আজকের তারিখ- Thu-26-01-2023

কৃষিজমি রক্ষায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা প্রশংসাযোগ্য

আবাদি জমি সংরক্ষণের ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, অপরিকল্পিত শিল্পায়ন, নগরায়ণ ও আবাসনের কারণে আমাদের প্রচুর পরিমাণ ভালো মানের ও উর্বর জমি হারিয়েছি। এর কারণ হচ্ছে আগে যারাই সরকারে ছিল, তারা তাতে মনোযোগ দেয়নি। কৃষিজমি সংরক্ষণে তার সরকার কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছে বলে তিনি জানান। গত সোমবার গাজীপুরের ২৫তম বিশ্ববিদ্যালয় দিবস ও প্রযুক্তি প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয় তিনি এসব কথা বলেন।
এটি নিঃসন্দেহে সত্য, দেশের সামাজিক, অর্থনৈতিক ও জনসংখ্যা বিবেচনায় টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে কৃষিজমি, বাস্তুব্যবস্থাপনা এবং প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষায় সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে এ বিষয়টি বারবার তুলে ধরছেন। কৃষিজমি রক্ষায় তার নির্দেশনা বাস্তবানুগ এবং তা বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট সবাইকে কার্যকর ভূমিকা পালন করতে হবে। দেশের সব নদ-নদীর পানি এবং পরিবেশ ও প্রতিবেশ দূষণের শিকার হচ্ছে। শিল্পকারখানার অপরিকল্পিত বর্জ্য ব্যবস্থাপনার কারণে কৃষিজমির মাটি এবং বায়মন্ডলে ভয়াবহ দূষণ দেখা দিয়েছে। এসব কারণে প্রতি বছর কৃষিজমি হ্রাস পাচ্ছে। নদীভাঙনের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ, ক্রমবর্ধমান আবাসন, নগরায়ণ, শিল্পায়ন নতুন নতুন রাস্তাসহ অবকাঠামো নির্মাণের ফলে বছরে অর্ধলক্ষাধিক হেক্টর কৃষিজমি স্থায়ীভাবে অকৃষি খাতে চলে যাচ্ছে। সম্প্রতি প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বছরে প্রায় ৬৯ হাজার হেক্টর কৃষিজমি আবাসন ও শিল্পায়নসহ অকৃষি খাতের দখলে চলে যাচ্ছে। কৃষিশুমারি ১৯৮৪ ও ২০০৮-এর মধ্যে তুলনা থেকে দেখা যায়, চাষকৃত এলাকার পরিমাণ কমেছে সাত লাখ ৩৩ হাজার একর, অর্থাৎ ২৪ বছরে আট দশমিক আট শতাংশ। সব মিলিয়ে দেশে ফলন কমে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে, যা আমাদের জন্য উদ্বেগজনক।
প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যে দেশের অর্থনীতির ওপর করোনার বিরূপ প্রভাব উত্তরণে বাজেট বরাদ্দ থেকে বিভিন্ন খাতে প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন, যেখানে খাদ্য উৎপাদন ব্যবস্থা চালু রাখাসহ সরবরাহ ব্যবস্থা বজায় রাখা ও দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের নির্দেশনা রয়েছে। খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সরকারের কর্মপরিকল্পনা সফল হবে না, যদি কৃষিজমি রক্ষা করা না যায়। খাদ্য নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত না হলে এর নেতিবাচক প্রভাব হবে বহুমুখী । কৃষি খাত আমাদের বড় শক্তি। বাংলাদেশ কৃষিপ্রধান দেশ। দেশে কৃষিজমি সুরক্ষা ও ভূমি ব্যবহারে পরিপূর্ণ একটি আইন ও বিধিমালা এখনো প্রণয়ন করা যায়নি। ভূমি মন্ত্রণালয়ে আটকে রয়েছে এটি। এটি দুঃখজনক। আইনটি দ্রুতই পাসপূর্বক প্রয়োগে যথাযথ উদ্যোগ নিতে হবে। কৃষিজমি সুরক্ষা ও ভূমি ব্যবহার নিয়ে প্রথম আইনের খসড়া হয় ২০১১ সালে। এরপর ১০ বছর কেটে গেছে। কিন্তু চূড়ান্ত হয়নি কৃষিজমি সুরক্ষা ও ভূমি ব্যবহার আইন। এ রকম একটি যুগোপযোগী আইন প্রণয়ন এবং তা মানার বাধ্যবাধকতা নিয়ে দ্বিমতের অবকাশ নেই। গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা গেছে, ইটভাটার জন্য মাটি লুট, সরকারি উন্নয়ন কর্মকান্ড, অপরিকল্পিত শিল্পায়ন ও নগরায়ন, বৈধ-অবৈধ আবাসন প্রকল্প, ব্যক্তিগত অবকাঠামো নির্মাণসহ বিবিধ কারণে সারাদেশে কৃষিজমি হ্রাস পাচ্ছে। কৃষিজমি কমার ফলে জাতীয় খাদ্য নিরাপত্তা সর্বোচ্চ হুমকির মুখে পড়বে। এমনকি বসবাসের জন্য গুরুত্বপূর্ণ প্রাকৃতিক পরিবেশও বিনষ্ট হবে। আমরা জানি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বারবার নিষেধ করছেন, কৃষিজমি ধ্বংস করে অকৃষিকার্য চালানো যাবে না। আমরা মনে করি, কৃষিজমির অপরিকল্পিত ব্যবহার বন্ধ করার লক্ষ্যে প্রণীত ভূমি মন্ত্রণালয়ের জাতীয় ভূমি ব্যবহার নীতি অন্তত সরকারি সংস্থাসমূহ মান্য করলে পরিস্থিতির এতটা অবনতি হত না। অবশ্য আইন প্রণীত হলেই যে সবাই তা মান্য করবে- এমনটি নয়। বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান-বিআইডিএসের এক গবেষণা বলছে, শুধু অপরিকল্পিত গৃহনির্মাণেই প্রতি বছর প্রায় ৫৫ শতাংশ জমি ব্যয়ের খাতায় যুক্ত হচ্ছে। মোট কথা, খাদ্যোৎপাদন, শিল্পায়ন ও আবাসনকে সম্পৃক্ত করে সামগ্রিক পরিকল্পনা জরুরি হয়ে পড়েছে। আমাদের প্রত্যাশা, সরকার বিষয়টি দ্রুত উপলব্ধি করে সেই লক্ষ্যে অগ্রসর হবে। আর দেশের জনগণও আইন মানায় সচেষ্ট হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )