আজকের তারিখ- Thu-21-01-2021

ভর্তুকিতে চলছে লন্ডন-সিলেট ফ্লাইট, বন্ধের আশঙ্কা

যুগের খবর ডেস্ক: যুক্তরাজ্য ফেরতদের নিজ খরচে কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক করায় ফ্লাইট বাতিল করছেন অসংখ্য যাত্রী। এ কারণে ক্ষতির মুখে বাংলাদেশ বিমানের লন্ডন-সিলেট ফ্লাইট চলাচলে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। এদিকে, যেকোনো দিন ফ্লাইট বন্ধ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। যাত্রী না থাকায় এরই মধ্যে দুইটি ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে।
সংশ্লিষ্টরা জানান, ২৯৮ জনের বহরের বিমান মাত্র গুটিকয়েক যাত্রী নিয়ে লন্ডন থেকে বাংলাদেশে চলাচল করছে। এ কারণে বড় ধরনের ভর্তুকি দিয়েও সরকার বিমান চলাচল স্বাভাবিক রাখছে। বৃহস্পতিবার মাত্র ৩৪ জন যাত্রী নিয়ে সিলেট ওসমানী বিমানবন্দরে পৌঁছায়। এর মধ্যে ২৮ জন সিলেটে এবং অন্য ছয়জন ঢাকায় নেমেছেন।
বাংলাদেশ বিমানের সিলেট অফিসের তথ্যমতে, নিজ খরচে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক করায় বৃহস্পতিবার ফ্লাইটে ১৯০ জন টিকিট কাটলেও এসেছেন ৩৪ জন। এর আগে গত সোমবার সিলেটে আসা ফ্লাইটের ১৯০ যাত্রী টিকিট কিনলেও এসেছেন মাত্র ৩৬ জন। বাকিরা টিকিট বাতিল করেছেন।
বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স সিলেট কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক শাহনেওয়াজ মজুমদার বলেন, যুক্তরাজ্যফেরত যাত্রীরা নিজ খরচে ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকার ভীতিতে টিকিট বাতিল করেছেন। সোমবার ও বৃহস্পতিবারের ফ্লাইটে দুই শতাধিক যাত্রী টিকিট কনফার্ম করার পরও তাদের বেশিরভাগই পরবর্তী টিকিট বাতিল করেছেন।
তিনি বলেন, যুক্তরাজ্য থেকে বিমানের একটি ফ্লাইট চালাতে গেলে চার কোটি টাকার মতো খরচ হয়। যাত্রীপ্রতি রিটার্ন টিকিটসহ বিমানে ভাড়া আসে ৯০০ পাউন্ড। সেখানে প্রায় ৩০০ আসন সংখ্যার বিমান খালি আসছে বললেই চলে। এতে করে সরকারকে বিরাট অংকের ক্ষতি বহন করতে হচ্ছে।
তিনি আরো বলেন, বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্য থেকে সিলেটে আসতে ১৯০ জন যাত্রী টিকিট কেটে রেখেছিলেন। তাদের মধ্যে মাত্র ৩২ জন এসেছেন। তার মধ্যে ২৮ জন সিলেটে নেমেছেন। বাকি ছয়জন ঢাকার। এ অবস্থায় যাত্রী না থাকায় আগামী ২৩ ও ৩০ জানুয়ারির ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চেয়ে মোবাইল ফোনে বাংলাদেশ বিমানের উপ-মহাব্যবস্থাপক তাহেরা খন্দকারকে কল দিলেও তিনি রিসিভ করেননি। করোনা ভাইরাসের নতুন ধরনের সংক্রমণরোধে যুক্তরাজ্যফেরত প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক করেছে সরকার। এরই মধ্যে গত ৪ জানুয়ারি এক শিশুসহ ৪২ জন এবং বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্য থেকে সিলেটে আসা আরো ২৮ জনকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়েছে।
সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক হাফিজ আহমদ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, বিমানের ফ্লাইটে ২৮ জন যাত্রী সিলেটে নেমেছেন। তাদের বিআরটিসি বাসে করে নির্ধারিত হোটেলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এর আগে সোমবার যুক্তরাজ্যেফেরত এক শিশুসহ ৪২ জনকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়।
তিনি বলেন, সপ্তাহের প্রতি সোমবার ও বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্যের হিথ্রো বিমানবন্দর থেকে সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিমানের সরাসরি ফ্লাইট আসে।
সিলেট জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, যুক্তরাজ্য থেকে আসা যাত্রীদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনের জন্য নগরের আটটি হোটেল নির্ধারণ করে রাখা হয়। এর মধ্যে অভিজাত হোটেল রোজভিউ, স্টার প্যাসিফিক ছাড়াও মধ্যম সারির হোটেল নুরজাহান গ্র্যান্ড, হলি গেইট, লা-রোজ, ব্রিটানিয়া, অনুরাগ ও হোটেল হলিসাইড। তবে এসব হোটেলের নুরজাহানে ভাড়া খাবারে অতিরিক্ত মূল্য রাখার অভিযোগ রয়েছে প্রবাসীদের।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনের সিদ্ধান্ত কার্যকরের আগে যুক্তরাজ্য থেকে সরাসরি বিমানের ফ্লাইটে সর্বশেষ ৩১ ডিসেম্বর ২৩৭ যাত্রী নিয়ে সিলেট ওসমানী বিমানবন্দরে আসে বিমানের ফ্লাইট। এর আগে ২৮ ডিসেম্বর ২০২ জন ও গত ২৪ ডিসেম্বর ২০২ জন যাত্রী যুক্তরাজ্য থেকে সিলেটে ফেরেন। এই তিনদিনে যথাক্রমে ১৬৫, ১৪৪ ও ২০২ জন ছিলেন সিলেটের যাত্রী। বিমানবন্দরে স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে তাদের প্রত্যককেই হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশনা দিয়ে বাড়ি চলে যেতে দেওয়া হয়েছিল।
সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )