**   শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে আফগানদের হারালো বাংলাদেশ **   সরকারি হাইস্কুলে পদোন্নতি: সিনিয়র শিক্ষক হচ্ছেন ৫৫০০ জন **   উলিপুরে বিজয়ের উল্লাসে বিজয় মঞ্চের কাজ শুরু **   কুড়িগ্রামে ‘অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ’ শীর্ষক উন্নয়ন কনসার্ট অনুষ্ঠিত **   উলিপুরে বিদ্যূৎস্পৃষ্টে অটোচালক নিহত **   আওয়ামী লীগকে ছাড়া জাতীয় ঐক্য হতে পারে না: কাদের **   ১০ জেলায় নতুন ডিসি **   দেবী রূপে অপু বিশ্বাস **   জাতিসংঘে রোহিঙ্গা নিয়ে বিশ্বের সমর্থন চাইবেন প্রধানমন্ত্রী  বৈঠক হতে পারে ট্রাম্পের সঙ্গে **   ভূরুঙ্গামারীতে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মনোনয়নের দাবীতে পথ সভা, র‌্যালি অনুষ্ঠিত

এফবিআই গোয়েন্দাদের বিরুদ্ধে তদন্তের নির্দেশ ট্রাম্পের

tr

যুগের খবর ডেস্ক: এবার মার্কিন কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা এফবিআইয়ের গোয়েন্দাদের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করতে যাচ্ছে ট্রাম্প প্রশাসন। রাশিয়া কেলেঙ্কারি নিয়ে প্রবল চাপের মুখে থাকা ট্রাম্পের অভিযোগ, ওবামা প্রশাসন রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে তার নির্বাচনী প্রচারণা শিবিরের ওপর নজরদারি চালিয়েছিল। আর এ অভিযোগের ভিত্তিতেই এফবিআইয়ের বিরুদ্ধে মার্কিন জাস্টিস ডিপার্টমেন্টকে (বিচার মন্ত্রণালয়) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন ট্রাম্প। এদিকে দেশটির বিরোধী ডেমোক্র্যাটিক দল রিপাবলিকানদের এমন প্রচেষ্টার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। মার্কিন গুপ্তচরদের পরিচয় জানতে চাওয়ার চেষ্টাকে দায়িত্বজ্ঞানহীন ও বেআইনি হিসেবে উল্লেখ করেছে তারা।

২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে ডোনাল্ড ট্রাম্প রাশিয়ার মদত নিয়েছিলেন কিনা এবং নিয়ে থাকলেও এখনও পর্যন্ত সত্য গোপন করে আসছেন কিনা- তা নিয়ে বিশেষ কৌঁসুলি রবার্ট মুলারের তদন্তের এক বছর পূর্ণ হয়েছে। ট্রাম্প বরাবর প্রকাশ্যে এমন অভিযোগ অস্বীকার করে চলেছেন। এর পরিবর্তে এফবিআইয়ের সাবেক এ পরিচালক এ তদন্তকে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ‘উইচ হান্ট’ বলে অভিহিত করে আসছেন। এবার ট্রাম্প দেশটির সেই অভ্যন্তরীণ গোয়েন্দা সংস্থার (এফবিআই) বিরুদ্ধেই গর্জে উঠলেন।

নির্বাচনী প্রচারণার সময় এফবিআইয়ের গোয়েন্দারা তার দলে চর পাঠিয়েছিল অথবা ‘রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের উদ্দেশ্যে’ তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ওবামার নির্দেশে গুপ্তচরবৃত্তি করেছিল- এমন অভিযোগ খতিয়ে দেখতে বিচার মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। রোববার (২০ মে) এক টুইট বার্তায় তিনি লেখেন, এই অভিযোগ ওয়াটারগেট কেলেঙ্কারির থেকেও বড় ঘটনা হিসেবে গণ্য হতে পারে। মার্কিন সংবাদ মাধ্যম নিউইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনকে কেন্দ্র করে ট্রাম্প এমন তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন। ওতে দাবি করা হয়, ২০১৬ সালের নির্বাচনী প্রচারের সময় এফবিআই ব্রিটেনে কর্মরত এক মার্কিন অধ্যাপককে আলাদা করে ট্রাম্পের উপদেষ্টাদের সাক্ষাৎকার নিতে পাঠিয়েছিল। ট্রাম্পের প্রচারণা শিবিরের কার্টার পেজ ও জর্জ পাপাডোপুলোস রাশিয়ার সঙ্গে অবৈধ যোগাযোগ রেখে চলেছেন কিনা- ওই অধ্যাপক সে বিষয়ে তথ্য উদ্ঘাটনের চেষ্টা চালিয়েছিলেন। ট্রাম্পের এ অভিযোগের ভিত্তিতে মার্কিন বিচার মন্ত্রণালয় ইনস্পেকটর জেনারেলের নেতৃত্বে অভ্যন্তরীণ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে। একই সঙ্গে যে প্রক্রিয়ার মাধ্যমে জাতীয় নিরাপত্তার ভিত্তিতে ‘ফিসা’ নামের সমন জারি করা হয়, তাও নতুন করে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। দেশটির ক্ষমতাসীন রিপাবলিকান দলের অভিযোগ, এ প্রক্রিয়ার অপব্যবহার করে ট্রাম্প শিবিরের কার্টার পেজ-এর ওপর নজরদারি চালানো হয়েছিল। মার্কিন কংগ্রেসে ট্রাম্পের সমর্থকরা গুপ্তচরের পরিচয় জানতে চাইলেও এফবিআই জানিয়েছে, নিরাপত্তার স্বার্থে এমন কোন ব্যক্তির পরিচয় প্রকাশ করা সম্ভব নয়। ট্রাম্প নিজে তদন্তের চাপের মুখে এমন আচরণ করছেন বলে অভিযোগ করছেন ডেমোক্র্যাট দলের কয়েকজন আইনপ্রণেতা। তাদের একজন জোয়াকিন কাস্ত্রো এক টুইটার বার্তায় তদন্তে বাধা সৃষ্টি না করার আহ্বান জানান।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, শুরুতে ট্রাম্প শুক্রবার অভিযোগ করেছিলেন, এফবিআই তার প্রচারণা দলের কাছে একজন গুপ্তচর পাঠিয়েছে। এরপর নিউইয়র্ক টাইমসের এক নিবন্ধে দাবি করা হয়, সেখানে অবশ্যই একজন এফবিআইয়ের তথ্যদাতা ছিলেন। তার পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি। ‘রাশিয়ার সঙ্গে সন্দেহজনক যোগাযোগের’ খবর প্রকাশের পর ট্রাম্পের প্রচারণা সহযোগীদের সঙ্গে কথা বলার জন্য তাকে সেখানে পাঠায় এফবিআই। নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, এফবিআইয়ের ওই গুপ্তচর একজন মার্কিন শিক্ষাবিদ। তিনি যুক্তরাজ্যে আছেন। ওই ব্যক্তি জর্জ পাপাডোপোলাস এবং কার্টার পেজের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। আরেক মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টও একই ইঙ্গিত দেয়। এরপর রোববার এক টুইটার বার্তায় ট্রাম্প বলেন, পূর্বসূরির প্রশাসন থেকে এ ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার আদেশ দেয়া হয়েছিল কিনা- তা জানতে চান তিনি। অপরদিকে উপ-মার্কিন অ্যাটর্নি জেনারেল রড রোজেনস্টেইন বলেন, কোন ধরনের অনুপ্রবেশের কথা জানা গেলে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘কেউ যদি অনুপ্রবেশ করে কিংবা রাজনৈতিক উদ্দেশ্য নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় নজরদারি চালায়, তবে আমাদেরকে এ বিষয়ে জানতে হবে এবং যথাযথ ব্যবস্থা নিতে হবে।’ বিবিসি জানায়, আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তারা কংগ্রেসনাল নেতাদের এ ইস্যু নিয়ে প্রমাণ সরবরাহ করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। তাদের দাবি, এতে ওই গুপ্তচরের জীবন হুমকিতে পড়বে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪