আজকের তারিখ- Sun-24-10-2021

শেখ রাসেল আমাদের বন্ধু

আবু হুরায়রা: শেখ রাসেল হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র। শিশু অঙ্গনে একটি নাম, একটি ইতিহাস, একটি ভালোবাসা। ১৯৬৪ সালে ১৮ অক্টোবর ধানমন্ডির ৩২ নম্বর রোডে বঙ্গবন্ধু ভবনে এক মাহেন্দ্রক্ষণে তার জন্ম। সে আমাদের চেতনা, সে আমাদের প্রেরণা, সে আমাদের বন্ধু।
নামকরণঃ রাজনীতির প্রবাদ পুরুষ স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু ছিলেন সাহিত্যে নোবেল বিজয়ী ব্রিটিশ দার্শনিক ও সমাজকর্মী বার্ট্রান্ড আর্থার উইলিয়াম রাসেলের একান্ত ভক্ত। তাঁর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে তিনি তাঁর সন্তানের নাম রাখেন রাসেল। সে রাসেলই জন্মের পর থেকে হয়ে উঠে সবার প্রিয়। সবার ভালোবাসার প্রতীক।
শেখ রাসেল আমাদের বন্ধুঃ আমরা যাকে দেখিনি, যার সাথে মিশিনি, সে বন্ধু হয় কীভাবে? হ্যাঁ, বন্ধু হতে পারে। কারো মাঝে যে আচরণগুলো থাকলে তার সাথে মিতালী করা যায়, বন্ধু বানা যায়, শেখ রাসেলের মধ্যে সে গুণগুলোর সমাহার ছিল কানায় কানায় ভর্তি। মাছ ধরা ছিল শেখ রাসেলের বড় শখ। কিন্তু মাছ ধরে আবার পুকুরে ছেড়ে দিত। উদ্দেশ্য মজা করা, খেলা করা। মাছগুলোকে প্রাণে বেঁচে রাখা। তার বাসায় পোষা কুকুর টমিকে সে খুব ভালবাসত। ভাত তুলে খাওয়াত। টমি ঘেউ ঘেউ করলে বড়দের কাছে নালিশ করত। কিন্তু মারত না। প্রাণিদের প্রতি ছিল তার এমন দয়া-মায়া। মুক্তিযুদ্ধের সময় তার ভাগিনা জয় এর জন্ম। জয়কে পেয়ে রাসেল মহাখুশি। সে তার নতুন সঙ্গী। যুদ্ধের সময় তাদের বাসায় ছাদে ব্যাংকারের মেশিন বসানো ছিল। চারদিকে ভীষণ গোলাগুলির শব্দ। এ শব্দ শুনে জয় ভয়ে কেঁপে উঠত। রাসেল তখন দৌঁড়ে গিয়ে জয়ের কানে তুলা গুজে দিত। যাতে গোলাগুলির আওয়াজ কানে না যায়। নিজে শিশু হয়ে আরেক শিশুকে ভয় থেকে নিরাপদ রাখার একটি ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা। আজ রাসেল যদি বেঁচে থাকত তাহলে শুধু একটি শিশুকে নিরাপদ রাখা নয়; একটি দেশকে নিরাপদ রাখতে ঢাল হিসেবে দাঁড়িয়ে যেত। রাসেলের চেহারা ছিল খুবই মায়াবী। মাথা ভরা ঘন কালো চুল। তুলতুলে নরম গাল। মাঝারি গড়ন। দেখলেই ভালবাসতে ইচ্ছে করে। বন্ধু বানাতে সাধ জাগে।
রাসেল রাষ্ট্রপতির ছেলে হওয়ার পরেও জীবন ছিল সাদামাটা। সে সাধারণ সহপাঠীদের সাথে বন্ধুত্বের ভাব জমায়ে রাখত। বন্ধুদেরকে নিয়ে একসাথে বাইসাইকেলে চড়ে স্কুলে যেত। কচি বয়স থেকেই শেখ রাসেলের চরিত্রে ছিল নেতৃত্বের গুণাবলী ও পরোপকারী মনোভাব। শহরে তার খেলার সাথীর অভাব হলেও গ্রামের বাড়ি টুঙ্গিপাড়ায় খেলার সাথীর অভাব ছিল না। সে খেলনা বন্দুক বানাত। শিশুদেরকে একসাথে জড়ো করত। তাদেরকে সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করায়ে বন্দুক হাতে দিয়ে প্যারেড করাত। এটা ছিল তার ‘খুদে বাহিনী’। আর সে ছিল এ বাহিনীর ‘সেক্টর কমান্ডার’। সে যখন জন্ম নিয়েছে তখন পাকিস্তানে ছিল রাজনৈতিক চরম উত্তেজনা। আর একটু বড় হয়ে দেখতে পায় স্বাধীনতা যুদ্ধের ডামাডোল। এখন থেকেই তার ছোট্ট চিন্তায় জন্ম নেয় দেশ রক্ষার চেতনা। জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করার অনুপ্রেরণা। প্যারেড শেষ হলে সে তার বন্ধুদেরকে খাওয়াত। এসব নানাবিধ মহৎ গুণের আকর্ষণে শেখ রাসেল হয়ে উঠে সকলের বন্ধু, জাতীয় বন্ধু।
শেখ রাসেল তার পিতার স্নেহ-ভালোবাসা লাভের সুযোগ পায়নি। তখন তার সঙ্গী ছিল হাসুপা (হাসিনা আপা)। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। সে হাসুপার চুলের বেনী ধরে খেলত। তার হাত ধরে হাটত। কারাগারে বাবাকে দেখতে যেত। ‘কারাগারের রোজ নামচায়’ বঙ্গবন্ধু শেখ রাসেলকে নিয়ে লিখেছেন-‘৮ ফেব্রুয়ারি ২ বছরের ছেলেটা এসে বলে আব্বা বাড়ি চল’। কী উত্তর ওকে আমি দেব। ওকে ভোলাতে চেষ্টা করতাম ও তো বোঝে না আমি কারাবন্দি।
পৃথিবীর নির্মম হত্যাকান্ডঃ ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট ইতিহাসের কালো রাত। ঘাতকরা একে একে বাড়ির সকলকে হত্যা করল। এরপর রাসেলকে ঘিরে ধরে । তখন ১০ বছরের ছোট রাসেল আতংকিত হয়ে কান্নাজড়িত কন্ঠে বলে উঠে আমি মায়ের কাছে যাব। ঘাতকদের পাষাণ হৃদয় একটুকুও গলেনি। মা-বাবা ভাই-ভাবীর রক্তমাখা নিথর লাশের পাশ দিয়ে হেটে নিয়ে নিষ্ঠুর ভাবে ব্রাশ ফায়ারে হত্যা করে। রাসেল ছিল একটি ফুটন্ত গোলাপ। কিন্তু সে ফুটতে পারে নি। ফুল হয়ে সুবাস ছড়িয়ে দেয়ার আগে সকলকে কাঁদায়ে চলে যায় পরপারে। বাবার স্নেহ-ভালোবাসা ও মায়া-মমতার ছোঁয়া সে পায়নি। তাই তো মনের অজান্তে গেয়ে উঠি- রাসেল আমাদের বন্ধু। রাসেল আমাদের ভালবাসা।
রাসেল বেঁচে নেই, কিন্তু তার স্মৃতিগুলো কথা বলে। ৭৫ সালে সে ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটারি স্কুল এন্ড কলেজের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র। সে কলেজ চত্বরে ‘শহিদ শেখ রাসেল ভবন’ স্থাপন করা হয়েছে। ‘স্মৃতির পাতায় শেখ রাসেল ’ ও ‘আমাদের ছোট্ট রাসেল সোনা’ নামে বই রচিত হয়েছে। ‘শেখ রাসেল জাতীয় শিশু- কিশোর পরিষদ’ ও ‘শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র পরিষদ’ গঠিত হয়েছে। এটি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ ফুটবল ক্লাব।
শেখ রাসেল দেশের প্রতিটি শিশুর কাছে একটি আদর্শের নাম। একটি ভালবাসার স্মৃতি স্তম্ভ। রাসেল বেঁচে থাকলে সে বঙ্গবন্ধুর ন্যায় বিশ্বদরবারে শ্রেষ্ঠত্বের উঁচু আসনে স্থান পেত। পিতার মতো নেতৃত্ব দিত। কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্তিন ট্রডোর মতো পিতার উত্তরসূরী হিসেবে নেতৃত্ব দিত। তাই রাসেলের জন্ম দিনে তার কথা খুব মনে পড়ে। রাসেল আমাদের বন্ধু, রাসেল আমাদের ভালবাসা। রাসেল শিশু- কিশোরদের ইতিহাস গড়ার মহানায়ক।
লেখক- আবু হুরায়রা, ৬ষ্ঠ শ্রেণি, রাজারভিটা ইসলামিয়া ফাযিল মাদরাসা, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )