চিলমারীতে ঝুঁকিতে প্রজনন স্বাস্থ্য: অসচেতনতায় উপেক্ষিত বয়ঃসন্ধিকাল

এস, এম নুরুল আমিন সরকার:

মেয়েটির নাম শরীফা খাতুন। পড়নে রঙ্গীন শাড়ী, হাতে মেহেদী, হাত ভর্তি বাহারী রকমের চুড়ি। নখে নীল পলিশ আর ঠোঁটে গোলাপী রঙ্গের গারো লিপিষ্টিক। বসে আছে চটের উপর জড়োসড়ে হয়ে। কি যেন ভাবছে আপন মনে। নাম জিজ্ঞাস করতেই সম্বিত ফিরে পায়। ঝটপট বলে ফেলে মোছাঃ শরীফা খাতুন। জানাগেলো বাবা মায়ের নামও। বয়স তার ১৩ এর কোটায়। ৩মাস আগে বিয়ে হয়েছে। ১ ভাই ২ বোনের মধ্যে শরীফাই সবার বড়। আর বড় মেয়েটির বিয়ে দেয় ১৩ বছর বয়সে। পিতা সৈয়দ আলীর সংসারও স্বচ্ছল। বিয়ের আগে ঋতুস্রাব হয়নি শরীফার। বিয়ের পড়ে মাত্র একবার হয়েছে। এটাই নাকি তার প্রথম ঋতুস্রাব বললেন, চরে পরিবার পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করা বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ফ্রেন্ডশিপের প্যারামেডিক তানিয়া শারমিন। শরীফার বাবা সৈয়দ আলীকে বারবার দেখতে ইচ্ছে হচ্ছিল আমার। পাষন্ড এক পিতা। শিশু বধুকে দেখে বড্ড কষ্ট হচ্ছিল। কথায় কথায় জানা গেলো অনেক কথা! বয়ঃসন্ধিকাল কিংবা প্রজনন স্বাস্থ্য সম্পর্কে কিছুই জানেনা শরীফারা। নিজের শরীর সম্পর্কে জানার আগেই তা তুলে দিতে হচ্ছে অন্যের হাতে। যে বাড়ীর উঠানো বসেছিলাম, সেই বাড়ীর দরজায় সাঁটানো একটি পুরাতন পোষ্টার চোখে পড়তেই মেজাজটা বিগড়ে গেল আমার। সেই পুরানো শ্লোগান ‘কুড়িতে বুড়ি নয়, বিশের আগে বিয়ে নয়’ চিৎকার করে বলতে ইচ্ছে হলো ‘ছিঁড়ে ফেলুন এই পোষ্টার’। নাহ্ তা আর হলো না। পাশেই বসা আর একটি মেয়ে সুরাইয়া আক্তার। বয়স ১৭ বছর। এরই মধ্যে এক সন্তানের জননী সে। সন্তানের বয়সও প্রায় দু‘বছর। ৭ ভাই ১ বোনের মধ্যে সুরাইয়া সবার ছোট। বাল্য বিয়ের শিকার সুরাইয়া এখন কিশোরী বধু। বলছিলাম চিলমারী উপজেলার দুর্গম চরাঞ্চল অষ্টমীর চর ইউনিয়নের ডাটিয়ার চর গ্রামের শরীফা ও সুরাইয়াদের কথা। বেরিয়েছিলাম সকাল ৯টায়। প্রায় ২ ঘন্টা নৌযাত্রার পর পায়ে হেঁটে ডাটিয়ারচর ক্লিনিক পাড়ায় পৌাঁতে সময় লেগেছে আরো ৪৫ মিনিট। চরাঞ্চলের জীবনযাত্রা, প্রজনন স্বাস্থ্য, বয়ঃসন্ধিকালীন স্বাস্থ্যসেবা, জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি আর শিশু ও কিশোরী বধুদের খোঁজ নেয়া, সেই সাথে রেডিও চিলমারীর উদ্যোগে আইপাস ও বিএনএনআরসির সহযোগিতায় একটি উঠান বৈঠকে যোগ দেয়া। সাথে আছেন রেডিও চিলমারীর প্র্রযোজক পঞ্চানন রায়, অনুষ্ঠান নির্মাতা সুজন মাহমুদ, পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক মোঃ আব্দুল হালিম, পরিবার কল্যান পরিদর্শিকা আইরিন আক্তার, ফ্রেন্ডশীপের প্যারামেডিক তানিয়া শারমিন ও মোসলেমা আক্তার। উঠান বৈঠক শেষে কথা হয় কয়েকজন নারীর সাথে। তারা জানালেন, এম আর বলতে তারা বোঝেন বাচ্চা নষ্ট করা। এম আর পরবর্তী সেবা কিংবা পোষ্ট এ্যাবোশন কেয়ার (প্যাক) সম্পর্কেও তাদের কোন ধারনা নেই। এব্যাপারে উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের মেডিকেল অফিসার ডাঃ সায়লামা বিনতে মেফতাহুর বলেন, গ্রামের মানুষ অদক্ষ ও অশিক্ষিত আয়াদের কাছে কেউ বা কবিরাজের কাছে ঔষধ খেয়ে পর্ভপাত ঘটান। এরপরই তাদের যে সেবা দরকার তারা তা নেন না। জানেনও না। ফলে অনেকের অসুবিধা হচ্ছে। সমস্যায় পড়লে ডাক্তারের স্বরনাপন্ন হন।

এদিকে মারাত্বক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে আছেন কিশোরীরা। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা বিভাগের একাডেমীক সুপারভাইজার মোঃ আব্দুল হালিম বলেন, বয়ঃসন্ধিকাল ও প্রজনন স্বাস্থ্য একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। যা পাঠ্য বইয়ে অন্তর্ভুক্ত আছে। এব্যাপারে প্রতিটি বিদ্যালয়ে দু‘জন করে শিক্ষককে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। তারা নিয়মিত ক্লাস নেন। থানাহাট পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এ, কে, এম নুর-ই-ইসলাম বলেন, বয়ঃসন্ধিকাল ও প্রজনন স্বাস্থ্য সম্পর্কে শিক্ষকরা প্রশিক্ষণ পাননি। পাঠ্য বইয়ে যা আছে তাই-ই পড়ানো হয়। কিন্তু তা যথেষ্ট নয়। পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেয়া হলে কিশোরীরা অনেক সচেতন হতো। পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা ঝরনা রাণী বলেন, কিশোরীরা ইনজেকশন নেয়ার জন্য আসে। এম আর ও পোষ্ট এ্যাবোশন কেয়ার (PAC) সেবা নিতে আসলে দেয়া হয়। তবে মানুষ এখনো এ দুটা বিষয়ে খুব একটা সচেতন নয়। থানাহাট বাজার কিশোরী ক্লাব ও মাচাবান্দা কিশোরী ক্লাবে কিশোরী রয়েছে ৪০ জন করে। তারা জানায়, বয়ঃসন্ধিকাল ও প্রজনন স্বাস্থ্য সম্পর্কে শুধুমাত্র ব্র্যাক তাদের প্রশিক্ষণ দিলেও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ বা অন্য কোন সংস্থা তাদেরকে এ বিষয়ে কিছুই জানায়নি। চিলমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সিনিয়র স্টাফ নার্স মোছাঃ হেলেনা খাতুন জানান, দীর্ঘ সময় মাসিক বন্ধ হওয়ার পর যদি মাসিকের রাস্তা দিয়ে রক্তক্ষরণ অথবা দুর্গদ্ধযুক্ত সাদাস্রাব বের হয়, জ¦র হয় তাহলে যে সেবা নিতে তা তাকে চঅঈ বা পোষ্ট এ্যাবোশন কেয়ার বলে। যে কোন কারণে বাচ্চা নষ্ট করলে বা গর্ভপাত হলে, ট্যাবলেট, গাছনা বা অন্য কোন উপায়ে বাচ্চা নষ্ট করে তাহলে পোষ্ট এ্যাবশন হতে পারে। এর জন্য ডিএনসি করাতে হবে।

এবার আসা যাক জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি নিয়ে কি বলছে অষ্টমীরচরের মানুষ। আছিয়া বেগম (৪০), স্বামী সন্দেশ আলী, ডাটিয়ার চর গ্রামের বাসিন্দা। ২৫ অক্টোবর ২০১৭ তারিখে ইমপ্লান্ট নিয়েছে এখন জ¦ালাপোড়া করে। তাকে পরামর্শ দেয়া হলো পরিবার পরিকল্পনা অফিসে যাওয়ার জন্য। নাছিমা (৩০) প্রশ্ন করেন ইমপ্লান্ট নিলে যখন তখন খোলা যায় কি না? বাচ্চা আসবে কি না? উত্তরে পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা আইরিন আক্তার জানালেন যখন তখন খোলা যাবে বাচ্চাও নেয়া যাবে। চর মুদাফৎ কালিকাপুর গ্রমের মিতু বেগম (২৫) দুই সন্তানের জননী। নিয়মিত খাবার বড়ি খেতেন। এতে খুবই বিরক্তিবোধ করতেন তিনি। ১৭ মে ২০১৭ তারিখে নেন ইমপ্লান্ট। প্রথম দিকে খারাপ লাগলেও এখন অনেক ভাল আছেন। একই গ্রামের বাসিন্দা মজিদা বেগম (২০)। বাল্য বিবাহের শিকার মজিদা বেগম এখন ১ সন্তানের জননী। ২৫ জুন ২০১৫ তারিখে গ্রহণ করেন ইমপ্লান্ট। চুর মুদাফৎ গ্রামের আর এক কিশোরী বধুর নাম নীলুফা বেগম যদিও তার বয়স বলা হচ্ছে ২২ বছর। কিন্তু তিনিও বাল্য বিয়ের শিকার। এক সন্তানের জননী এই নারী ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে গ্রহণ করেন ইমপ্লান্ট। একই গ্রামের মেহেরা বেগম (২৫) ২ সন্তানের জননী। এখন আর তৃতীয় সন্তান নয়। চাই একটা দীর্ঘ বিরতি। আর তাই ক্লিনিকে হাজির হয়ে ২৬ জুলাই ২০১৭ তারিখে গ্রহণ করেন ইমপ্লান্ট। উত্তর ডাটিয়ার চর গ্রামের কিশোরী বধু চায়না বেগম (১৯)। ১ সন্তান জন্মের পর শরীর ভেঙ্গে পড়েছে খানিকটা। তাই দ্বিতীয় সন্তান নিতে দীর্ঘ বিরতির প্রয়োজন। যোগাযোগ করেন বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ফ্রেন্ডশিপের তানিয়া শারমিনের সাথে। তার কথামতো ২৫ অক্টোবর ২০১৭ তারিখে তাকে পড়ানো হয় ইমপ্লান্ট।

খামার বাঁশপাতারী গ্রামের ৩ সন্তানের জননী শিরিনা বেগম (৩০)। অভাবের সংসারে ৪র্থ সন্তান দিতে চান না তিনি। স্বামীর সাথে পরামর্শ করে ২৭ ফেব্র“য়ারি ২০১৪ তারিখে গ্রহণ করেন আইইউডি। চর মুদাফৎ কালিকাপুর গ্রামের বাসিন্দা আমেনা বেগম (৪০) ৪ সন্তানের জননী তিনি। খাবার বড়ি খেতে খেতে বিরক্ত হয়েছেন তিনি। তাই সিদ্ধান্ত নেন দীর্ঘ মেয়াদী পদ্ধতি নেয়ার। ১৪ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে গ্রহণ করেন আইইউডি।

চরাঞ্চলে বেড়ে যাচ্ছে বাল্য বিয়ের হার। বয়ঃসন্ধিকাল ও প্রজনন স্বাস্থ্য সম্পর্কে জানার আগেই বিয়ের পিঁড়িতে বসতে হচ্ছে শিশুদেরকে। ফলে কুড়ির আগেই বুড়ি হয়ে যাচ্ছে ওরা।

অষ্টমীরচর ইউনিয়ন পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক আব্দুল হালিম জানান, অষ্টমীরচর ইউনিয়নে মোট সক্ষম দম্পতির সংখ্যা ৩ হাজার ৩‘শ ৪ জন। এর মধ্যে খাবার বড়ি খান ৯‘শ ৬ জন, কনডম ব্যবহার করেন ৯১ জন, ইনজেকশন নেন ৯‘শ ৭০ জন, আইইউডি গ্রহিতা ১‘শ ৪৫ জন, ইমপ্লান্ট গ্রহিতা ৩‘শ ৫১ জন, পুরুষ বন্ধ্যাকরণ ভ্যাসেকটিমী নিয়েছেন ৭৫ জন, মহিলা বন্ধ্যাকরণ টিউবেকটমী করিয়াছেন ১‘শ ৭৮জন। সিএআর শতকরা ৮৪.৯২% পদ্ধতি গ্রহণ করেছেন। দীর্ঘ স্থায়ী ও স্থায়ী পদ্ধতি গ্রহণকারীর হার শতকরা ২২.৬৬%।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪