ফেলানি হত্যার বিচার: আমরা ভারতকে বন্ধুপ্রতিম প্রতিবেশি হিসেবেই দেখতে চাই

চিলমারী, সোমবার, ০৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৩খ্রিঃ

ফেলানির হত্যাকারী হিসেবে অভিযুক্ত বিএসএফ জওয়ান অমিয় ঘোষকে নির্দোষ ঘোষণা করে দেয়া রায়ের খবর শুনে বিস্মিত হতবাক ক্ষুব্ধ তার মা-বাবা ও স্বজনরা। ক্ষুব্ধ দেশবাসি। ফেলানির বাবা নূরুল ইসলাম গত শুক্রবার গণমাধ্যমে বলেন, এ কেমন বিচার বুঝলাম না। এমন উল্টা বিচার মানিনা। মেয়েডারে চোখের সামনে পাখির মতোন মারল, তার কোন বিচার হইল না। ফেলানির মা জাহানারা বেগম বলেন, ‘আমার মাইয়ারে যে খুন করেছে তার ফাঁসি চাইছিলাম। কিন্তু বিচারের নামে হেরা তামাশা করল’। বিএসএফ’র জেনারেল সিকিউরিটি ফোর্সেস কোর্ট বা জিএসএফসিতে এই বিচারের রায়ে অভিযুক্ত হাবিলদারকে সুনির্দিষ্ট ও পর্যাপ্ত প্রমাণের অভাবে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে বলে বিএসএফ‘র বিভিন্ন সূত্রে জানানো হয়েছে। গত বৃহস্পতিবারই এই বিচার কার্য শেষ হয়েছে। গত ১৩ আগস্ট বিএসএফ’র গঠিত বিশেষ আদালতে ফেলানি হত্যার বিচার শুরু হয়। মামলার সাক্ষ্য দিতে ফেলানির বাবা ও মামা ভারতে যান। আইনজীবী হিসেবে তাদের সঙ্গে ছিলেন কুড়িগ্রামের পাবলিক প্রসিকিউটর আব্রাহাম লিংকন। তিনি এ প্রসঙ্গে গণমাধ্যমকে জানান, ‘এ রায় মেনে নেয়ার মত নয়, মামলার সাক্ষ্য প্রমাণ ও শুনানি যেভাবে হয়েছে তাতে আশা ছিল অভিযুক্ত বিএসএফ হাবিলদারের সর্বোচ্চ সাজা হবে’। এ রায় বহাল থাকলে ভবিষ্যতে সীমান্ত এলাকায় মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা আরো বৃদ্ধি পাবে বলে আশংকা প্রকাশ করেন তিনি। ২০১১ সালের ৭ জানুয়ারি কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ি সীমান্তে বাবার সঙ্গে কাঁটাতারের বেড়া পেরিয়ে নিজের দেশে আসছিলেন। কাঁটাতারের বেড়ার বাঁশের মই লাগিয়ে তার বাবা আগেই পেরিয়ে গিয়েছিলেন সীমান্ত। কিন্তু ফেলানি যখন দুটি বেড়ার ওপরে আড়াআড়ি রাখা মইতে কিছুটা চড়ে যান, তখনই তার জামা কাঁটায় আটকে যায়। আর সেই সময়েই গুলি চালান বিএসএফ জওয়ান অমিয় ঘোষ। ঘটনাস্থলে দীর্ঘ রক্তক্ষরণের ফলে মারা যান কিশোরী ফেলানি। বেড়ার ওপরে দীর্ঘ সময় ফেলানির লাশ ঝুলে ছিল। এই ছবি প্রকাশিত হওয়ার পর প্রবল প্রতিবাদের ঝড় উঠেছিল দেশে-বিদেশে। এ রায় ঘোষণার মধ্যদিয়ে ভাগ্যাহত কিশোরী ফেলানির যেন দ্বিতীয় মৃত্যু হলো বৃহস্পতিবার। শুধু ফেলানি নয়, সীমান্তে মানুষ হত্যা, অপহরণ, নির্যাতন প্রায় নিত্যদিনের ঘটনা এখন। পৃথিবীর আর কোন সীমান্তে এভাবে মানুষ খুন হয় না। আমাদের সরকার এ ব্যাপারে কখনও সোচ্চার হতে পারেনি। আমরা ভারতকে সর্বদাই বন্ধু প্রতিম প্রতিবেশি হিসেবে দেখতে চাই। কিন্তু ভারত কখনও বন্ধুসুলভ আচরণ করে না। আমরা পারস্পরিক শ্রদ্ধা ও সমতার ভিত্তিতে দু’দেশের মধ্যে সুসম্পর্ক গড়ে তোলার প্রত্যাশা করি, কিন্তু বাংলাদেশের প্রতি ভারতের আচরণ কর্তৃত্বসুলভ, যা বাংলাদেশের জনগণ পছন্দ করে না। বন্ধুপ্রতিম ভারতের কাছ থেকে বন্ধুসুলভ আচরণই জনগণ প্রত্যাশা করে সর্বদা। সীমান্ত হত্যার ব্যাপারে বাংলাদেশের সরকারকেও যথাযথ ন্যায়সঙ্গত ভূমিকা পালনে সোচ্চার হতে হবে।

দেশের অর্থনৈতিক মুক্তি সাক্ষরতার ওপরই নির্ভর করে
গতকাল ছিল আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস। নিরক্ষরতা মানুষের জীবনের অভিশাপ, যা মনুষ্যত্বের বিকাশ রুদ্ধ করে। যাদের মাঝে এ জরাগ্রস্ত রোগ বাসা বাধে তাদের ভাগ্য সত্যিই খারাপ। নিরক্ষরতা সমাজের অভিশাপ। জীবনে অশিক্ষার ছোঁয়ায় মননশীল কোন ধারায় স্বীয় সত্ত্বাকে মূল্যায়ন করা যায় না। মানুষের মাঝে সমভাবে মেলামেশা, চলাফেরা সকল দিক দিয়ে সৌভাগ্যের পরিবর্তে দুর্ভাগ্যে পরিণত হয়। একজন মানুষ নিরক্ষর বলে সে সমাজে মূল্যায়িত হয় না। অশিক্ষিত মানুষ জাতীয় জীবনেও উন্নয়নের অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায়। সামাজিক, রাজনৈতিক, শিক্ষা, সাংস্কৃতিক সকল বিষয়ে কোন মৌলিক ধারণাও তার থাকে না। ফলে এসব বিষয়ে সে থাকে সম্পূর্ণ অন্ধ। চক্ষু থেকেও আলোকের দুনিয়ায় ব্যথার মুকুট মাথায় পরে তার জীবন অতিবাহিত করে। জীবনের স্বাদ-আহলাদ সম্পর্কে তাদের কোন রকম কৌতুহলও হয়না। জীবনে চলার পথে শুধু বাধা আর ব্যথায় ভরা। সৌভাগ্যের পরিবর্তে আসে দুর্ভাগ্যের নানা গঞ্জনা। নিরক্ষর ব্যক্তি সাধারণত ভালো মন্দ, সাদা-কালো চিলে চলতে পারে না। এসব দিক দিয়ে তার জীবন অনেকটা ব্যতিক্রমী। তাই বাস্তবতার প্রেক্ষিতে ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে যে, নিরক্ষরতা জীবনের জন্য মারাত্মক অভিশাপ। এর ছোঁয়া যে পেয়েছে সে সত্যিই দুর্ভাগ্যের সাগরে ভাসছে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে মানুষ একে একে জয় করেছে আকাশ মাটি পাতাল। সংগ্রহ করেছে জীবনের প্রয়োজনীয় সব উপকরণ। তবুও বিশ্বের কোটি কোটি মানুষের জীবন আজও অশিক্ষার অন্ধকারে ডুবে থাকে। এখনও তাদের জীবন শুধু দিন যাপনের গ্লানি, নিরক্ষরতার অভিশাপে পঙ্গু। তাদের জীবনে কোন জিজ্ঞাসা নেই। উত্তরও অজানা। আধুনিক সভ্যতা ভূগোলের দুরত্বকে সরিয়ে দিয়েছে। পৃথিবী আরও কাছের হয়েছে। তাই আজ অনেক সমস্যাই আন্তর্জাতিক সমস্যায় পরিণত হয়েছে। এ রকম একটি গুরুত্বপূর্ণ দিবস হল আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস। এ দিবসটি পালন করা বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। উন্নত বিশ্বের জন্যে আজকের দিনের তাৎপর্যপূর্ণ বিবেচিত না হলেও তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোর জন্যে তা বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষভাবে আমাদের দেশে এই দিবসটি সার্বিক নিরক্ষরতা দূরীকরণে আমাদের জবাবদিহিতার ভূমিকা দাবি রাখে। বিশ্বে শুধু বয়স্ক নিরক্ষরতার সংখ্যা প্রায় ৮০০ মিলিয়ন যা বয়স্ক জনসংখ্যার ১৮.৩ শতাংশ। বিশ্বের নিরক্ষরদের মধ্যে প্রায় তিন ভাগের দু’ভাগেই মহিলা (৬৪%)। আফ্রিকার সাব সাহারান অঞ্চল, দক্ষিণ এবং পশ্চিম এশিয়ায় যেখানে সাক্ষরতার হার মাত্র ৬%। বিশ্বে বয়স্ক নিরক্ষরের ৭০% (৫৬২ মিলিয়ন) এর বেশি বাস করে নয়টি দেশে উল্লেখ্যযোগ্যভাবে বলা যায় ভারত ৩৪%, চীন ১১%, বাংলাদেশ ৬.৫% এবং পাকিস্তান ৬.৪%। আমাদের দেশে সরকারি হিসেবে শতকরা ৫৮ ভাগ লোক শুধু নাম লিখতে পারে। বয়স্কদের মধ্যে প্রায় ৪০ শতাংশ লোক পুরোপুরি নিরক্ষর। দেশের প্রায় আট কোটি লোক নিরক্ষর বলে অনুমিত। আমাদের ন্যায় দরিদ্র ও অনুন্নত দেশের অর্থনৈতিক মুক্তি সাক্ষরতার ওপরেই নির্ভর করে। তাই আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরার মাধ্যমে এর সঠিক মূল্যায়ন করতে হবে। এই মহতি কাজে আসুন আমরা সবাই সমবেত ও সচেষ্ট হই।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪