**   রোহিঙ্গা ইস্যুতে ট্রাম্পের সাহায্য আশা করি না: প্রধানমন্ত্রী **   প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ ॥ উলিপুর কাঁঠালবাড়ী দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয় ৩ ধরে তালা বন্ধ **   উলিপুরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুসহ ২৩ জন **   কুড়িগ্রামের ফুলবাড়িতে ধরলার স্রোতে ভেসে যাওয়া ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ সম্পন্ন ॥ সভাপতি মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান **   ভূরুঙ্গামারীতে ৫ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ **   চিলমারীতে সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত **   থানাহাট বাজার আদর্শ বণিক কল্যাণ সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের ভোট গ্রহণ চলছে **   ‘গিভ অ্যান্ড টেকের প্রস্তাব অনেক পেয়েছি’ **   নিউ ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ছোট গল্পঃ ঈদ এবং—–

S.M Nuas

॥ এস, এম নুরুল আমিন সরকার ॥

পুরানো ঢাকায় ঘিঞ্জি গলির পাশের বাড়িতে থাকতো শাহীন। গ্রামে তার অনেক সম্পতি। ছেলে শহরে পড়া লেখা করে বলে বাবা নিয়মিত টাকা পাঠান। যে বাড়িতে শাহীন থাকে, সেই বাড়িওয়ালার মেয়ে শাহানা। দু‘বার ইন্টারমেডিয়েড দিয়ে হাল ছেড়ে ঘরে বসে আছে। শাহীনের সঙ্গে তার ভালবাসা শেষ পর্যন্ত হৃদয়ের গভীরে তলিয়ে যায়। ছেলে বেকার বলে বিয়েতে রাজিই হয়নি শাহানার বাবা। শেষ পর্যন্ত ওরা কোর্ট ম্যারেজ করলো।
কোন রকমে বি,এ পাশ করে এতদিন প্রায় বেকার বসে ছিল শ্বশুর বাড়িতে। এখন চাকুরী পাবার পর শ্বশুরের কাছে শাহীনের দাম বেড়েছে অনেক গুণ। যদিও তার এ সাফল্যের পিছনে পার্টিগত ব্যাপার স্যাপার ছিল। তবুও শাহীনের উপর বেজায় খুশি তিনি। শাহীন চাকুরী পেয়েই চলে এসেছে বনানীর এই অভিজাত এলাকার এক দোতালায়, পশ্চিমের ফ্লাট ভাড়া নিয়েছে। সে প্রায় মাস দুয়েক হবে। আরো তিনটে পরিবার থাকে এই বিল্ডিং এ। একজন অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার, একজন ব্যবসায়ী ও আর একজন ঢাকা কলেজের প্রফেসর।
পুলিশ সুপার আলতাফ সাহেবের ৪জন ছেলে মেয়ে। দু‘জন থাকে ইংল্যান্ডে, একজন মধ্য প্রাচ্যে, আর একজন আমেরিকায়। অগাধ সম্পদ করেছে। রংপুরের লোক, সেখানে শহরে দুটো বাড়ী। ঢাকায় বাড়ী নেই। ভদ্রলোকের হার্টের রোগ ও মহিলার ডায়াবেটিস এর ভাল চিকিৎসা এবং প্রবাসী ছেলেমেয়ের সঙ্গে প্রাত্যাহিক যোগাযোগ রক্ষার জন্য ঢাকায় থাকা। বড় নির্ঝঞ্জাট ও সুখী মনে হয় তাদের দেখলে। শাহীন আর শাহানাকে নিজ ছেলেমেয়ের মত গায়ে মাথায় হাত বুলিয়ে আদর করেন।
নীচতলার ব্যবসায়ী লোকটার নাম আব্দুর রহীম। তার কাপড়ের বিজনেস আছে। দু‘দিন বাদে বাদেই লোকটি জাপান, সিঙ্গাপুর চলে যায়। মহিলটা কি যেন একটা পার্টি করেন। দু‘টো ছেলেমেয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ে। বাসায় ওদের তেমন পাওয়া যায় না। মা বাবা ভাই বোন কোথায় কিভাবে সময় কাটায় শাহানার কাছে তা পরিষ্কার নয়।
আর যে লোকটা প্রফেসর, তার নাম মাহমুদ। তার তিনটি ছেলেমেয়ে। ছোটটি এক বছরের। কেন যে মিসেস মাহমুদকে এত হিংসে হয় শাহানার বুঝে পায় না। শাহানার মত ধব ধবে সাদা না হলেও ভীষন মাধুর্য চেহারায় মিষ্টি কথাগুলো মনে থাকার মত। তিনি নাকি বিএসসি (পাশ)। ভাবী নিজে বলেনি, পাশের বাড়ির খালা আম্মার কাছে শুনেছে শাহানা। সেই থেকে এ ভাবীকে খানিকটা হিসেব করে চলে সে।
রাতে যে প্রসন্ন মেজাজ নিয়ে ওরা ঘুমিয়ে ছিল, সকালে জেগে নিমিষেই তা উবে গেছে। শাহীনের সাথে বেড়ানো, হোটেল সোনার গায়ের “ঈদ পার্টি” নতুন শাড়ী গয়না সব মিলিয়ে বিয়ের পরে এই প্রথম ঈদের দিনটাকে স্মরণীয় করে রাখতে ভীষন আগ্রহী শাহানা। কত প্লান প্রোগ্রাম আজ, অন্য সব দিনের মত আট ন’ বাজিয়ে বিছানা ছাড়লে চলবে কি করে? তাইতো রাতে শাহীন সাতটার এলার্ম দিয়েছিল ঘড়িতে। শাহানা বুয়াকে বলেছিল ঠিক সাতটার সময় টেবিলে নাস্তা দিতে। কিন্তু গভীর রাত পর্যন্ত জেগে ভিসিআর দেখে সকালের দিকে ঘুম এত গাঢ় হয়েছে যে এলার্মেও সে ঘুম ভাঙ্গেনি। দেরী দেখে বুয়া দরজা ধাক্কিয়েছে। শুনেই না ওরা জাগলো। তখন বাজে সাড়ে সাত। শাহীন জেগে সে কি রাগ! নাস্তা পর্যন্ত মুখে দেয়নি। আরও ক্ষেপেছে টুপি খুঁজে না পেয়ে। বিয়ের পর প্রথম চাকরীর প্রথম বেতন পাবার পর এই প্রথম ঈদে শাহানার জন্য লেটেস্ট ডিজাইনের শাড়ী, গয়না, নিজের ক‘জোড়া পোশাক আর ঘরের ফার্নিচার করতে গিয়ে সামান্য একটা টুপি আর আতর কেনার কথা বেমালুম ভুলে গিয়েছে। আতরের কাজ না হয় পারফিউম দিয়ে চলল। কিন্তু টুপি? গলা সপ্তমে উঠিয়ে চেচায় শাহীন।
: মার্কেটে মার্কেটে কম ওতা ঘোরনি, একবারওতো ভাবলেনা যে, একটা টুপি কিনলে ঈদের দিন কাজে লাগতে পারে?
: নিজের দরকারী জিনিসের কথা আমাকে ভাবতে হবে কেন? তোমার সঙ্গে তো ভাববার মত একটা কথা ছিল?
ওরা দু‘জনেই একটু আধটুতেই বেজায় ঝগড়া করতে জানে। কেউ নিজেকে কারও চেয়ে কম ভাবতে চায়না। শিকড় পর্যায়ে স্যুটকেস ঘেটে আনকোরা একটা রুমাল বের করে। তাই টুপির বদলে মাথায় বেঁধে নামাজে গেছে সে। বেডরুম সংলগ্ন বারান্দায় রাখা বেতের চেয়ারে বসে। শাহানা বহুক্ষণ ধরে চুপটি করে বসে থাকে। একরাশ ভাবনা দলা পাকিয়ে উঠে শাহানার ভিতরের জগৎটাকে কেমন ঘোলাটে করে গেল। বিয়ের পর এই প্রথম ঈদের দিনটাকে ও এ ‘ক’ দিন ধরে কল্পনার ফুলদানিতে সাজিয়েছে মনের মত করে; এ দিনটাকে চিরস্মরণীয় করে রাখবে বলে দু‘জনেরই সে কি তোড় জোড়! অথচ দিনের শুরুটাই যে এমনভাবে মাটি হয়ে যাবে তা কি জানত? শাহীন নামাজ থেকে ফিরে এসে ওকে নিয়ে বেড়াতে যাবে বলে দু‘জনেরই কথা হয়েছে। বেড়িয়ে ফিরবে বিকেলে। তারপর রেডি হবে সন্ধ্যার পর সোনার গায়ের ঈদ পার্টিতে যাবার জন্য। শাহীনের বন্ধুরা আসবে, পার্টি চলবে অনেক রাত পর্যন্ত। শাহীন এক মন্ত্রীর পি.এ। সে মন্ত্রীই পার্টি দিয়েছেন। কে জানে শাহীনের মেজাজ ফিরেছে কিনা। নয় ছয় ভেবে অনেকটা সময় গড়িয়েছে, টেরই পায়নি শাহানা। গাড়ির শব্দে চমকে তাকায়। শাহীন ফিরেছে, খানিক হাসতে হাসতেই ঘরে ঢুকলো  সে।
: জানো শাহানা, টুপি না নিয়ে কোন অসুবিধা হয়নি। ঈদগাহ মাঠে গিয়ে দেখলাম, অফিসার পাড়ার অর্ধেকেই প্রায় মাথায় রুমাল দিয়ে আসছে। এমন কি আমার স্যার মন্ত্রী সাহেবও। আমাদের মত তারাও মনে হয় টুপি কিনতে ভুলে গিয়েছিল। শুনে শাহানা আশ্বস্ত হয়।
পরে ডাইনিং টেবিলে বসে খুব মজা করে ওরা খাওয়া শেষ করলো। খানিক পরে বাইরে যাবার জন্য রেডি হচ্ছে শাহানা। ড্রেসিং টেবিলের সামনে বসে আছে প্রায় আধ ঘন্টারও বেশি সময় ধরে। মুখ-চোখ-হাত-নখ সব কিছুতে নিপুন সাজগোছ সেরেছে। খাটো চুল কাট, ¯েপ্র করে ফাঁপিয়ে নিয়েছে। ক্রিম কালারের উপর বেগুনী প্রিন্ট বোম্বের সিল্ক পড়েছে। এই ঈদে শাহীন ওকে চারটি শাড়ি কিনে দিয়েছে। এটি একটি। বটল গ্রীন জরি জামদানী। টাঙ্গাইল হাফসিল্ক, আরেকটি পাবনা প্রিন্ট। আরোও দিয়েছে গোল্ডের উপর ডায়মন্ড বসানো নেকলেস। সন্ধ্যার পার্টিতে পড়ার জন্য ওটি রেখে দিলেও চলতো। কিন্তু এ বেলায় যাদের কাছে যাবে, তাদের তো দেখানো হলো না। এভেবে ওটা ও পড়ে নিল। হাত আর কানের গয়না বিয়েতে বাবা-মা‘র দেয়া। এ নেকলেসটা দেখে নির্ঘাত হিংসে হবে নীচতলার মিসেস মাহমুদের। মিসেস রহীম এমনকি পাশের প্লাটের খালা আম্মারও। সত্যিই শাহীন অন্যন্য। ভেবে তৃপ্তিতে ভরে উঠে শাহানার মন।
যাবতীয় প্রসাধন সেরে শাহানা যখন উঠে দাঁড়ায়, তখন ঘড়ির কাটা ১১টা ছুঁই ছুঁই। প্রথমেই ওরা পাশের প্লাটের আলতাফ সাহেবের বাসায় গেলো। খালা আম্মা-খালুজি দু‘জনেরই মন খুব খারাপ। সেই সঙ্গে শরীরও। জানালো, তাদের বড় ছেলেটি যে কিনা পড়ালেখা করার জন্য আমেরিকায় গেছে, পড়ালেখা শেষও হয়েছে, সে জানিয়েছে, আর দেশে ফেরার ইচ্ছে নেই। কাউকে না জানিয়ে বিয়েও করেছে ওখানে। গতকাল ওর টেলিফোন পেয়ে তাদের ঈদ উবে গেছে। শাহানাদের দেখে হাউ মাউ করে কেঁদেছে খানিক।
: না খালা আম্মা, খালু, ও হয়তো এমনিতেই বলেছে। ছেলে কি আর বাবা-মাকে না দেখে থাকতে পারে?
শান্তনা দেবার চেষ্টা করে শাহীন। কথাগুলো বলে ঢোক গেলে। মনে ভেসে উঠে নিজেই তো গ্রামে বাবা-মা‘র কাছে যায়নি সে হবে বহুদিন। বিএ পাশের খবর শুনে বাবা-মা দু‘জনই বাড়ী থেকে পিঠে আর ফল-মুল নিয়ে ওকে দেখতে এসেছিলেন। মা জানালেন, পাশের গ্রামের কোন এক মিষ্টি মেয়েকে নিয়ে তিনি শাহীনের জন্য স্বপ্ন দেখেন। শাহীন রাজী হলেই সব হয়ে যাবে। শাহীন যতটা খুশি হয়েছিল-বিরক্তি বোধ করেছিল তার চেয়ে অনেক বেশি। কারণ শহরের লোকদের সামনে বাবা-মা‘র গ্রাম্য হাল-চাল আর মামুলী পোশাক শাহীনকে ভারী লজ্জা দিয়েছিল। বিয়ের পরে বাড়ীতে চিঠি লেখেছিল ‘মা, আমি যে বাড়ীতে ছিলাম, সেই বাড়ীওয়ালার মেয়ে শাহানাকে বিয়ে করেছি। তোমাদের কারো অপছন্দ হবে না। মনে কিছু নিও না। নতুন বৌকে দেখতে আসিও—’। কিন্তু মা-বাবা রাগে দুঃখে-ক্ষোভে আর আসেনি। আচ্ছা সে চিঠি পেয়ে মা-বাবা রাগ হলেন না তো? ভাবনাটা শাহীনের মনে দোলা দিয়ে ক্ষণিকেই মিলিয়ে যায়।
নীচতলার ব্যবসায়ী ভদ্রলোকের ঘরে মস্ত বড় একটা তালা ঝুলছে। মা-বাবা, ছেলে-মেয়ে কোথায় কিভাবে ঈদের দিন কাটাচ্ছে কে বা জানে? এবার প্রফেসর সাহেবের বাসায় ঢুকলো ওরা। বাবাহ্ বেশতো সরগরম! মেহমান ভর্তি বাসায়। ঈদের ভাবটা আজ প্রথমবারের মতো টের পেল শাহানা। আপ্যায়নের পালা শেষে ফাঁক খুঁজে ও বললঃ ঈদে কটা শাড়ী নিলেন ভাবী? গয়না টয়না?
:    এইতো ঘরে পড়ার জন্য এই টাঙ্গাইল শাড়ীটা কিনে দিলেন আপনার ভাই।
:    বলেন কি ভাবী? তাই বলে এই মামুলী টাঙ্গাইল শাড়ী? আমি হলে ভাবী ঈদই করতাম না।
:    আমার শাড়ী গয়না আগে থেকেই ছিল। নতুন করে কেনার দরকার ছিল না যে।
:    তা আমি বলছি না। আগে থেকে আমারই কি কম ছিল? তবুও তো এই ঈদে চারটা শাড়ী আর এই নেকলেসটা কিনে দিলো শাহীন।
:   আপনি না হয় নতুন বউ। তাছাড়া আমরা দু‘জনই আবার মানুষের বাইরের প্রাচুর্য্যের চেয়ে অন্তরের সৌদর্য্য ভালোবাসি বুঝতে পারছেন? জ্বালা ধরে শাহানার। বাবাহ্, ভাবছি ভদ্র মহিলা আচ্ছা জব্দ হবে, আর সে কিনা একদম এর ধারে কাছেই নেই। যতসব!
শাহীনের সদ্য পাওয়া নীল গাড়ীটায় চেপে সন্ধ্যা বেলা শাহীনের সঙ্গে যখন হোটেল সোনার গায়ে যাচ্ছিল, তখন নিজেকে বড় বেশি সুখী মনে হলো শাহানার। বটল গ্রীন শাড়ী আর নিপুন সাজগোছ ভিতরে ভিতরে খুব অহঙ্কার বোধ করেছিল সে। এ ধরনের বড়সড় পার্টিতে এর আগে ওরা মাত্র একবার এসেছিল। শাহীনের মাথা ধরায় বেশিক্ষণ থাকেনি সেদিন। আজ ওরা পার্টির শেষ পর্যন্ত থাকবে বলে পরিকল্পনা নিয়েছে। রাস্তার দু‘পার্শ্বের নানা রকম দৃশ্যাবলী ও লাল-নীল বাতি দেখে আনন্দে ও গর্ভে ভরে উঠে শাহানার মন। পাশে বসা শাহীনকে জড়িয়ে ধরে চুমু খায়।
:  সত্যিই তুমি অন্যন্য। তোমার তুলনা হয় না শাহীন। আজ লাইলী-মজনু, শিরি-ফরহাদ, রাধা-কৃষ্ণ ও ইউসুফ-জুলেখার চেয়ে বড় বেশি সুখী মনে করে নিজেকে। গাড়ীতে বসে শাহানা সাবধান করে দেয় শাহীনকে-
:  আজ কিন্তু বেশি ড্রিংক করবা না।
:  কেন? কি হয় করলে? সবাই তো করে? ঈদ পার্টি আজ ফুর্তির দিনেই তো। তুমিও না হয় করবা একটু। কি হয় খেলে? শাহীনের কথায় তাচ্ছিলের সুর।
সোনারগাঁয়ের সামনে গাড়ী থাকলে ওরা সিঁড়ি বেয়ে উপরে উঠে। অনুষ্ঠান শুরু হয়ে গেছে। শাহীনের বন্ধু নাজীম বউ নিয়ে এক টেবিলে বসে আছে। সেও কোন এক মন্ত্রীর পি.এ। সেই টেবিলের খালি জায়গায় শাহীন আর শাহানা বসে।
: আরে শালা, এত দেরী হলো কেন? নে ধর। লাল পানি ভরা গ্লাস এগিয়ে দেয় ওদের দিকে। শাহীন সেদিকে মনোযোগি হয়।
: কি ব্যাপার! নতুন ভাবী বোধ হয় ফ্রি হতে পারছেন না? নেন না গ্লাস। লাল চোখে তাকিয়ে নাজীম বলে। ওর বউও গিলছে। সে বলেÑ
: ভাবী, এখানে এলে একটু নিতে হয় নিন। বুঝেছি মুখে তুলে দিতে হবে? বলে নাজীম এগিয়ে যায়। শাহানা শুধু বোবার মত দেখছে। শুনছে, কিন্তু কিছু বলছে না।
: আমরা ওদিকে যাই, তুমি নাজীমের সাথে আসো।
নাজীমের বউয়ের হাত ধরে যেতে যেতে বলে শাহীন। শাহানা মুহুর্তেই কাঠ হয়ে যায়। এ কি সেই শাহীন? যে মেজাজ ভাল থাকলে, উঠতে বসতে শুধুই ভালবাসার কথা শোনায় শাহানাকে। ওর হৃদপিন্ডের প্রকোষ্টগুলো যেন ফেঁটে খান খান হয়ে যায়। শাহীনরা ততক্ষণে এগিয়ে যায় খানিক দুর। নাজীমের পেশি বহুল হাত শাহানার কব্জি চেপে ধরেছে। গ্লাস ওর ঠোঁট ছুঁইছে।
: কি হচ্ছে এসব। চিৎকারের সাথে শরীরের সমস্ত শক্তি দিয়ে ঘুরে দৌঁড়ে যায় সিঁড়ির দিকে। দৌঁড়ে সিঁড়ি ভাঙ্গতে পরে পা মচকে গেলেও সেদিকে ওর কোন খেয়াল সেই। ড্রাইভার ঝিমুচ্ছিল। শাহানাকে একা দেখে প্রথমটায় ইতস্থ করে। তারপর গাড়ী চালিয়ে যায়। রাগেÑদুঃখেÑক্ষোভে চুল ছিড়তে ইচ্ছে হয় শাহানার। বাসার গেটের সামনেই গাড়ী থামতেই দেখে রিক্সা থেকে নামছে নীচতলার প্রফেসর ভদ্র লোকটির সঙ্গে তার স্ত্রী। দুটো চোখ ছাড়া সমস্ত দেহ আবৃত্ত করে পোশাক পড়েছে মহিলাটি।
: ভাবিকে কাল জিজ্ঞাসা করতে হবে, মাহমুদ ভাইয়ের এ রকম পার্টি আছে নাকি? গাড়ী থেকে নামতে গিয়ে ভাবে শাহানা। ড্রাইভারকে বলল-
: যত রাত হোক সাহেব কে পৌঁছে দিয়ে যাবে।
গাড়ী চলে যেতেই ঘুরে দাঁড়ায় শাহানা। কয়েক গজ সামনে প্রফেসর সাহেব আর তার স্ত্রী ধীর পদক্ষেপে হাঁটছে। ওরা সম্ভবত: শাহানার উপস্থিতি টের পায়নি। ওদের স্বামী-স্ত্রীর অন্তরঙ্গ কথা বার্তা শাহানার কানে আসে। ফ্যাল ফ্যাল করে সেদিকে এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে। ভিতরটা ভীষন জ্বালা করে উঠে শাহানার। শাহীনকে যে অবস্থায় দেখে এসেছে। এখন শাহানা শাহীনের সঙ্গে কি করে পারবে ওদের মত অমন ঘনিষ্ট হয়ে হাসিÑআনন্দে অন্তরঙ্গ সংলাপে মেতে উঠতে? নাকি হৃদয়ের এ ধস আজীবন বয়ে বেড়াবে সে? ভেবে ভেবে ঘেমে উঠে শাহানা। বেড়ে উঠা রাতের পাশাপাশি ততক্ষণে হোটেল সোনারগাঁয়ে শাহীনদের “ঈদ পার্টি” উত্তেজনার মিউজিকের তালে তালে আরও জমজমাট হয়ে উঠেছে।
লেখকঃ প্রবীন সাংবাদিক, কলামিষ্ট এবং সম্পাদক ও প্রকাশক, সাপ্তাহিক যুগের খবর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪