আজকের তারিখ- Wed-13-11-2019

চিলমারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে সকালে যা অবৈধ-বিকেলে তা বৈধ হয়ে যায় উপজেলা শিক্ষা অফিসার বিধি অমান্য করে স্কুল মেরামতের ৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ছাড় দিলেন

এস, এম নুআস: কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে সকালে যা বিধি বর্হিভূত বলে জানান, বিকেলে তা বিধি সম্মত হয়ে যায়। উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ আবু ছালেহ্ সরকারের বিরুদ্ধে এমনই একটি বিধি বর্হিভূতভাবে মাইনর মেরামত ও রাজস্ব মেরামত খাতের ৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা টাকা ছাড় দেয়ার প্রমাণ মিলেছে।
জানা গেছে, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে স্কুল উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন পর্যায়ে উপজেলার ৯৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে-রুটিন মেইনটেন্যান্স, মাইনর মেরামত, রাজস্ব মেরামত, প্রাক প্রাথমিক, ওয়াস ব্লক মেরামত ও স্লিপ গ্রান্ডের টাকা মিলে সর্ব মোট ১ কোটি ৮৫ লাখ ৩৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। এ সময় উপজেলা প্রাথমিক অফিসার পদে দায়িত্বে ছিলেন মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম। তিনি বরাদ্ধের অর্থ ৯৩টি স্কুলের বিপরীতে বিভাজন করে উপজেলা শিক্ষা কমিটির সভায় পাশ করান। এই বিভাজনে দেখা যায় ৯৩টি স্কুলের মধ্যে রমনা ১ নং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বিপরীতে মাইনর মেরামতের জন্য ২ লক্ষ টাকা এবং রাজস্ব মেরামতের জন্য আরও দেড় লক্ষ টাকা বরাদ্দসহ প্রাক প্রাথমিক ১০ হাজার টাকা এবং স্লিপ গ্রান্ড বাবদ ৭০ হাজার টাকা মিলে মোট ৪ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। অথচ বাকী ৯২টি স্কুলের বিভাজন তালিকায় দেখা যায় যে, যে সকল স্কুলের বিপরীতে মাইনর মেরামতের বরাদ্দ দেয়া হয়েছে, সেই স্কুলের বিপরীতে রাজস্ব বরাদ্দ দেয়া হয়নি। এই বিভাজনের পর স্কুল প্রতি মোট বরাদ্দের টাকা ভূয়া ভাউচার দিয়ে রাজস্ব অফিস থেকে উত্তোলন করে মাইনর ও রাজস্ব মেরামতের টাকা অফিস এ্যাকাউন্টে নেয়া হয় এবং অন্যান্য খাতের টাকা সংশ্লিষ্ট স্কুলের এ্যাকাউন্টে ট্র্যান্সফার করা হয়। মাইনর ও রাজস্ব মেরামতের স্কুল প্রতি বরাদ্দের অর্ধেক টাকা মেরামতের জন্য প্রথম পর্যায়ে ছাড় দেয়া হয়। প্রথম পর্যায়ের ছাড়কৃত টাকার কাজ সরেজমিনে পরিদর্শন শেষে পরবর্তি বাকী টাকা ছাড় দেয়ার কথা। এরই মধ্যে তৎকালীন শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম অন্যত্র বদলী হয়ে যান। সম্প্রতি মোঃ আবু ছালেহ্ সরকার উপজেলা শিক্ষা অফিসার পদে যোগদান করেন।
নবাগত উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ আবু ছালেহ্ সরকার স্কুল প্রতি আর্থিক বরাদ্দের বিভাজনটি দেখেন এবং বিভিন্ন স্কুলের কাজ সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ শাখাওয়াৎ হোসেন ও মোঃ জাহেদুল ইসলামকে সাথে নিয়ে পরিদর্শন শেষে রমনা ১নং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাইনর মেরামত ও রাজস্ব মেরামত খাতের বাকী টাকা ছাড় না দিয়ে, আটকিয়ে রাখেন। এদিকে উক্ত স্কুলের প্রধান শিক্ষক তার কাজ শেষ হয়েছে এবং পাওনাদারগণ টাকার জন্য চাপ দিচ্ছে জানালে, উপজেলা শিক্ষা অফিসার বাকী টাকা প্রদানে বিধিগত সমস্যা আছে মর্মে কালক্ষেপন করতে থাকেন। বিষয়টি স্থানীয় শিক্ষক নেতাদের কানে গেলে, তারাও উক্ত টাকা ছাড় দেয়ার জন্য উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে অনুরোধ জানান। কিন্তু উপজেলা শিক্ষা অফিসার তাদেরকে জানান, বিধিগতভাবে ছাড় দিতে হলে, হয় রাজস্ব, নয় তো মাইনর মেরামতের যে কোন একটি বরাদ্দের টাকা ছাড় দেয়া যাবে। শিক্ষক নেতারা ও প্রধান শিক্ষক এটা মানতে রাজী না হওয়ায়, তিনি স্কুল পরিদর্শন করে, উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে পরামর্শ অন্তে সিদ্ধান্ত নিবেন মর্মে তাদেরকে সাফ জানিয়ে দেন।
শিক্ষকরা বিষয়টি স্থানীয় সাংবাদিকদেরকে জানালে, থলের বিড়াল বেড়িয়ে আসে। এ প্রতিনিধি গত ৩০ অক্টোবর শিক্ষা অফিসার মোঃ আবু ছালেহ্ সরকারের মুখোমুখি হলে তিনি- প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এর বাজেট ও অডিট শাখার পরিপত্র (যার স্মারক নং-৩৮.০০৬.০২০.০৭.০০.০৪৫.২০০৯-১৩৮ তারিখ ২০ মে ২০১৩খ্রিষ্টাব্দ, বাংলা ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২০বঙ্গাব্দ) দেখিয়ে বলেন, এই পরিপত্রের শর্তাবলী অর্থবরাদ্দের নীতিমালার ৮নং নির্দেশনায় বলা হয়েছে“ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় মেরামত কাজ চলছে অথবা মেরামতের জন্য তালিকাভূক্ত এমন কোন প্রাথমিক বিদ্যালয়/ প্রতিষ্ঠান বরাবরে রাজস্ব খাত থেকে অর্থ বরাদ্দ দেয়া যাবে না। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তৃক প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব প্রেরণের সময় দ্বৈততা পরিহারের লক্ষে সংশ্লিষ্ট প্রাথমিক বিদ্যালয়/ প্রতিষ্ঠান মেরামত/ সংস্কার/ অবকাঠামো নির্মণের জন্য উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় অর্ন্তভুক্ত নয় মর্মে উল্লেখ করতে হবে।” -এই নীতিমালা অনুযায়ী পূর্বের উপজেলা শিক্ষা অফিসার মাইনর মেরামত ও রাজস্ব মেরামতের টাকা একই প্রতিষ্ঠানে দিতে পারেন না বলে তিনি জানান। সে কারণেই তিনি বাকী টাকা ছাড় দিচ্ছেন না। উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে পরামর্শ করে ছাড় দেয়া গেলে, তিনি উক্ত বরাদ্দের টাকা ছাড় দেবেন বলে জানান। অথচ অজ্ঞাত কারণে, বৃহস্পতিবার ৩১ অক্টোবর তিনি একই সাথে মাইনর মেরামত ও রাজস্ব মেরামতের বরাদ্দের চেকে স্বাক্ষর করে রমনা ১নং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এ্যাকাউন্টে পাঠিয়ে দেন। এ ব্যাপারে উক্ত স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোছাঃ নাজমা বেগমের সাথে মোবাইলে কথা বললে, তিনি ৩১ অক্টোবর বিকেলে দুটি খাতেরই চেক পেয়েছেন মর্মে জানান।
এ বিষয়ে শিক্ষা অফিসার আবু ছালেহ্ সরকারের নিকট মোবাইলে, তিনি কোন নীতিমালা ও বিধিমালা মোতাবেক চেক হস্তান্তর করলেন? -জানতে চাইলে তিনি এর কোন যুক্তি সংগত সদুত্তর দিতে পারেননি।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )