**   রোহিঙ্গা ইস্যুতে ট্রাম্পের সাহায্য আশা করি না: প্রধানমন্ত্রী **   প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ ॥ উলিপুর কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ৩ ধরে তালা বন্ধ **   উলিপুরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুসহ ২৩ জন **   কুড়িগ্রামের ফুলবাড়িতে ধরলার স্রোতে ভেসে যাওয়া ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ সম্পন্ন ॥ সভাপতি মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান **   ভূরুঙ্গামারীতে ৫ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ **   চিলমারীতে সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ চলছে **   ‘গিভ অ্যান্ড টেকের প্রস্তাব অনেক পেয়েছি’ **   নিউ ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

অল্প সময়ের মধ্যে সরকার বিদায় নেবে: খালেদা

1390223931স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস :

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, অল্প সময়ের মধ্যে এই সরকার বিদায় নেবে। দেশের হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের নিরাপত্তা দিতে সরকার ব্যর্থ হয়েছে বলেও দাবি করেছেন  খালেদা জিয়া।

সোমবার বিকেলে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আয়োজিত জনসভায় তিনি বলেন, গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের মাধ্যমে একটি কলংকিত সরকার গঠিত হয়েছে। গত  ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পরে এটিই বিএনপির প্রথম গণসমাবেশ। ওই নির্বাচন  জনগণ ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে- এমন দাবি করে  দেশের মানুষকে ধন্যবাদ জানান খালেদা জিয়া। তিনি যৌথ বাহিনীর অভিযানের নামে দেশের মানুষের ওপর নির্যাতন বন্ধের আহ্বান জানান এবং ক্ষমতার মোহ ছেড়ে সরকারকে নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টির আহ্বান জানান।

জাতীয় পার্টির একইসঙ্গে বিরোধী দেলে থাকা এবং মন্ত্রিপরিষদে থাকারও সমালোচনা করেন। খালেদা জিয়া বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের মাধ্যমে যে সরকার গঠিত হয়েছে,  সেটি কলংকিত সরকার। অবিলম্বে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়ে আওয়ামী লীগকে জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের আহ্বান জানান খালেদা জিয়া।
আওয়ামী লীগের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনারা আজীবন ক্ষমতায় থাকতে পারবেন না। শিগগিরই দেশের মানুষ আপনাদের বিদায় করবে।
আওয়ামী লীগকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, তারা ভেবেছে আমাদের ওপর হামলা-মামলা দিয়ে সরকারের মেয়াদ বাড়াবে। কিন্তু তা হবে না। এই সরকারের মেয়াদ খুবই ক্ষীণ, খুবই অল্প। অতি অল্প সময়ের মধ্যে এই সরকার বিদায় নেবে এবং জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠিত হবে। অবিলম্বে সংলাপের মাধ্যমে নির্বাচনের ব্যবস্থা করারও দাবি জানান বিএনপি নেত্রী। তিনি আগামী ২৯ জানুয়ারি কালো পতাকা মিছিল সফল করতে সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া আরো বলেছেন,  আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার ‘অস্ত্রের জোরে’ ক্ষমতায় রয়েছে। আলোচনার মাধ্যমে অবিলম্বে নতুন নির্বাচন দেয়ার দাবি জানিয়েছেন তিনি । নির্বাচনের পর বিভিন্ন স্থানে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ঘর-বাড়িতে হামলার ঘটনায় সরকারকেই দায়ী করেছেন তিনি।

এসময় প্রথমে ইনকিলাব ও   প্রথম আলোর ৬ জানুয়ারির সংখ্যা তুলে ধরে খালেদা জিয়া বলেন, যারা ভোটার, তারা সেদিন ভোটকেন্দ্রে যাননি। প্রথম আলোর সেদিনের শিরোনাম পড়ে শুনিয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন বলেন- এই সরকার ‘কলঙ্কিত’ সরকার।  নির্লজ্জ সরকারকে বলব, অবিলম্বে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়ে নিজেদের জনপ্রিয়তা যাচাই করুন।

খালেদা জিয়া অভিযোগ করেন, নির্বাচনে মানুষের সমর্থন না পেয়ে ব্যর্থতা ঢাকতেই সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যতন করা হচ্ছে। হিন্দু ভাইদের বাড়িঘরে হামলা করছে, তাদের ওপর নির্যাতন করছে, বাড়িঘর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা করছে, দখল করছে। সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার দায়দায়িত্ব সরকারের। সরকার ব্যর্থ হয়েছে নিরাপত্তা দিতে, হামলাকারীদের ধরতে। সরকার এখন ‘যৌথ অভিযানের নামে’ একর পর এক ‘হত্যা, গুম’ শুরু করেছে বলেও খালেদা অভিযোগ করেন।
সরকারের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, বন্ধ করেন, এসব বন্ধ করেন। এর জন্য একদিন জবাব দিতে হবে।

তিনি সরকারকে হুঁশিয়ার করেন, যদি মনে করেন, গায়ের জোরে এভাবে ক্ষমতায় থাকবেন, এটা কিন্তু হবে না, হতে দেয়া হবে না। সরকারের কর্মকাণ্ড দেখে দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব অটুট আছে বলেও বিশ্বাস করতে পানেন না বলে জানান খালেদা। বর্তমান সরকারকে ‘অবৈধ’ আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, যারা জনগণের ভোটে জয়ী হয়নি, তাদের সংসদে বসার অধিকার নেই। জনগণ এই সরকারকে ক্ষমতা থেকে ‘বিদায় করবে’ বলেও তিনি মন্তব্য করেন।
এই নির্বাচন সবাই প্রত্যাখ্যান করেছে, এ নির্বাচন কারো কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। তাই আমরা বলতে চাই, অতি দ্রুত আলোচনায় বসে নির্বাচনের ব্যবস্থা করুন।

বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে কোনো নির্বাচন সুষ্ঠুু হতে পারে না মন্তব্য করে তিনি বলেন, যেখানে ৫ শতাংশ ভোটও পড়ে নাই, সেখানে এই নির্বাচন কমিশন তিন দিন সময় নিয়ে ৪০ শতাংশ ভোট দেখিয়েছে।

বিগত আওয়ামী লীগ সরকারের সরকারের সময়েই দেশে জঙ্গিবাদের উত্থান ঘটেছিল অভিযোগ করে জামায়াতে ইসলামীর প্রধান শরিক বিএনপির নেত্রী বলেন, তার দলের পক্ষেই জঙ্গিবাদ দমন করা সম্ভব।

বর্তমান সরকার জনগণের ভোটে নয়, অস্ত্রের জোরে ক্ষমতায় এসেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া।’ভোটে নয়, অস্ত্রের জোরে ক্ষমতায় সরকার’।

বর্তমান সরকারকে জনবিচ্ছিন্ন দাবি করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ ক্যাডাররা পুলিশ বাহিনীকে সঙ্গে নিয়ে সারাদেশে খুন-গুম-নির্যাতন চালাচ্ছে।
খালেদা জিয়া বলেন, “গাইবান্ধায় যৌথবাহিনীর অভিযানের নামে কীভাবে নির্যাতন চালানো হয়েছে তা সবাই জানে।
সরকারকে দুর্নীতিবাজ উল্লেখ করে তিনি বলেন, গত ৫ বছরে তারা এদেশের সম্পদ লুট করেছে। শেয়ারবাজার-ব্যাংকসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে জনগণের টাকা তারা লুট করেছে। তাই এই দুর্নীতিবাজ সরকারে না নামাতে পারলে জনগণের কল্যাণ হবে না।

1390225938গত ২৯ ডিসেম্বরের ঘোষিত ‘মার্চ ফর ডেমোক্রেসি’ কর্মসূচির প্রসঙ্গ তুলে খালেদা জিয়া বলেন, “সারাদেশ থেকে জাতীয় পতাকা নিয়ে মানুষ ঢাকায় আসবে। সেই কর্মসূচির দুদিন আগে আমাকে বন্দি করে রাখা হয়। সরকার সব ধরনের যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ করে দেয়। সরকার যদি জনগণের সরকার হতো তা হলে তারা বাঁধা দিত না। আমরা হলে বাঁধা দিতাম না। এ সরকার সব কর্মসূচিতেই বাঁধা দেয়- এমন অভিযোগ করে তিনি বলেন, “সবচেয়ে দুর্বল জনবিচ্ছিন্ন এই সরকার।
বর্তমান সরকারকে সম্পূর্ণ অবৈধ সরকার হিসেবে উল্লেখ করে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া প্রশ্ন রেখে বলেন, “যারা জনগণের দ্বারা নির্বাচিত নন; তারা কীভাবে সংসদে বসবেন?

সমাবেশে খালেদা জিয়া দৈনিক ইনকিলাব বন্ধের কারণ জানতে চেয়ে বলেন, “তারা কি অপরাধ করেছিল। তারা যে খবর ছেপেছে তা অনলাইনে এসেছে, ফেইসবুকে এসেছে। তারপর তারা তা ছেপেছে। আপনারা একটার পর একটা সংবাদ মাধ্যম বন্ধ করছেন। এসব বন্ধ করেন। তা না হলে ফল শুভ হবে না। আপনারা আজীবন ক্ষমতায় থাকবে না। এসবের জবাব দিতে হবে।”

গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য দ্রুত আলোচনা দরকার- একথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ করে খালেদা জিয়া বলেন, “আজীবন ক্ষমতায় থাকার জন্য সংবিধান পরিবর্তন করেছেন। আপনি বলেছেন সংবিধান থেকে এক চুলও নড়বেন না। কিন্তু অনেক নড়েছেন। সংবিধান কাট-ছাঁট করেছেন।
এদিকে এই সমাবেশকে কেন্দ্র করে দুপুরের আগ থেকেই বিএনপি নেতাকর্মীরা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জড়ো হতে থাকে। খালেদা জিয়া পৌঁছানোর আগেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যান কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়।

দুপুরে সমাবেশ শুরুর পর এতে ১৮ দলের কয়েকজন নেতাকে দেখা গেলেও জামায়াতে ইসলামী বা ১৮ দলীয় জোটভুক্ত অন্য কোনো ইসলামী দলের নেতাদের এখন পর্যন্ত সমাবেশস্থলে দেখা যায়নি।

প্রসঙ্গত, গত বুধবার বিকেলে রাজধানীর ওয়েস্টিন হোটেলে এক সংবাদ সম্মেলনে সোমবার দেশজুড়ে কর্মসূচি পালনের পাশাপাশি রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানেও গণসমাবেশ করার কথা ঘোষণা করেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তবে ১৮ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করে এ কর্মসূচি চূড়ান্ত করার পর জোটগত ভাবেই তা করার প্রস্তুতি  নিলেও শেষ মুহূর্তে নাটকীয়ভাবে আগের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসে বিএনপি।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪