়ে গেছে। পুকুর ডুবে গিয়ে ভেসে গেছে মাছ। এছাড়া বর্ষণের কারণে রাস্তাঘাট ভেঙে গেছে।
নাগেশ্বরী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি জানান, নাগেশ্বরীতে পর পর দুই দফা বন্যার ক্ষত কাটিয়ে ওঠতে না উঠতেই আশ্বিনের প্রথম সপ্তাহে দেখা দিয়েছে তৃতীয় দফা বন্যা। তলিয়ে গেছে নি¤œাচল। কুড়িগ্রামের রাজারহাট কৃষি আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র সরকার জানান, এ মুহুর্তে বাংলাদেশের ওপর সক্রিয় রয়েছে মৌসুমী জলবায়ু। টানা এ বৃষ্টিপাতে ইতোমধ্যে বেড়েছে উপজেলার ব্রহ্মপুত্র, দুধকুমর, ফুলকমর, গঙ্গাধর, শংকোষসহ সকল নদ-নদীর পানি। দু’কূল ছাপিয়ে লোকালয়ে ঢুকে প্লাবিত করেছে নিম্নাঞ্চল। দেখা দিয়েছে তৃতীয় দফা বন্যা। তলিয়ে গেছে অনেক রাস্তা-ঘাট ও ফসলি জমি। পানিবৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে বন্যার প্রকোপ আরো বাড়তে পারে।
রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি জানান, কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারীতে একদিনের ভারিবর্ষণে উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের প্রায় ২৫টি এলাকা নিম্নাঞ্চলে প্লাবিত হয়েছে। এতে কৃষক হতাশায় ভুগছেন। গত বুধবার রাত থেকে ভারী বর্ষণে পানি বৃদ্ধি ও নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়।
রৌমারী উপজেলা কৃষি অফিসার শাহরিয়ার হোসেন, জানান, ভারি বর্ষণে নিম্নাঞ্চল ফসলি জমি তলিয়ে গেলেও কৃষকের তেমন ক্ষতি হবে না। কারণ একদিনের রোদ পেলেই পানি শুকিয়ে যাবে। এতে ধানের ক্ষতি হবে না।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )