আজকের তারিখ- Mon-18-11-2019

আসামে ‘বাংলাদেশি’ ঘোষণা করা দুলালের মৃত্যু, লাশ নিতে আপত্তি পরিবারের

যুগের খবর ডেস্ক: ভারতের আসামে ‘বিদেশি’ ঘোষণা করা এক ব্যক্তির মৃতদেহ গ্রহণে আপত্তি জানিয়েছে তার পরিবার। বাংলাদেশি ঘোষণা করা ওই ব্যক্তিকে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিতে বলছেন পরিবারটির সদস্যরা; আর প্রশাসন তাদের হাতেই বুঝিয়ে দিতে চায় মৃতদেহ।

গত রোববার আসামের গুয়াহাটি মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় শোণিতপুরের আলিসিঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা বছর দুলালচন্দ্র পালের (৬৫)। মৃতদেহটি পরিবার গ্রহণ করবে নাকি সরকারিভাবে সমাহিত করা হবে- নানা জটিলতায় তা নিয়ে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত আসেনি।

এনডিটিভি বলছে, শোণিতপুর জেলার তেজপুরে ডিনেটশন ক্যাম্পে থাকা অবস্থায় অসুস্থ হয়ে পড়েন দুলাল। পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। দুলালের মৃত্যুতে রাস্তা অবরোধ করে ধরনা দেন ১০ হাজারের বেশি মানুষ, তারপরই তদন্তের নির্দেশ দেয় আসাম সরকার।

দুলালচন্দ্র পালের ছেলে অশোক পাল বলেন, যদি আমার বাবাকে ভারতের নাগরিক ঘোষণা করা হয় তবেই আমরা তার মৃতদেহ গ্রহণ করব।

তিনি বলেন, কোনও বাংলাদেশির মৃতদেহ আমরা গ্রহণ করব না। তিনি আমার বাবা। বাংলাদেশি হিসেবে নাম ঘোষণা করা আমার বাবাকে ভারতের নাগরিক হিসেবে ঘোষণা করতে সরকারকে অনুরোধ করব।

দুলালের আরেক ছেলে আশিস বলেন, ‘রাজ্য সরকার যেহেতু তাকে বিদেশি বলে ঘোষণা করেছে, ফলে তার দেহ বাংলাদেশের হাতে তুলে দেওয়া উচিত।’

পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ২০১৭ সালে দুলালচন্দ্র পালকে বিদেশি বলে ঘোষণা করা হয়, মানসিকভাবে অসুস্থ থাকা সত্ত্বেও তাকে বিদেশি বলে ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ।

ইন্ডিয়া টুডে জানায়, মৃতদেহ ফিরিয়ে নিতে পরিবার ও গ্রামবাসীদের রাজি করানোর জন্য গত চারদিন ধরে তার বাড়িতে একাধিকবার প্রতিনিধি পাঠিয়েছে রাজ্য সরকার, এখনও পর্যন্ত অনুরোধে সাড়া দেননি তারা।

শোণিতপুরের ডেপুটি কমিশনার মানবেন্দ্র প্রতাপ সিং বলেন, ‘তাকে বিদেশি ঘোষণা করেছে ট্রাইবুনাল, ফলে তাদের দাবি নিয়ে আলোচনা করা প্রশাসনের আওতার বাইরে। যদি তারা ট্রাইবুনালের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে যেতে চান, আমরা তাকে আইনিভাবে সাহায্য করতে পারি। আমরা এই বিষয়টিতে উন্নতি চাই।

সূত্রের খবর, ডায়াবেটিস এবং মানসিক রোগের চিকিৎসা চলছিল দুলালচন্দ্র পালের। ১১ অক্টোবর তার পরীক্ষা করেন তেজপুর মেডিকেল কলেজের চিকিৎসকরা, সেদিনই তাকে ডিনেটশন সেন্টারে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

পরিবার এবং গ্রামবাসীদের দাবি, মৃতদেহ ফিরিয়ে দিতে সঙ্গে একটি নথি নিয়ে আসেন কর্মকর্তারা সেখানে তাকে বিদেশি বলে ঘোষণা করা হয়েছে এবং ঠিকানার জায়গা ফাঁকা রাখা হয়েছে।

দুলালে ছেলে আশিস বলেন, তারা খুব ভালভাবেই ঠিকানা জানতেন, তারপরও জায়গাটি খালি রাখা হয়েছে। আমাদের মনে হয়, তারা বাংলাদেশের কোনও ঠিকানা দিতে পারতেন। যদি তিনি বাংলাদেশিই হন, কেন আমাদের কাছে আনা হয়েছে?

গত ৩১ আগস্ট আসামের নাগরিক পঞ্জি (এনআরসি) প্রকাশিত হয়। প্রকাশিত তালিকায় পরিবারের অন্য সদস্যদের নাম অন্তর্ভুক্ত থাকলেও ১৯ লাখেরও বেশি মানুষের সঙ্গে তালিকা থেকে বাদ পড়েন দুলাল।

দুলালের পরিবারের সদস্যরা বলছেন, ১৯৬৫ সাল থেকে আসামে বসবাস করার প্রমাণস্বরূপ দুলালের পক্ষে সব ধরনের কাগজপত্র রয়েছে। সব প্রমাণ থাকার পরও মানসিকভাবে অসুস্থ এই ব্যক্তিকে ডিটেনশন ক্যাম্পে রাখা হয়।

শোণিতপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক কুলেন শর্মা বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )