ঐতিহ্যের ৭০ বছর: মানবিক কাজে ফিরেছে ছাত্রলীগ

যুগের খবর ডেস্ক: বিভিন্ন ইউনিটে সম্মেলন করে নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টি করে সংগঠনকে গতিশীল রাখা, ঘটা করে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন প্রতিটি সংগঠনেরই গতানুগতিক কাজ। বর্তমান কমিটির নেতৃত্বাধীন ছাত্রলীগও এর ব্যতিক্রম নয়। তবে বর্তমান কমিটির বাড়তি মনোযোগ ছিল মানবিক কাজে। পথশিশুদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ থেকে দুস্থ শিক্ষার্থীদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা। সবশেষ রোহিঙ্গাদের সেবায় সাড়ে তিনমাস ধরে স্বাস্থ্য সেবা দেওয়া।
পাশাপাশি নানা সমালোচনার মধ্যেও সংগঠনের শৃঙ্খলা রক্ষায় কেন্দ্রীয় কমিটি বেশ তৎপর ছিল। সংগঠনে শৃঙ্খলা ধরে রাখতে বিভিন্ন ইউনিটে প্রায় ৪০০ জন নেতা-কর্মীকে বহিষ্কার করেছে বর্তমান কমিটি। কিছু বেগ পেলেও দীর্ঘদিন পর বেশ কয়েকটি ইউনিটে কমিটি হয়েছে। চট্টগ্রাম দক্ষিণ, দিনাজপুর, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কমিটি গঠন ছিল বর্তমান কমিটির আলোচিত সাংগঠনিক কাজ। কয়েকবার কমিটি স্থগিত ও বাতিল করার পরও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সংকট এখনো শেষ হয়নি। অনেক বড় বড় কলেজ ইউনিট চলছে আহŸায়ক কমিটি দিয়ে। তবে তিন বছরে মোট ইউনিটের মাত্র অর্ধেকে নতুন কমিটি হয়েছে। ১১০ ইউনিটের মধ্যে ৫৫টিতে নতুন কমিটি হয়েছে। কেন্দ্রের হস্তক্ষেপে অনেক উপজেলায়ও ছাত্রলীগের কমিটি হয়েছে।
বর্তমান কমিটি কিছু ছাত্র স্বার্থসংশ্লিষ্ট কাজেও সংশ্লিষ্ট ছিল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনস্থ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা ও ফলাফলের দাবিতে ছাত্রলীগ সমর্থন দিয়েছিল। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ভ্যাটবিরোধী আন্দোলনেও শেষ দিকে সমর্থন দিয়েছিল ছাত্রলীগ। এগুলো অনেকটা কৌশলী সমর্থন ছিল। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের হল পুনরোদ্ধারের আন্দোলনে সরাসরি জড়িত ছিল ছাত্রলীগ। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ক্যাম্পাস হচ্ছে কেরানীগঞ্জে।
তবে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে সংগঠনের নেতারাই স্বেচ্ছাচারিতা- অনিয়মসহ বিভিন্ন অভিযোগ তুলেছেন। বর্তমান কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে গত বছরের ২৬ জুলাই। ২০১৫ সালের ২৭তম জাতীয় সম্মেলনে সাইফুর রহমান সোহাগ সভাপতি ও এস এম জাকির হোসাইন সাধারণ সম্পাদক পদে দুই বছর মেয়াদের জন্য নির্বাচিত হন। ছাত্রলীগ নেতৃত্বে আসার ২৯ বছর বয়সের বাধ্যবাধকতা থাকায় বর্তমান কমিটির মেয়াদপূর্তির পর থেকেই নতুন সম্মেলনের দাবি উঠেছে। সম্মেলন দাবি ও আর্থিক বিষয় নিয়ে ছাত্রলীগের বর্ধিত সভায় বাকবিতণ্ডাও হয়েছে। সবশেষ সম্মেলনের দাবিতে একটি পক্ষ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। পরে কেন্দ্রীয় নেতাদের আশ্বাসে সংবাদ সম্মেলন স্থগিত করে।
ছাত্রলীগের নতুন সম্মেলনের বিষয়ে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন আজকালের খবরকে বলেন, যারা সম্মেলনের দাবি করছেন, তাদের হয়ত নিজস্ব চিন্তা-চেতনা থাকতে পারে। এটা তাদের ব্যক্তিগত বিষয়। ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র যেমন ছাত্রলীগের জন্য। তেমনি ছাত্রলীগ নেত্রীর  (শেখ হাসিনা) জন্য। আমরা প্রস্তুত; মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যেদিন বলবেন সেদিনই সম্মেলন হবে।
৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর প্রস্তুতি সম্পন্ন: গৌরব, ঐতিহ্য, সংগ্রাম ও সাফল্যের সাত দশকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। বাংলাদেশর প্রায় দ্বিগুণ বয়সের এ সংগঠনটি ভিন্নভাবে পালন করতে চায় তাদের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। এজন্য ইতিমধ্যে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্পট ও স্থাপনা সাজিয়েছে বর্ণিল সাজে। ছাত্রলীগের আলোকসজ্জা, তোরণ, ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টারে ছেয়ে গেছে পুরো  দেশ। এশিয়ার অন্যতম বৃহৎ ছাত্রসংগঠন ছাত্রলীগের প্রশংসনীয় ভ‚মিকা রয়েছে বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন, ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান, স্বাধীনতা যুদ্ধ, নব্বই ও ২০০৭ সালের স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলসহ নানা আন্দোলন-সংগ্রামে এ সংগঠনটির ভূমিকা প্রশংসনীয়।
তাই ঐতিহ্যবাহী এ সংগঠনটির ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গোটা রাজধানী আকার নিচ্ছে রঙিন সাজে। আলোকসজ্জা হয়েছে নগরীর প্রতিটি সড়কদ্বীপ, ফ্লাইওভার, ফোয়ারা আর গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায়। নগরীর প্রবেশ পথগুলোতে দাঁড় করনো হয়েছে তোরণ। সড়কের মোড়ে-মোড়ে টাঙানো হয়েছে জাতীয় পতাকা। সাঁটানো হচ্ছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি দিয়ে বিলবোর্ড, ব্যানার। এসব ব্যানার ফেস্টুনে তুলে ধরা হচ্ছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের জন্মলগ্ম থেকে বর্তমানের ইতিহাস-ঐতিহ্য, আন্দোলন সংগ্রামসহ বিভিন্ন অর্জনের মৌলিক ছবি রঙের নিপুণ ছোঁয়ায়।
৪ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী। এ উপলক্ষে ছয় দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে সংগঠনের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ। ইতিমধ্যে সারাদেশের বিভিন্ন শাখাগুলোতে এ কর্মসূচি পালনের চিঠি সমেত পোস্টার ও ক্যালেন্ডার পাঠানো হয়েছে। তাছাড়া বিভিন্ন স্পটে আলোকসজ্জা, দেয়াল লিখন, তোরণ, ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টার সাটানোর মৌখিক নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
এরমধ্যে সংগঠনের কেন্দ্রীয় অফিস বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে তোরণ, নানা ধরনের ব্যানার, ফেস্টুন-পোস্টার সাঁটানো হয়েছে। রাজনীতির আঁতুরঘর খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন দেয়ালে ছাত্রলীগের পতাকা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি শিল্পীর তুলিতে ফুঁটে উঠেছে। ঢাবির কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির দেয়ালে বঙ্গবন্ধুর ভাষণের প্রতিকৃতি নান্দনিকভাবে তুলে ধরা হয়েছে। সেখানে শোভা পেয়েছে ৭ মার্চের ভাষণ নিয়ে কবি নির্মলেন্দু গুনের কবিতাংশ। এছাড়া মধুর কেন্টিনসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের নানা যায়গায় বর্ণিল আলোজসজ্জা করা হয়েছে।
ছাত্রলীগের নেতারা বলছেন, সংগঠনের নেতারা ঢাকাসহ সারাদেশের জেলাশাখা তাদের অন্তর্গত ক্যাম্পাস ও এর আশ-পাশের এলাকা বর্ণিল সাজে সাজাচ্ছে। বাবুপুরা ব্রিজ থেকে টঙ্গি ব্রিজ, যাত্রাবাড়ী ফ্লাইওভার থেকে খিলগাঁও কিংবা মহাখালী ফ্লাইওভার বাদ পড়ছেনা রঙের আচড় থেকে।
এবার ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সবচেয়ে বড় দিক হচ্ছে, ছাত্রলীগের এবারের র্যা লি হচ্ছে ছুটির দিনে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বৃহস্পতিবার র্যা লি করার কথা থাকলেও জনদুর্ভোগ এড়াতে এটি হচ্ছে শনিবার। ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক গত প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে কথা দিয়েছিলেন তারা ছুটির দিনে র্যা লি করবেন। সংগঠনটি তাদের সে কথা রেখেছে। এবারে বৃহস্পতিবারের পরিবর্তে তারা শনিবার ঢাকায় মূল র্যা লি করবে। এছাড়া ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের মূল চাওয়া নেত্রীর (প্রধানমন্ত্রী) সঙ্গে সাক্ষাত। কেন্দ্রীয় কমিটির সব নেতারা বৃহস্পতিবার বিকেলে গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাত করবে।
প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ছয় দিনের কর্মসূচি: ৪ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৬টায় ছাত্রলীগের সকল সাংগঠনিক কার্যা লয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন। সাড়ে ৭ টায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন। সকাল ১০টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলে কেক কাটা। ওইদিন রাজধানী ছাড়া দেশের অন্য সকল ইউনিটে আনন্দ র্যা লি করা হবে।
৫ জানুয়ারি শুক্রবার রাজধানীসহ সারাদেশে গণতন্ত্রের বিজয় দিবস পালন করবে ছাত্রলীগ। ৬ জানুয়ারি শনিবার সকাল ১০টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউ পর্যন্ত আনন্দ র্যা লি অনুষ্ঠিত হবে। ৮ জানুয়ারি সোমবার দুপুর ২ টায় ঢাবির সোপার্জিত স্বাধীনতা চত্বরে দুঃস্থদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ। ৯ জানুয়ারি মঙ্গলবার স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি এবং ১১ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার বেলা ১০টায় অপরাজেয় বাংলায় শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ।
ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সংগঠনের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ বলেন, সবার প্রতি আমাদের আহŸান- ছাত্রলীগের পতাকা তলে আসুন। বঙ্গবন্ধুকে ভালোবেসেই ছাত্রলীগে আসুন। আমরা একটি প্ল্যাটফর্মে থেকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করে মাদক, জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতিমুক্ত বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গঠন করতে পারব। সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন বলেন, সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতি আমার আহŸান থাকবে- আসুন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের বাংলাদেশ বিনির্মাণ, দেশরতœ শেখ হাসিনার ভিশন বাস্তবায়নে কলম ধরি এবং জঙ্গিবাদ ও মাদকমুক্ত দেশ গড়ি। এই গড়ার ক্ষেত্রে যাতে সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীরা এগিয়ে আসে, তারা  যেন সচেতন হয়, তাদের মধ্যে সেই সচেতনতাবোধ, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা জাগ্রত করতে কাজ করছে ছাত্রলীগ। আগামী দিনের বাংলাদেশ গড়ার ক্ষেত্রে যেন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এসে ভূমিকা পালন করতে পারে, সেজন্য ছাত্রলীগের পতাকা তলে সবাইকে আহ্বান জানাচ্ছি।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪