আরো তীব্র আন্দোলনের হুমকি বিএনপির

BNP+topmostঢাকা অফিস: বিরোধীদলকে দমনে সরকার কঠোর হলে আন্দোলনেরও তীব্রতা বাড়ানো হবে বলে হুমকি দিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আর এ গনি।

রোববার সন্ধ্যায় এক জরুরি সংবাদ ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, “চলমান গণ আন্দোলনকে দমন করতে যেভাবে দমনপীড়ন শুরু করেছে, তাতে ১৮ দলীয় জোটসহ গণতন্ত্রকামী জনগণ ভীত নয়। দমন যত বাড়বে, আন্দোলনের মাত্রাও তত বাড়বে।”

রাজপথে আন্দোলনের মাধ্যমেই দাবি আদায় করা হবে বলেও জানান বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ নেতা।

নির্দলীয় সরকারের দাবি মেনে নেয়ার আহ্বান জানিয়ে আর এ গনি বলেন, “দেশকে আর সংঘাতময় করে তুলবেন না। আমরা এখনো আশা করি, আপনারা জনগণের ভাষা বুঝতে পারবেন। নির্দলীয় সরকারের গণদাবি মেনে নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে আগামী নির্বাচনের সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে ব্যবস্থা নেবেন।” তিনি বলেন, “একতরফা নির্বাচন করলে যেকোনো অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতির দায় সরকারকেই নিতে হবে।” গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে সন্ধ্যায় ৬টায় এই সংবাদ ব্রিফিং হয়। গত ৩০ নভেম্বর গভীর রাতে নয়া পল্টনের কার্যালয় থেকে দলের যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী গ্রেপ্তারের পর এটাই দলের প্রথম আনুষ্ঠানিক ব্রিফিং। স্থায়ী কমিটির সদস্য আর এ গনি অভিযোগ করেন, “ক্ষমতাসীন মহাজোটভুক্ত রাজনৈতিক দলগুলোর অংশগ্রহণ সর্বস্ব একটি একতরফা নির্বাচন অনুষ্ঠান করার জন্যই সরকার অসাংবিধানিক, বেআইনি ও নিষ্ঠুরতার পথ বেছে নিয়েছে। “নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করার ইস্যুকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট অচলাবস্থার নিরসন না করে সরকার ও নির্বাচন কমিশন অশুভ পরিকল্পনা নিয়ে একদলীয় নির্বাচনের পথে হাটছে।” গণতান্ত্রিকভাবে প্রাকাশ্যে কর্মসূচি করতে না দেয়ায় অভিযোগ করে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীসহ অবৈধ সরকারের মন্ত্রীবর্গ ও আওয়ামী লীগের নেতারা বিএনপি নেতাদের আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণাকে ব্যঙ্গ করে তালেবানি স্টাইল বলে আখ্যায়িত করেছেন। “যে সরকার প্রধান বিরোধী দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পুলিশি অভিযান চালিয়ে নেতা-কর্মীদের গ্রেপ্তার, ভাংচুর, অবরুদ্ধ, এমনকি নেতা-কর্মীদের প্রবেশে বাধা দিচ্ছে। সেখানে প্রকাশ্যে কীভাবে আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করা যায়?”

গত এক সাপ্তাহের অধিক সময় যুগ্ম মহাসচিব সালাহউদ্দিন আহমেদ অজ্ঞাত স্থান হতে ভিডিও টেপ অথবা ই-মেইলে বিবৃতি দিয়ে দলের কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন। আর এ গনি জানান, বিরোধীদলের ডাকা ৭২ ঘণ্টার অবরোধের দ্বিতীয় দিনে সারাদেশে একজন নিহত, লাকসাম উপজেলা  নেতা সাইফুল ইসলাম হীরু, হুমায়ুন কবীর পারভেজ, তেজগাঁওয়ে ওয়ার্ড নেতা সাজেদুল ইসলাম সুমন, শাহবাগের যুবদল নেতা লিটনসহ ৯ জন নিখোঁজ, ১৫৭ জন গুলিবিদ্ধ, সাড়ে পাঁচশ নেতাকর্মী আহত হয়েছে।

অবরোধ কর্মসূচি পালনকালে পুলিশ ৩৮০ জন নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার ও আড়াই হাজারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। আর এ গনি অবিলম্বে গ্রেপ্তারদের মুক্তির দাবি জানান। সংবাদ ব্রিফিংয়ে অন্যদের মধ্যে দলের সহ-দপ্তর সম্পাদক আবদুল লতিফ জনি, শামীমুর রহমান শামীম, আসাদুল করীম শাহিন, স্থানীয় সরকার বিষয়ক সহ-সম্পাদক আবু নাসের মো. ইয়াহিয়া প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪