আজকের তারিখ- Fri-04-12-2020

বরগুনা পৌরসভা নির্বাচন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দৌড়ে পাঁচজন

যুগের খবর ডেস্ক: সম্প্রতি নির্বাচন কমিশন আগামী বছরের জানুয়ারি মাসে বরগুনা পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠানের ঘোষণা দেওয়ার পর থেকে পাল্টে গেছে শহরের পরিস্থিতি। মেয়র ও কাউন্সিলর সম্ভাব্য প্রার্থীরা প্রতিদিনই প্রচারণা চালাচ্ছেন। এবার থেকে ভোটগ্রহণ করা হবে ইভিএমে।
ইতোমধ্যে সমর্থকদের নিয়ে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন বর্তমান পৌর মেয়র ও শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহাদাত হোসেন বাবুল এবং জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও জেলা যুবলীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান মহারাজ।
এ ছাড়াও সংবাদ সম্মেলন করে নিজেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে ঘোষণা করেছেন সাবেক পৌর মেয়র অ্যাডভোকেট শাহজাহান মিয়া। মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন আরো দুজন আওয়ামীলীগ নেতা। তারা হলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলহাজ মো. হুমায়ুন কবির ও বরগুনা পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. রইসুল আলম রিপন।
বিএনপির এখনো কেউ নির্বচনে অংশগ্রহণের ঘোষণা দেননি। ১৯৯৯ সালের আগে তিন মেয়াদে ে ময়রের দায়িত্ব পালন করেন জেলা বিএনপি সহ সভাপতি মোঃ দেলোয়ার হোসেন মন্টু  জেলা বিএনপি সভাপতি মোঃ নজরুল ইসলাম মোল্লা জানান, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশ গ্রহনে কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত প্রক্রিয়াধীন । নির্দেশ পেলে আমরা অংশগ্রহণ করবো। জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক আব্দুল হালিম মিয়া জানান, পৌরসভা নির্বাচনের বিষয়ে কেন্দ্র থেকে কোনো সিদ্ধান্ত আসেনি। কেন্দ্রের নির্দেশ পেলে আমরা নির্বাচনে অংশ নেব।
২০১১ সালের মার্চ মাস থেকে টানা দুই মেয়াদে মেয়রের দায়িত্ব পালন করছেন মো. শাহাদাত হোসেন বাবুল। করোনাকালীন লকডাউনের সময়ে তার মাধ্যমে কর্মহীন ৬৯০০ পরিবার পরে ১২০০ জনকে খাদ্য সহায়তাসহ বিভিন্ন দান-অনুদান দিয়েছেন বলে জানান বরগুনার পৌর মেয়র। বরগুনার বিভিন্ন অসচ্ছল ও অসহায় মানুষকে আর্থিক সহায়তার কারণে কর্মজীবী মানুষের মধ্যে তার জনপ্রিয়তা তৈরি হয়েছে। এ ছাড়াও পৌরসভায় মাস্টাররোলে কয়েকশ কর্মচারী ও তাদের পরিবারের দেখভাল করার কারণে তার একটি ভোটব্যাংক তৈরি হয়েছে বলে মনে করেন পৌরসভার ভোটাররা। তার এই দুই মেয়াদে বরগুনা পৌরসভায় সবচাইতে বেশি বরাদ্দ এসেছে। ইতোমধ্যে শহরের মধ্যে নাথপট্টি লেক, মাছ বাজার ভবন, সিরাজউদ্দিন মিলনায়তন, টাউন হল ভবন, বরগুনা সার্কিট হাউস মাঠে ঈদগাহ নির্মাণ, আধুনিক বাসস্ট্যান্ড, কয়েকটি খাল খনন, ওভারহেড পানির ট্যাংকি নির্মাণ, পৌরসভার প্রায় সকল রাস্তার সংস্কার, প্রশস্তকরণ ও সৌন্দর্যবর্ধনে তার ভূমিকার প্রশংসা রয়েছে পৌরবাসীর মধ্যে। অন্যদিকে, তিনি নিজেই প্রভাবশালী ঠিকাদার হওয়ার কারণে পৌরসভায় সকল কাজ গোপন টেন্ডারে নিজে এবং নিজের পরিচিত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নামে নিয়ে নিজে কাজ করার অভিযোগসহ পৌরসভায় পানি সরবরাহে গাফিলতির ব্যাপক অভিযোগ রয়েছে।
এ বিষয়ে মেয়র বলেন, বরগুনা পৌরসভায় যে পরিমাণ পানির প্রয়োজন হয় সেটা উত্তোলন সম্ভব হয় না। এ ছাড়াও পানির স্তরের কারণেও কাক্সিক্ষত মাত্রার পানি পাওয়া যায় না। ওভারহেট ট্যাংক নির্মাণ শেষ। দুয়েক মাসের মধ্যে আর পানির সমস্যা থাকবে না।
এ ছাড়াও পৌরসভার মধ্যে দিনের বেলায় ট্রাক, বাস ও অবৈধ যানবাহন নিয়ন্ত্রণের পরিবর্তে তাদের কাছ থেকে পৌরটোল আদায় করা হয় বছরব্যাপী। পৌরসভার মাধ্যমে প্রচুর পরিমাণে অটোরিকশা ও ইজিবাইকের লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। এর ফলে সারা বছরই শহরের মধ্যে যানজন ও দুর্ঘটনা লেগে থাকে। এ বিষয়ে মেয়র বলেন, আমরা মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করি। অনেক সময়ই বিভিন্ন কারণে সম্ভব হয় না।
মেয়র বলেন, অনেক কিছুই আমাদের সীমাবদ্ধতার কারণে করা সম্ভব হয় না। করোনা শুরুর পরে একমাত্র আমি মাঠে ছিলাম। প্রতিদিন ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা দান করি। সারা বছর গরিবের পাশে থাকি। তাদের ওপরেই আমার আস্থা। আগামীবার নির্বাচিত হলে পৌরশহরে একটি দৃষ্টিনন্দন শিশুপার্ক প্রতিষ্ঠা করা হবে। দল আমাকে অবশ্যই মনোনয়ন দেবে। না দিলে সময়ই বলে দেবে কি সিদ্ধান্ত হবে।
আওয়ামী লীগের সমর্থন নিয়ে ১৯৯৯ সালের ১৮ মার্চ থেকে ২০১১ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত টানা দুই মেয়াদে মেয়রের দায়িত্ব পালন করেন অ্যাডভোকেট মো. শাহজাহান মিয়া। এর মধ্যে দ্বিতীয় মেয়াদে ২০০৪ সালের ৬ মে চারদলীয়ে জোট সরকার ক্ষমতায় থাকাকালে মনোনীত প্রার্থী জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এস এম নজরুল ইসলামকে পরাজিত করে নির্বাচিত হন।
তিনি বলেন, আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে আমার রাজনৈতিক দলের মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিতে চাই। নাথপট্টি লেক, ওভারহেড ট্যাংকি, আধুনিক বাসস্ট্যান্ড, মাছবাজার, বেজমেন্টসহ উঁচুতল ভবন, শিশুপার্কসহ বরগুনার ১৬টি স্পট বিউটিশিয়ান করার পরিকল্পনা আমার নেওয়া ছিল। আমি দলমত নির্বিশেষে সকলের সহযোতিগতা চাই। নির্বাচিত হওয়ার সুযোগ পেলে ব্যক্তিস্বার্থের ঊর্ধ্বে থেকে নিজেকে কর্মে নিয়োজিত রাখবো। দলীয় মনোনয়ন না পেলে দল যাকে মনোনয়ন দেবে তার পক্ষে কাজ করবো।
সাবেক এই পৌর মেয়রের মেয়াদকালে কয়েকজন ঠিকাদারের সিন্ডেকেট তৈরি হয়েছিল বলে অভিযোগ রয়েছে। এ ছাড়াও তার মেয়াদকালে পৌরসভার কোনো সালিশ বৈঠকের সমাধান না দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে পৌরবাসীর অনেকের মধ্যে।
গত পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সমর্থন ও নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান মহারাজ। নির্বাচন চলাকালে বরগুনা সরকারি বালিকা বিদ্যালয় কেন্দ্রে মহারাজের নির্বাচনী পোলিং এজেন্ডদের সামনে একজন পুলিশ অফিসারের পিস্তল বের করাকে কেন্দ্র করে নির্বাচন বর্জন করে সামনের মাঠে অবস্থান নেন নির্বাচনী এজেন্টরা। এরপর অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান মহারাজ দুই কোটি টাকার বিনিময়ে নৌকার প্রার্থীকে পরাজিত করার ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তুলে আনুষ্ঠানিক নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন।
এই ঘোষণার পরে মহারাজ সমর্থকদের নিয়ে বরগুনা সরকারি কলেজ কেন্দ্রের সামনে যাওয়ার পথে পুলিশ ও বিজিবির সঙ্গে সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে মহারাজ মাথায় গুরুতর আঘাত পান। তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও পরে ঢাকায় পাঠানো হয়। নৌকার প্রার্থীর আহত হওয়ার বিষয়টি ওই সময় সারাদেশে আলোচিত হয়েছিল। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগের রাজনীতি। একটি পক্ষ এই পরাজয়ের জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুকে দায়ী করে তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগসহ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন। অন্যপক্ষ মনে করে সুষ্ঠু নির্বাচন ও ভোটকেন্দ্র দখল না করতে পারার কারণেই তারা এমপির বিরোধিতা করেছেন।
অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান মহারাজ বলেন, দলীয় মনোনয়ন পেলে নির্বাচন করবো। অন্যথায় দল যাকে মনোনয়ন দেবে তার পক্ষে কাজ করবো। সকল কর্মীর সঙ্গে আমার যোগাযোগ আছে এবং আমি সকলের সব সময় খোঁজ-খবর রাখি।
বরগুনা পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী আলহাজ হুমায়ুন কবিরকে কয়েকবার দল থেকে মনোনয়ন দেওয়ার কথা উঠলেও শেষ পর্যন্ত একবারও দলীয় মনোনয়ন পাননি। তার বড় ভাই জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ মো. জাহাঙ্গীর কবির ২০০৯ সালে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে হেরে যাওয়ার পরে দলীয় কয়েকজন নেতার বিশ্বাসঘাতকতার কারণে তাদের লাঞ্ছিত করা হয়। এ ছাড়াও ২০১৪ সালের ১৫ নভেম্বর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে তার বড় ভাইয়ের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম সরোয়ার টুকুর নাম প্রস্তাব করার কারণে কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনে প্রস্তাব ও সমর্থনকারীর ওপর হামলা ও প্রস্তাবকারীর বাসভবনসহ দুটি ব্যাংকের ওপর হামলা করা হয়। এসব ঘটনা আলহাজ হুমায়ুন কবিরের মনোনয়ন পাওয়ার ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের নেতারা।
কয়েকবার নির্বাচিত পৌর কাউন্সিলর ও বর্তমান পৌরসভার প্যানেল মেয়র রইসুল আলম রিপনের শহরের একটি অংশের মধ্যে সমর্থন থাকলেও মনোনয়ন না পেলে তিনি নির্বাচন করবেন না বলে জানান। এ ছাড়াও একটি সালিশের মধ্যস্থতাকারী হওয়ার কারণে সম্প্রতি একটি মামলায় তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। এ ঘটনায় তার সমর্থকরা বিব্রত এবং তার ইমেজে একটি নেতিবাচত প্রভাব ফেলেছে বলে মনে করেন অনেকে।
বরগুনা পৌরসভায় মোট ভোটারের সংখ্যা ২৪ হাজার। প্রায় অর্ধেক নারী ও অর্ধেক পুরুষ। সাধারণ ভোটারদের প্রত্যাশা, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশের মধ্যদিয়ে নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগ।
সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )