আজকের তারিখ- Thu-28-01-2021

এমপিওভুক্ত ৪৭ হাজার শিক্ষকের আর্তনাদ!

যুগের খবর ডেস্ক: এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারিরা অবসরে গিয়েও শান্তিতে নেই। চাকরি জীবনে নিজের বেতনের টাকা থেকে অবসর ও কল্যাণ তহবিলে জমা দেওয়া টাকা তুলতে পারছেন না। বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও কর্মচারীদের বছরের পর বছর ঘুরতে হচ্ছে রাজধানীর ব্যানবেইস ভবনে অবস্থিত দুই প্রতিষ্ঠানের অফিসে। ২০১৮ সালে অবসরে গিয়ে এখনো টাকা তুলতে পারেননি এই সংখ্যা প্রায় ৪৭ হাজারের উপরে। টাকার অভাবে অনেক শিক্ষক অনাহারে-অর্ধাহারে দিন কাটাচ্ছেন। কেউ কেউ বিনা চিকিৎসায় মারা গেছেন। অনেকে চিকিৎসা করাতে পারছেন না। কন্যাকে বিয়ে দিতে পারছেন না এমন শিক্ষক-কর্মচারীও আছেন। দুই খাতে জমা হওয়া আবেদন নিষ্পিত্তি করতে প্রায় সাড়ে ৩২ হাজার কোটি টাকার প্রয়োজন। বিপুল পরিমান অর্থ খাটতির কারণে শিক্ষকদের আবেদন নিষ্পত্তি করা যাচ্ছে না বলে সংশ্লিষ্টরা দাবি করেছেন। তবে সংকটকে পূঁজি করে এক শ্রেণির দালাল গড়ে উঠেছে।
সম্প্রতি ব্যানবেইস ভবনে কথা হয় ভোলার হাকিমউদ্দিন ফাজিল মাদ্রাসা থেকে ২০১৯ সালের অক্টোবরে অবসের যাওয়া অধ্যক্ষ মাওলানা মো. মোকলেছুর রহমানের সঙ্গে। তিনি বলেন, পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী হিসেবে চাকরিতে থাকতে প্রতি মাসে বেতন-ভাতা পেতেন। তা দিয়েই পরিবারের ব্যয় মেটানো হতো। এখন অবসর জীবনে এই টাকা দ্রুত পেলে পরিবার নিয়ে তিনি সুখে থাকতে পারতেন। এছাড়াও শেষ বয়সে তিনি পবিত্র হজব্রত পালন করার ইচ্ছা পোষণ করেছেন। তাই প্রতিনিয়ত ব্যানবেইস ভবনে অবসর ও কল্যাণ ট্রাস্টের টাকার খোঁজ নিতে আসেন তিনি। কিন্তু কোনো রকম আশ্বাস না পেয়েই গ্রামে ফিরে যেতে হয় তাকে।
ভোলার বোরহানউদ্দিন মহিলা কলেজের রসায়নের প্রদর্শক থেকে ২০১৮ সালের শেষে অবসরে গেছেন মো. আবুল হোসাইন। প্রায় তিন বছরের এই অবসর জীবনে এসে করোনার এই দুঃসময়ে নিজ চিকিৎসা ব্যয় মেটাতে চরম কষ্টে পড়েছেন তিনি। আবুল হোসেন বলেন, তিনি হার্টের রোগী। বছর দু’য়েক আগে একবার হার্টের বাইপাস সার্জারি করান। চিকিৎসায় অনেক টাকা ব্যয় হয়েছে তার। পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী ব্যক্তি হিসেবে নিদারুণ অর্থকষ্টে আছেন তিনি। অবসর ও কল্যাণ ট্রাস্টের টাকা পেতে রাজধানীর পলাশী মোড়ে ব্যানবেইস ভবনের দুই দুয়ারে ঘুরে বেরিয়েছেন অগণিতবার। হার্টের অপারেশনের পর এখন আর তিনি নিজে এসে খোঁজ নিতে পারছেন না। মাঝে মাঝে তার ছেলেদের পাঠাচ্ছেন অবসর আর কল্যাণ ট্রাস্টের টাকার খোঁজ নিতে। কিন্তু দুই ছেলেই ব্যানবেইস ভবনে এসে বাবার অবসরের টাকার খোঁজ নিলেও কোনো সদুত্তর পাচ্ছেন না।
শুধু এই আবুল হোসাইন আর মোকলেছুর রহমানই নন, এমন শত শত শিক্ষক প্রতিদিন ব্যানবেইস ভবনের দুই দুয়ারে বছরের পর বছর ঘুরছেন নিজ বেতন থেকে কেটে রাখা অর্থ দ্রুত পাওয়ার আশায়। চাকরি জীবনের জমানো টাকা পেতে বেসরকারি শিক্ষকদের অপেক্ষা করতে হয় তিন থেকে চার বছর। ততদিনে কেউ টাকার মুখ না দেখে কেউ বিনা চিকিৎসায় মারা যান। কেউ মেয়ে বিয়ে পর্যন্ত দিতে পারছেন না। অথচ অবসরে পর পরই তার গচ্ছিত টাকা দেওয়ার কথা।
সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, সরকারের সদিচ্ছার অভাবে জাতি গড়ার কারিগরিরা জীবনের শেষপ্রান্তে এসে নিদারুন কষ্ট আর ভোগান্তিতে পড়ছেন। বর্তমানে দেশজুড়ে চলছে করোনা মহামারি। জীবেনর ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিনই ব্যানবেইস ভবনের দ্বারে টাকার জন্য ধরনা ধরছেন শিক্ষকরা। হন্যে হয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন তাদের অবসরের টাকার জন্য।
সংশ্লিষ্টরা জানান, বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতনের মোট ১০ শতাংশ কেটে রাখা হয়। যা অবসরের পর লভাংশসহ দেওয়া হয়। অবসরে যাওয়ার পর একজন শিক্ষককে এ টাকা তুলতে গিয়ে নানা হয়রানি, বিড়ম্বনা এবং প্রতারনার শিকার হতে হয়। এর সঙ্গে বাড়তি যোগ হয় ঘুষ দেওয়ার মতো ঘটনাও। তারপরও মিলে না কাক্সিক্ষত টাকা। তাই বাধ্য হয়ে অনেকেই জমানো টাকা তুলতে মন্ত্রী, এমপি, সচিবসহ প্রভাবশালী ব্যক্তিদের দ্বারস্ত হন। কখনো তাদের ডিও লেটার নিয়েও অবসর ও কল্যাণ ট্রাস্ট অফিসে জমা দিলেও টাকা মিলে না।
সম্প্রতি অবসর ও কল্যাণ ট্রাস্টের টাকা পেতে প্রতারণার শিকার হাকিমউদ্দিন ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মো. মোকলেছুর রহমান। কল্যাণ ট্রাস্টের কথিত এক দুর্নীতিবাজ সহকারী পরিচালক (অফিস সহায়ক থেকে যার উত্থান) ও পিয়নের মাধ্যমে দ্রুত কল্যাণ ও অবসরের টাকা পাইয়ে দেওয়ার নাম করে মোকলেছুর রহমানের কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা নিয়েছেন ওই সিন্ডিকেটের ভোলা জেলার এক সদস্য। কিন্তু দীর্ঘদিন অপেক্ষা করেও অবসরের টাকা পাননি ওই শিক্ষক। ব্যানবেইস ভবন থেকে উত্থান এই সিন্ডিকেটের সদস্যরা এখন সারাদেশে ছড়িয়ে পড়েছে। অভিযোগ রয়েছে, অনেক শিক্ষককে এই সিন্ডিকেটের সদস্য হিসেবে ব্যবহার করে দ্রুত অবসরের টাকা পাইয়ে দেওয়ার প্রলোভন দিয়ে শিক্ষকদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা আদায় করা হচ্ছে। যা ভাগ পাচ্ছেন এ গ্রুপের প্রতিটি সদস্য। গতকাল ব্যানবেইস ভবনে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা শিক্ষকরা এই হয়রানির বন্ধে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ডের সচিব অধ্যক্ষ শরীফ আহমদ সাদী আজকালের খবরকে বলেন, শিক্ষকদের হয়রানি বন্ধে অনেক উদ্যোগ নিলেও তা বন্ধ করা যাচ্ছে না। ব্যানবেইস ভবনে দালালদের দৌরাত্ম্য এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যেটি নিয়ন্ত্রণ করা খুবই কষ্টকর। এজন্য তিনি শিক্ষা প্রশাসনের সহায়তা চেয়েছেন। তিনি আরো বলেন, অর্থ সংকটের কারণে শিক্ষকদের অবসর ভাতা পেতে আবেদনের পর দুই থেকে আড়াই বছর অপেক্ষা করতে হয়। শিক্ষকদের দুর্ভোগ লাগবে চেষ্টা করা হচ্ছে। শিক্ষকদের টাকা দ্রুত পরিশোধ করতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ও এ ব্যাপারে যথেষ্ট আন্তরিক।
অবসর সুবিধা বোর্ড সূত্র জানায়, এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারিদের বেতন থেকে ছয় শতাংশ হারে অবসরের চাঁদা বাবদ অবসর বোর্ডের প্রতি মাসের আয় প্রায় ৬০ কোটি টাকা। কিন্তু প্রতি মাসে আবেদনকারীদের সবাইকে অবসর ভাতা দিতে দরকার হয় অন্তত ৮০ কোটি টাকা। সেই হিসাবে প্রতি মাসে ২০ কোটি টাকার ঘাটতি থাকছে। আর বছরে ২৪০ কোটি টাকা ঘাটতি থাকে। বর্তমানে ২০১৮ সালের মে মাস পর্যন্ত আবেদনকারীদের চেক প্রস্তুতির কাজ চলছে।
সূত্র আরো জানায়, বর্তমানে অবসর বোর্ডে শিক্ষকদের অপেক্ষমাণ আবেদনের সংখ্যা ২৪ হাজার। এসব আবেদন নিষ্পত্তি করতে প্রয়োজন দুই হাজার কোটি টাকা। আর্থিক সংকট রয়েছে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্ট। এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন থেকে চার শতাংশ হারে ট্রাস্টের চাঁদা বাবদ প্রতি মাসের আয় প্রায় ৪০ কোটি টাকা। আর প্রতি মাসে বিতরণ করা হচ্ছে ৪৩ থেকে ৪৪ কোটি টাকা। ঘাটতি থাকছে পাঁচ থেকে ছয় কোটি টাকা। বর্তমানে ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসের করা আবেদনগুলোর নিষ্পত্তি চলছে। বর্তমানে কল্যাণ ট্রাস্টে অপেক্ষমাণ আবেদনের সংখ্যা ২৩ হাজার ৪১২টি। এসব আবেদন নিষ্পত্তি করতে প্রয়োজন এক হাজার ২০০ কোটি টাকা।
ট্রাস্টের সদস্য সচিব অধ্যক্ষ মো. শাহজাহান আলম সাজু আজকালের খবরকে বলেন, পাঁচ শতাংশ ইনক্রিমেন্ট দিতে গিয়ে ট্রাস্টের ব্যয় বেড়েছে। অবসরে যাওয়া শিক্ষক-কর্মচারীদের মূল বেতনের সঙ্গে পাঁচ শতাংশ ইনক্রিমেন্ট যোগ করে সর্বশেষ স্কেল অনুযায়ী ১৯৯০ সাল থেকে হিসাব করে অর্থ দেওয়া হয়। এতে শিক্ষক প্রতি এক থেকে দেড় লাখ টাকা ব্যয় বেড়েছে। এটিও ট্রাস্টের অর্থ ঘাটতির পরিমাণ বাড়িয়ে তুলেছে। তিনি আরো বলেন, মুজিববর্ষ আগামী মার্চের মধ্যে ছয় হাজার আবেদন নিষ্পত্তি করা হবে।
অবসর ও কল্যাণ ট্রাস্টের টাকা দ্রুত পাইয়ে দেওয়ার নাম করে কল্যাণ ট্রাস্টের একটি সিন্ডিকেট সারাদেশে শিক্ষকদের কাছ থেকে ঘুষ আদায় করছে- এমন অভিযোগের বিষয়ে শাহজাহান আলম সাজু বলেন, এটা একবারেরই সঠিক নয়। ইতিমধ্যে আমরা থানায় একটি জিডি করেছি। এ ব্যাপারে নোটিশ দিয়েছি। কোনো রকম দালালের কাছে যাতে ঘুষ না দেন শিক্ষকদের প্রতি এটি আমাদের আহ্বান থাকবে।
প্রসঙ্গত, দেশের এমপিওভুক্ত প্রায় পাঁচ লাখ শিক্ষক-কর্মচারীর কল্যাণ ট্রাস্ট ও অবসর ভাতা প্রদান করে অবসর বোর্ড ও কল্যাণ ট্রাস্ট। এই বোর্ড ও ট্রাস্ট পরিচালিত হয় ২১ সদস্যবিশিষ্ট একটি পরিচালনা বোর্ডের মাধ্যমে। শিক্ষা সচিব, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) ডিজি, বোর্ডের সচিব ছাড়াও বেসরকারি শিক্ষক সংগঠনগুলোর ১০ জন শিক্ষক প্রতিনিধি ও বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের পাঁচজন কর্মকর্তা এবং তিনজন কর্মচারী নিয়ে এই বোর্ড গঠিত হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )