আজকের তারিখ- Wed-22-09-2021

পবিত্র ঈদুল ফিতর

চিলমারী : বুধবার : ১২ মে, ২০২১ খ্রিঃ

দীর্ঘ এক মাসের সংযম সাধনার শেষে আনন্দময় উৎসব ঈদুল ফিতর সমাগত। আমাদের প্রিয় পাঠক, লেখক, বিজ্ঞাপনদাতা, এজেন্ট, শুভানুধ্যায়ী সবাইকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। সব ভেদাভেদ ভুলে একে অপরকে বুকে জড়ানোর দিন; সাম্য, সৌহার্দ্য, ভালোবাসা, মিলনের দিন।
পবিত্র রমজান মিতাচার অনুশীলনের যে সুযোগ নিয়ে আসে, তার তুলনা হয় না। রোজা শুধু ইন্দ্রিয়ের কৃচ্ছ্রসাধনা নয়, আত্মিক বিশুদ্ধতা অর্জনেরও পথ দেখিয়ে দেয়। এক মাসের রোজার অবসানে তাই ঈদুল ফিতরের উৎসব কেবল ভোজনের মাধ্যমে ইন্দ্রিয় তৃপ্তির উৎসব নয়, বিশুদ্ধ আত্মা নিয়ে জীবনকে নতুন করে সাজানোর অঙ্গীকারেরও উৎসব। আত্মিক পরিশুদ্ধির ফলে দূর হয়ে যাবে সব সংকীর্ণতা ও ভেদাভেদ। পুরো রমজান মাস আমরা যে সংযমের অনুশীলন করেছি, তা আমাদের জীবন চলার সব ক্ষেত্রে সীমা লঙ্ঘনের নেতিবাচক প্রবণতা থেকে রক্ষা করবে এমনই প্রত্যাশা। অন্যায়, অবিচার, ঘৃণা, বিদ্বেষ, হিংসা, হানাহানি মানুষের সব নেতিবাচক প্রবণতার রাশ টেনে ধরবে। ঈদ যে আনন্দের বার্তা বয়ে এনেছে, তার মর্মমূলে আছে শান্তি ও ভালোবাসা। পরস্পরের বন্ধুত্বপূর্ণ প্রতিবেশী হয়ে ওঠার এক মহান উপলক্ষ ঈদ। ঈদুল ফিতরের আগমনী সুরে বেজে চলেছে মানুষে মানুষে মিলনের এই আকুতি। তাই মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষ সব ধর্ম-বর্ণ-গোত্রের প্রতিবেশীদের নিয়ে তাদের সবচেয়ে বড় উৎসব বরণের জন্য প্রস্তুত।
করোনা পরিস্থিতির কারণে এবারের ঈদের আনন্দে খাণিকটা ভাটা পড়েছে। তিনদিন ছুটি ঘোষণা করা হলেও কর্মস্থল ত্যাগ করা যাবে না। করোনার সংক্রম দি দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই মসজিদে ঈদের নামাজ আদায়ের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। আজ চাঁদ দেখা গেল কাল ঈদ হবে।
মানুষে মানুষে মিলনের উৎসব যখন আসে, তখন আমাদের এটাও ভাবতে হয় যে আমাদের দেশে সামাজিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বৈষম্য প্রকটতর হচ্ছে। এখনো দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করে বিপুলসংখ্যক মানুষ। খুবই স্বল্পসংখ্যক মানুষের হাতে পুঞ্জীভূত হয়েছে ও হচ্ছে বিপুল পরিমাণ অর্থবিত্ত। এমন বৈষম্য ঈদ উৎসবের সর্বজনীনতা ক্ষুন্ন করে। ঈদ আমাদের সামষ্টিক জীবনে যে মিলন ও শুভবোধের চর্চার দৃষ্টান্ত স্থাপন করে, তা সঞ্চারিত হোক সবার প্রতিদিনের জীবনযাপনে। নিছক আনুষ্ঠানিকতা নয়, ঈদ হোক জীবনকে নবায়ন করার আহ্বান। ঈদের আনন্দ হোক সর্বজনীন।

ছুটিতে থাকতে হবে নিজ এলাকায়
করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার নানাভাবে চেষ্টা করছে। মানুষ যেন নিরাপদ থাকে, সুস্থ থাকে সে জন্য নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। মানুষ থেকে মানুষে ছড়ানো ভাইরাসটির বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত কার্যকর তরিকা, শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা। এজন্য চলতি মাসে দফায় দফায় বাড়ানো হয়েছে লকডাউন। দেওয়া হয়েছে নানা বিধি নিষেধ। ইতোমধ্যে সরকার করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে চলমান বিধিনিষেধের মেয়াদ বাড়িয়েছে আগামী ১৬ মে পর্যন্ত। এ সময়ের মধ্যে রয়েছে ঈদুল ফিতরের ছুটি। ঈদ মুসলমানদের সবচয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব। কর্মজীবী মানুষ, যারা রাজধানীসহ নানা এলাকায় থাকে, কাজের সুবাদে দীর্ঘদিন বাড়ির বাইরে থাকে, তারা ঈদের ছুটির সময়ে বাড়ি ফেরে। প্রিয়জনের সঙ্গে উৎসবের আনন্দ ভাগ করে নিতে চায়। প্রতিবছর এ সময় অসংখ্য মানুষ একসঙ্গে বাড়ি ফেরায় পথে বাড়তি চাপ তৈরি হয়। তৈরি হয় দীর্ঘ যানজট। ঈদযাত্রাকে মসৃণ করতে সরকারের উদ্যোগ থাকলেও, পথের ধারণক্ষমতার তুলনায় মানুষের সংখ্যা বেশি হওয়ায় দুর্ভোগ কমে না। এবারেও ঈদের ছুটিতে বাড়ি ফিরতে উন্মুখ অসংখ্য মানুষ। করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি নিয়েও তারা বাড়ি ফেরার প্রস্তুতি নিচ্ছে। যা বাড়িয়ে দিচ্ছে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি। এ অবস্থা মোকাবেলায় এবারে শুরুতেই সতর্কবার্তা জারি করেছে সরকার। প্রজ্ঞাপন জারি হয়েছে, পবিত্র ঈদুল ফিতরের ছুটিতে সরকারি-বেসরকারি সব শ্রেণির কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরই থাকতে হবে নিজ নিজ কর্মস্থলে। কর্মস্থলের এলাকা ছাড়া যাবে না। এমনকি জনসমাবেশ হয় এমন সামাজিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানও বন্ধ রাখার নির্দেশনা জারি হয়েছে। ঈদযাত্রা ঠেকাতে শর্ত মেনে জেলার অভ্যন্তরে গণপরিবহণ চলাচল করতে পারলেও দূরপাল্লার গণপরিবহণ বন্ধ রাখারও সিদ্ধান্ত হয়েছে। করোনার দ্বিতীয় দফা ঢেউ এখন বাংলাদেশে। চলতি বছরের প্রথম দুই মাস সংক্রমণ হার কম থাকলেও মার্চ মাস থেকে বাড়তে থাকে সংক্রমণ হার। হাসপাতালগুলোতে উপচে পড়তে থাকে রোগী। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে যাওয়ার শঙ্কা দেখা দেয়। হাসপাতালগুলোতে আইসিইউ সংকটের কথাও সংবাদমাধ্যমে আসতে থাকে। তবে আশার কথা, এপ্রিল পেরিয়ে মে মাসে এসে সংক্রমণ হার কমতির দিকে। ইতোমধ্যে সনাক্ত এবং মৃত্যু হার কমতে শুরু করেছে। এ অবস্থাকে ধরে রাখতে আমাদের এখন প্রয়োজন বাড়তি সতর্কতা। সংক্রমণের এই নিম্নগতি দেখে যদি, আমরা অসতর্ক হই, অপ্রয়োজনে বাইরে যেতে থাকি, মাস্ক ব্যবহার না করি, শারীরিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ না করি, তাহলে পরিস্থিতি ঘুরে যাবার আশঙ্কা রয়েছে। আর সেই আশঙ্কা যেন সত্যি না হয়, মানুষ যেন নিরাপদ থাকে, সেজন্যই বাড়তি সতর্কতা হিসেবে সরকারের নিষেধাজ্ঞা। করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে এবং নিজে সুস্থ রাখতে ও অন্যকে সুস্থ রাখতে আমাদের সরকারের প্রজ্ঞাপন অনুসরণ করা প্রয়োজন। সরকারের সিদ্ধান্ত মানার বিষয়ে আন্তরিক হওয়া জরুরি। একটি ঈদে প্রিয়জনের সঙ্গে থাকার চেয়ে জীবন অনেক বেশি মূল্যবান। দূরপাল্লার পরিবহন বন্ধ, খোলা থাকছে আন্ত:জেলা পরিবহন। এটাকে সুযোগ ভেবে যদি ভিড়ে, গাদাগাদি করে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ না করে, সরকারের নিষেধাজ্ঞা না মেনে বাড়ি ফেরার চেষ্টা করা হয়, তবে তা নিজেকে যেমন তেমনি পরিবারকেও বিপদে ফেলতে পারে। এজন্য সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী লকডাউনের নিষেধাজ্ঞা ভেঙে ঈদে ‘চোরাই পথে’ বাড়ির পথে না ছুটতে সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি সবাইকে সতর্ক করে বলেছেন, ‘লকডাউনে অনেকেই চোরাই পথে আসা-যাওয়ার সুযোগ নিচ্ছে, সম্প্রতি পদ্মায় স্পিডবোট ডুবিতে ২৬ জন প্রাণ হারিয়েছে। এ ধরনের ঝুঁকি নিলে উৎসবের আগেই মৃত্যুর ট্র্যাজেডি অনিবার্য হয়ে পড়ে, কাজেই এ ধরনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল না করার জন্য সবাইকে অনুরোধ জানাই’। ব্যক্তি সচেতনতা জরুরি। মহামারী ঠেকাতে সরকারের প্রচেষ্টার পাশাপাশি প্রয়োজন ব্যক্তি সচেতনতা। ব্যক্তি নিজে যদি সচেতন না হয়, তাহলে সরকারের একার পক্ষে মহামারী সামাল দেওয়া কঠিন। আমাদেরকেও বিপদের গুরুত্ব উপলব্ধি করতে হবে। আমাদেরও সতর্ক থাকতে হবে। আমরা যদি নিয়ম-কানুন না মানি, আমাদের অবেহলায় যদি সংক্রমণ বাড়ে, তাতে ক্ষতি আমাদেরই। তাই আমাদের প্রত্যাশা নিজে নিরাপদ থাকতে ও প্রিয়জনকে নিরাপদ রাখতে এবারের ঈদ উৎসবে সবাই নিজ নিজ এলাকায় থাকি। ঈদযাত্রায় সংক্রমণ ঝুঁকি এড়াতে ঘরে থাকি। অপ্রয়োজনীয় ভ্রমণকে নিরুৎসাহিত করি।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )