আজকের তারিখ- Wed-22-09-2021

বিটুমিন দ্বন্দ্বে কুড়িগ্রাম স্টেশন সড়কের উন্নয়ন কাজ বন্ধ

ইউসুফ আলমগীর, কুড়িগ্রাম: নিম্নমানের বিটুমিন নিয়ে ঠিকাদার-প্রকৌশলীর মুখোমুখি অবস্থান ও মতদ্বন্দ্বের কারণে বন্ধ হয়ে গেছে এ অঞ্চলের মানুষের স্বপ্নের ও প্রতীক্ষিত কুড়িগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন সড়কের উন্নয়ন কাজ। তিন মাস ধরে বন্ধ থাকায় এক কোটি ৬৩ লাখ টাকা ব্যয়ে চলমান কাজ ভেস্তে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। নানা অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে করা তদন্ত কমিটি বুধবার তদন্ত করবেন বলে জানা গেছে।

সরেজমিন ঘুরে জানা গেছে, একই সঙ্গে দীর্ঘ চার দশক অপেক্ষা শেষে ‘কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস’ নামে আন্তঃনগর ট্রেন পান কুড়িগ্রামবাসী। এ ট্রেনকে ঘিরে কুড়িগ্রাম রেলওয়ে স্টেশনের উন্নয়ন শুরু হয়। এরই ধারাবাহিকতায় রংপুর-কুড়িগ্রাম মহাসড়ক থেকে স্টেশনে প্রবেশের সংযোগ সড়কটিও মেরামতের উদ্যোগ নেয় সরকার। এতে এক কোটি ৬৩ লাখ টাকা ব্যয়ে ফুটপাত, ড্রেন, ডিভাইডার ও সংযোগ সড়কের কাজও শুরু হয়। এরই মধ্যে সড়কের দুই পাশে ড্রেন, কংক্রিট ব্লকের ফুটপাত, ডিভাইডার এবং কার্পেটিংসহ সব কাজ প্রায় শেষ। শুধু গ্রিল ও সড়কের সিলকোটের ফিনিশিং বাকি। এমন বাস্তবতায় গত ৭ মে সিলকোটের কাজ চলাকালীন বিটুমিন নিয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রকৌশলী আব্দুর রাজ্জাকের সঙ্গে ঠিকাদারদের দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়। সে দিনই বন্ধ হয়ে যায় কাজ।
রেলওয়ের জ্যেষ্ঠ উপসহকারী প্রকৌশলী আব্দুর রাজ্জাক অভিযোগ করে এই প্রতিবেদককে বলেন, আগের কার্পেটিং করার সময় ভালো মানের বিটুমিন অর্থাৎ ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটিডের বিটুমিন দিয়ে করা হয়েছিল। হঠাৎ করে  ঠিকাদাররা গত ৭ মে সিলকোটের কাজ শুরু করলে দেখা যায় যে নিম্নমানের ৮০ থেকে ১০০ গ্রেডের ইরানি বিটুমিন আনা হয়েছে। প্রকৌশলী নিম্নমানের বিটুমিন দিয়ে কাজ করা যাবে না বলে ঠিকাদারকে জানান। এতে ঠিকাদার চড়াও হয়ে প্রকৌশলীর সঙ্গে বাগবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন। এমন অবস্থায় কাজ বন্ধ করে দিতে বাধ্য হন বলে জানান এই প্রকৌশলী।
রেলওয়ের জ্যেষ্ঠ উপসহকারী প্রকৌশলী আব্দুর রাজ্জাক আরো বলেন, কোনোভাবে যদি মার্কেটে ৬০ থেকে ৭০ গ্রেডের বিটুমিন না পাওয়া যায়, সে ক্ষেত্রে কাজ চলমান রাখার স্বার্থে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বিকল্প পথ রাখে। কিন্তু এ মুহূর্তে বাজারে উন্নতমানের ৬০ থেকে ৭০ গ্রেডের বিটুমিনের সরবরাহ ভালো। এরপরও ঠিকাদার জোর করে নিম্নমানের ইরানি বিটুমিন দিয়ে কাজ করাতে চাচ্ছিলেন। তাই কাজ বন্ধ করে দিয়েছি।
জানা গেছে, এ কাজ দিনাজপুরের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান আল আমিন ট্রেডার্সের নামে হলেও মূল ঠিকাদার গাইবান্ধার মহিমাগঞ্জের জহুরুল হক।
এ ব্যাপারে ঠিকাদার জহুরুল হক জানান, শিডিউলে ৬০ থেকে ৭০ গ্রেড অথবা ৮০ থেকে ১০০ গ্রেডের কথা উল্লেখ আছে। সে জন্য আমরা ৮০ থেকে ১০০ গ্রেডের ইরানি বিটুমিন নিয়ে এসেছি। বাজারে ওই সময় ৬০ থেকে ৭০ গ্রেডের বিটুমিন পাওয়া যায়নি।
এ ব্যাপারে কুড়িগ্রামের রেলওয়ের কাজে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান আল আমিন ট্রেডার্সের দায়িত্বরত প্রজেক্ট ম্যানেজার আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, আমরা কাজ করতে চাইলেও রেলওয়ের জ্যেষ্ঠ উপসহকারী প্রকৌশলী আব্দুর রাজ্জাক আমাদের কাজ করতে দিচ্ছেন না। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্থানে দুর্নীতির অভিযোগ হওয়ায় তিনি তার কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে বাঁচার জন্য আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করছেন। আমরা রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি, প্রকৃত তদন্তসাপেক্ষে আইনি ব্যবস্থা নিয়ে আমাদের কাজ শেষ করার সুযোগ দিক কর্তৃপক্ষ। এ ছাড়াও আমাদের প্রতিষ্ঠানের সুনাম ক্ষুণ্ন করার অপচেষ্টার কারণে আমরা ওই প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ারও উদ্যোগ নিয়েছি।
তবে স্থানীয় লোকজন জানান, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান উন্নতমানের বিটুমিন না পাওয়ার যে দাবি তুলেছে, তা সঠিক নয়। বাজারে এখন উন্নতমানের বিটুমিনের সরবরাহ ভালো। এমনকি দেশীয় রাষ্ট্রীয় কোম্পানি ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেড উন্নতমানের বিটুমিন তৈরি করছে। এ ছাড়াও দেশে বেসরকারি খাতেও উন্নত মানের বিটুমিন উৎপাদন হচ্ছে। ফলে এখন আর ইরানের ভেজাল বিটুমিনের ওপর নির্ভর করা লাগে না।
কুড়িগ্রাম সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আহ্বায়ক ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক শ্যামল ভৌমিক বলেন, কুড়িগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন এই অঞ্চলের মানুষের স্বপ্নের নাম। এই স্টেশন এ এলাকার ঐতিহ্য বহন করে চলছে। ঠিকাদার কিংবা প্রকৌশলীর দ্বন্দ্বের কারণে কাজ বন্ধ হয়ে যাবে তা মানা যায় না। তিনি দ্রুত কাজটি শেষ করার দাবি জানান। সেই সঙ্গে তদন্ত করে প্রকৃত দোষীদের শাস্তির আওতায় আনারও দাবি করেন তিনি।
কুড়িগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান বিপ্লব জানান, কোনো অজুহাত দেখিয়ে উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বন্ধ করা ঠিক নয়। এতে বিপাকে পরে সাধারণ জনগণ। সে কারণেই বৃহৎ স্বার্থে উন্নয়ন কাজ চলমান রেখেই সমস্যার সমাধান করতে হবে। তবে তিনি আরো বলেন, স্টেশন এলাকার অনেকেই অসৎ উদ্দেশ্য নিয়ে কখনো ঠিকাদারদের পক্ষে কখনো প্রকৌশলীদের পক্ষে অবস্থান নিয়ে স্বার্থ হাসিলের চেষ্টা করছেন। সে ব্যাপারে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় প্রশাসনেরও দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।
কুড়িগ্রামের প্রথম শ্রেণির ঠিকাদার ও জেলা আওয়ামী লীগের সংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান সাজু জানান, কুড়িগ্রামের উন্নয়নের স্বার্থে বর্ষার আগেই সড়কের কাজটি শেষ করা দরকার। আর সিলকোট শেষ না করলে কার্পেটিং করা সড়কও বর্ষার কারণে নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা থাকে।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আমান উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অত্যন্ত পছন্দের জেলা এই কুড়িগ্রাম। এই কুড়িগ্রামের উন্নয়নে তিনি নিজেই এই ট্রেন উদ্বোধন করেছেন। রেলওয়ে স্টেশনের উন্নয়ন ও সংস্কার কাজের ব্যবস্থা করেছেন। আর কতিপয় অসৎ ঠিকাদার কিংবা অসৎ কর্মকর্তা-কর্মচারীর কারণে সেই উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে তা এখানকার মানুষ মেনে নেবে না। এই কাজ দ্রুত সময়ে শেষ করার জন্য তিনি কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান করেন।
লালমনিরহাট রেলওয়ের বিভাগীয় প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন বলেন, শিডিউল অনুযায়ী কাজ চলবে। ঠিকাদারের ১৮০ দিন অতিবাহিত হয়েছে এটা ঠিক। তবে ওনারা সময় বাড়ানোর আবেদন করেছেন এবং সেটি ডিজি মহোদয়ের অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। এ ছাড়া ঠিকাদারকে অবশিষ্ট কাজ দ্রুত সম্পন্ন করার জন্য চিঠি দেওয়া হয়েছে।
এ ব্যাপারে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ও তদন্ত কমিটির প্রধান মো. সুজাউদ্দৌলা এ প্রতিবেদককে বলেন, বুধবার দুপুরে কুড়িগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন এলাকায় সরেজিমন তদন্ত করা হবে। এ সময় রেলওয়ে বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষও উপস্থিত থাকবেন। সেই সঙ্গে কারিগরি বিশেষজ্ঞরাও থাকবেন। তদন্তের সময় রেলওয়ের জ্যেষ্ঠ উপসহকারী প্রকৌশলী আব্দুর রাজ্জাক এবং ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে। তদন্তসাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )