আজকের তারিখ- Sat-27-02-2021
 **   শনিবার সংবাদ সম্মেলনে আসছেন প্রধানমন্ত্রী **   প্রশংসিত ‘মন অবরোধ’ **   সাংবাদিকতার ‘নৈতিকতা বিরোধী’ অনুষ্ঠান প্রচার করছে আল জাজিরা **   সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর **   পিলখানা হত্যা দিবস আজ **   করোনা নিয়ন্ত্রণে বিশ্বে অনন্য দৃষ্টান্ত বাংলাদেশ **   চিলমারীতে বিএনপির রংপুর বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল খালেককে লাঞ্চিত করার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন **   দেশেই তৈরি হবে যুদ্ধবিমান: প্রধানমন্ত্রী **   সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবিতে চিলমারীতে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত **   চিলমারীতে ১০দিনের মজুরীর দাবীতে শ্রমিকদের মানববন্ধন

জীবিকা নির্বাহ নৌকাই একমাত্র ভরসা ৬৫ বছরেও হাল ছাড়েননি জিঞ্জিরাম নদীর নৌকার মাঝি আব্দুস সবুর

মাসুদ পারভেজ: রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: ৪৮ বছর থেকে নৌকা চালিয়ে সংসার চালান আব্দুস সবুর মিয়া। ১৭ বছর বয়সে অভাবের সংসারে বাবার কাজে সহযোগিতা শুরু করেন তিনি। ফলে স্কুলে পড়ালেখার সুযোগ হয়নি তার। বলছিলাম কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারী উপজেলার যাদুরচর ইউনিয়নের লালকুড়া গ্রামের মৃত তয়জুদ্দিনের ছেলে আব্দুস সবুর মিয়া কথা । দেশ স্বাধীন হওয়ার আগে থেকেই বাবা তয়জুদ্দিন নিজ এলাকায় জিঞ্জিরাম নদীতে লালকুড়া ঘাটে নৌকা চালিয়ে সংসার চালাতেন। প্রতি বছর বন্যার সময় মানুষদের নিয়ে গ্রাম গঞ্জে হাট-বাজারে পৌঁছে দিতেন। অত্র এলাকার মানুষের বর্ষা কিংবা সুখকনো মৌসুমে পারাপারের একমাত্র ভরসা ছিল তার নৌকা। এলাকার মানুষকে পারাপার করে যা পেত তাই দিয়ে তার সংসার চলত। কিন্তুু সামান্য আয়ের অর্থ দিয়ে কোনো মতে চলত তার সংসার। বর্তমানে বয়সের ভারে নৌকা বাইতে সমস্যা হওয়ায় ১৭ বছর বয়সী ছেলে আব্দুস সবুরকে তার সহযোগিতা করার জন্য সাথে নেওয়া হয়। একমাত্র বাবা তয়জুদ্দিন তিনিও না ফেরার দেশে চলে গেছেন। সংসারের ভার পড়ে যায় তার উপর। শুরু হয় সংসার পরিচালনার যুদ্ধ। সংসারে মা, ভাই বোনদের নিয়ে কষ্টে দিন কাটে তার। দিন-রাত নৌকা চালিয়ে যা অর্থ পায় তাই দিয়ে তাদের ৬ সদস্যের সংসার চলে কোন মতে। কারন সে সময় নৌকা ভাড়া ছিল ৫০ পয়সা থেকে ১ টাকা পর্যন্ত। মা মারা গেছেন কয়েক বছর আগে। বর্তমানে আব্দুস সবুরের ঘরে রয়েছে ৬ মেয়ে ও ২ ছেলে। মেয়েদের বিয়ে দিয়েছেন। ছেলে শাহিন মিয়া ও বিলাল হোসেন বিয়ে করে পৃথক হয়েছেন। ফলে শেষ বয়সেও জীবিকা নির্বাহ করতে নৌকা চালাতে হচ্ছে তাকে।
বর্তমান স্বামী-স্ত্রী ছাড়া আর কেউ নেই তার সংসারে। এতো সব অভাবের সংসারে একজন হাফেজিয়া মাদ্রাসা ছাত্রের পড়ালেখার দায়িত্ব নিয়েছেন আব্দুস সবুর। ভাগ্যের কি পরিহাস নৌকা ঘাটটিও হাত ছাড়া হয়ে যায়। গত বছর যাদুরচর নিজ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোটা অঙ্কের অর্থের বিনিময় সেই লালকুড়া নৌকা ঘাটটি লিজ দিয়েছেন অন্যের কাছে। এতে বিপাকে পড়েছেন তিনি। একদিকে বয়সের ভারে শরীর অচল হয়েছে, অপর দিকে একমাত্র উপার্জনের পথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছে তিনি। কিন্তুু ৬৫ বয়সেও হাল ছাড়েননি তিনি। বাঁচার তাগিদে নৌকা নিয়ে জিঞ্জিরাম নদীর এদিক-সেদিক চলতে থাকে। সরেজমিনে গিয়ে এসব তথ্য পাওয়া যায়।
১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় হাজার হাজার শরনার্থিদের পাড় করে দিয়েছেন তিনি। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে রৌমারীতে প্রশিক্ষণ নিতে আসা মুক্তিবাহিনীদের এই নৌকা ঘাট দিয়েই পার করা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে থাকা আগ্নেয়াস্ত্র, গোলাবারুদের বাক্সসহ বিভিন্ন মালামাল কাধে করে নদী পার করে দিতেন। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও প্রামাণাদি না থাকায় মুক্তিযোদ্ধার সনদ পাননি তিনি। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ঘোষনা মোতাবেক মুক্তিযোদ্ধার তালিকা থেকে বাদপড়াদের অনলাইনে আবেদনের সুযোগ দিলেও আব্দুস সবুর আবেদন করতে পারেনি। ইতোমধ্যে উপজেলা সমাজসেবা অফিস থেকে তার নামে বয়স্কভাতার নাম দেওয়া হয়েছে। তবে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বারসহ এনজিওর সকল সুবিধা থেকে বঞ্চিত রয়েছেন বলে জানা গেছে।
বৃদ্ধ আব্দুস সবুর মিয়া জানান, ১৭ বছর বয়স থেকে নৌকা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে আসছি। প্রমাণাদির অভাবে মুক্তিযোদ্ধার নামের তালিকায় অন্তর্ভক্ত হতে পায়নি। শেষ বয়সে নৌকা চালাতে পারছিনা। তবুও জীবিকার টানে সংসার সংসারের দায়ভারে নৌকা চালাতে বাধ্য হচ্ছি। সরকারি বা বেসরকারি ভাবে সাহায্য সহযোগিতা পেলে বাকি দিনটা হয়তো ভালোই যেত।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ আব্দুল্লাহ্ জানান, আমি আপনাদের মাধ্যমে জানতে পারলাম খোঁজ খবর নিয়ে আমার পরিষদ পক্ষ থেকে যতটুকু সম্ভব তাকে সহযোগীতা করা হবে।
এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আল ইমরান বলেন, অসহায় মানুষের জন্য আমার সহযোগীতার দর্জা খোলা। নৌকা চালক আব্দুস সবুর এর কথা জানতে পারলাম। একটি লিখিত আবেদন দিলে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সহযোগিতা দেওয়ার চেষ্টা করবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )