আজকের তারিখ- Sun-11-04-2021

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী চিলমারী নৌবন্দরের হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে কেন এত গুরুত্ব দিয়েছেন -এখানে না এলে বুঝতাম না -পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য সচিব মামুন-আল-রশিদ

এস, এম নুআস: মাননীয় প্রধানমন্ত্রী চিলমারী নৌবন্দরের হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে কেন এতো গুরুত্ব দিয়েছেন- এখানে না এলে বুঝতাম না। যেইমাত্র দেখেছি, ঐতিহাসিক চিলমারী বন্দরের নাম। তখনই এখানে আসবো বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কারণ আব্বাস উদ্দিনের গানের মধ্যে চিলমারী বন্দরের কথাটি আছে। বাস্তবে জায়গাটি দেখার ইচ্ছে ছিল আমার। আর তাছাড়া কোন স্থান না দেখে, সেই স্থান সর্ম্পকে স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যায় না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এটা পছন্দ করেন যে, বাস্তবে দেখে এবং প্রকল্পের গুরুত্ব বুঝে, সেটা একনেকে উপস্থাপন করা হোক। কুড়িগ্রাম যে বৈচিত্রময় জায়গা, বৈচিত্রময় এখানকার ল্যান্ড স্কিল, এখানকার ইকোনমিক যে চাহিদা, সামাজিক যে চাহিদা এবং ভৌগলিক গুরুত্ব- তা বুঝেই প্রধানমন্ত্রী চিলমারী বন্দরের হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে ঘোষণা দিয়েছেন। আমি বন্দরে দাঁড়িয়ে থেকে দেখলাম, ইন্ডিয়া, নেপাল ও ভুটান- এখান থেকে খুব কাছাকাছি। বন্দরটি চালু হলে সে সকল দেশ থেকে আমাদের এখানে বিভিন্ন মালামাল নৌপথে পরিবহণ করা সহজ হবে। পাশাপাশি আমাদের দেশ থেকেও ইটসহ বিভিন্ন পণ্য রপ্তানি সহজতর হবে।
শনিবার দুপুরে পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য সচিব মামুন-আল-রশিদ চিলমারী নৌ বন্দর এলাকা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে উপরোক্ত কথাগুলি বলেন।
বিগত ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৬ইং কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার থানাহাট এ, ইউ পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় হতদরিদ্র মানুষের মধ্যে কার্ডের মাধ্যমে ১০ টাকা কেজিতে চাল বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত সুধী সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, এ অঞ্চলে আর কোনো দুর্ভিক্ষ হবে না, মঙ্গা হবে না, কেউ না খেয়ে দুঃখ-কষ্টে থাকবে না। কুড়িগ্রামের উৎপাদিত পণ্য সংরক্ষণের পদক্ষেপের পাশাপাশি সব উপজেলায় ফায়ার সার্ভিস স্টেশন স্থাপন, রেল যোগাযোগ সম্প্রসারণ, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে রাস্তাঘাট-ব্রিজ-কালভার্ট নির্মাণ এবং নদী খননের মাধ্যমে চিলমারী নৌবন্দরের ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। এই ঘোষণা দেবার ৪ বছর পেরিয়ে গেলেও দৃশ্যমান কিছু এখনো বন্দরে গড়ে ওঠেনি এবং বন্দর নির্মাণের কাজও শুরু হয়নি। আর কতদিন লাগবে দৃশ্যমান বন্দর দেখতে?- সাংবাদিকদের সম্পূরক এই প্রশ্নের জবাবে, সচিব মামুন-আল-রশিদ বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণানুযায়ী এখানে ২৩৫ কোটি টাকা ব্যয়ে অনেক বড় স্থাপনা নির্মাণ করা হবে ৫টি জায়গায়। এখানে জেটি থেকে শুরু করে যাত্রীবাহী পরিবহণ ও মালামাল পরিবহনের সবকিছুর ফ্যাসিলিটিস থাকবে। আশার বাণী শুনিয়ে তিনি বলেন, এ প্রকল্প যাতে দ্রুত বাস্তবায়ন হয়, সে কারণে সামনের একনেকের বৈঠকে আমি আমার সর্বোচ্চ সিনসিয়ারিটি নিয়ে আমার দায়িত্ব পালন করব। আশা করছি দ্রুত কাজ শুরু হবে।
সকালে তিনি সড়ক পথে রংপুর থেকে চিলমারী আসেন। এসেই তিনি উপজেলার জোড়গাছ বাজার নৌঘাট এলাকা পরিদর্শন করে স্পীডবোট যোগে রমনা নৌঘাটে আসেন। রমনা নৌঘাট পরিদর্শন শেষে পুনরায় রংপুরের উদ্দেশ্যে রওনা হন। পরিদর্শনকালে তার সাথে ছিলেন, বিআইডব্লিউটিএ এর চেয়ারম্যান কমোডর গোলাম সাদেক, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শওকত আলী সরকার বীরবিক্রম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ, ডব্লিউ, এম রায়হান শাহ্, বিআইডব্লিউটিএ’র নির্বাহী প্রকৌশলীসহ বন্দর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )