**   কুড়িগ্রামে পুলিশ কর্মকর্তাদের নিয়ে শিশু আইন-২০১৩ শীর্ষক প্রশিক্ষণ **   চিলমারীতে থানাহাট পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান ফটক, সততা স্টোর উদ্বোধন ও বিদায়ী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত **   চিলমারীতে মিনা দিবস উদযাপন **   উলিপুরে মিনা দিবস পালিত **   উলিপুরে সড়ক দূর্ঘটনায় শিশুর মৃত্যু **   কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাট জেলা পুলিশের উদ্যোগে আঞ্চলিক মহাসড়কে দুর্ঘটনা রোধকল্পে মতবিনিময় **   শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে আফগানদের হারালো বাংলাদেশ **   সরকারি হাইস্কুলে পদোন্নতি: সিনিয়র শিক্ষক হচ্ছেন ৫৫০০ জন **   উলিপুরে বিজয়ের উল্লাসে বিজয় মঞ্চের কাজ শুরু **   কুড়িগ্রামে ‘অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ’ শীর্ষক উন্নয়ন কনসার্ট অনুষ্ঠিত

প্রযুক্তি এবং প্রকৃতির সমীকরণ মেলাতে হবে

Untitled-27-5b8d6b40569d8

যুগের খবর ডেস্ক: একুশ শতকের যাপিতজীবনের পাণ্ডুলিপির দিকে তাকালে মনে হয়, প্রযুক্তিই সব। প্রযুক্তিই সর্বরোগ হন্তারক। আসলে কি তাই? এ নিয়ে প্রশ্ন তোলার সুযোগ আছে যথেষ্ট। আলাপও হওয়া দরকার। প্রযুক্তিকে যতখানি গুরুত্ব দিচ্ছে এই গ্রহের মানুষ, ভালো হতো যদি তা প্রকৃতিকে দেওয়া হতো। যদিও প্রকৃতি গুরুত্ব দেওয়া না দেওয়ার ঊর্ধ্বে। মানুষ মানুক কিংবা না মানুক, সত্য তো এই যে, মানুষ প্রকৃতির সম্প্রসারিত অংশ অথবা প্রকৃতি মানুষের। এ দুই ধ্রুব সত্যকে অস্বীকার করে প্রযুক্তিকে সভ্যতার মানদণ্ড ধরে নিয়ে কোথায় যাচ্ছে মানুষ? যাচ্ছে কপটতার দিকে। যাচ্ছে কৃত্রিমতার দিকে। টেলিভিশনের পর্দা কিংবা কম্পিউটারের মনিটরের দিকে তাকিয়ে ক্যালরিবহুল ফাস্টফুড খেতে খেতে আমাদের শরীর ও মাথা দুই-ই হয়েছে চর্বিবহুল। তাই বুঝতে পারছি না, প্রকৃতি আমাদের কী। অবশ্য একুশ শতকের মানুষকে দোষ দিয়েই-বা কী লাভ? এখন এক বাটিতে চিনি আর এক বাটিতে টাকা রেখে দিলে দেখা যাবে, পিঁপড়েগুলো চিনি রেখে টাকা খাচ্ছে। টাকাটাই বড় কথা, বাকি সব বাতুলতা- এই দর্শন থেকে একুশ শতকের পিঁপড়া থেকে মানুষ কেউ মুক্ত নয়।
‘মুক্তি’ কবিতায় আসি। যেখানে বিহ্বল ফাল্কগ্দুন, ২২ বছরের এক তরুণীকে মনের দরজা খোলার আহ্বান জানিয়েছিল। গন্ধে বিভোর বসন্তের দখিন বাতাসকে সাড়া দিতে না পারায় সেই তরুণীকে আক্ষেপ করতে দেখি ‘মুক্তি’ কবিতায়। ‘মুক্তি’র তরুণীর তবু অন্তত বাইশে এসে প্রকৃতিকে নিজের অংশ ভাবতে না পারার অজ্ঞতা ঘুচেছিল। আমাদের এক জীবন পুরোটাই কেটে যায়। কিন্তু বিভ্রম কাটে না। বুঝে উঠতে পারি না কার অংশ আমরা। অবশ্য একেবারেই বুঝি না বললে ভুল বলা হয়। আট থেকে ৮০ সবাই যেভাবে স্মার্টফোনের সামনে হালুম হয়ে থাকি, তাতে মনে হয়- আমরা সবাই নিজেকে প্রকৃতি নয়, প্রযুক্তিরই অংশ ভাবছি। এ অজ্ঞতা, বিভ্রান্তি এক জীবনে ঘুচবে বলে মনে হয় না। ফলে অসুখ-বিসুখ হয়েছে আমাদের নিত্যসঙ্গী। প্রযুক্তি আমাদের প্রত্যেক দিনের রুটিন বদলে দিয়েছে। বদলে গেছে খাদ্যাভ্যাস থেকে ঘুমের রুটিন। ধূমপান ও অ্যালকোহলে আসক্তি, অনেক রাত পর্যন্ত অনলাইনে থাকা, জাঙ্কফুডের অভ্যাস, অলস জীবনযাপন, কায়িক শ্রমের অভাব- সব মিলিয়ে কী ফল হয়েছে লক্ষ্য করুন। ৭ আগস্ট যুগান্তরে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে দেখা যাচ্ছে, ১৯ হাজার কোটি টাকার ওষুধ শিল্পের গড় প্রবৃদ্ধি ১৯ শতাংশ হলেও গ্যাস্ট্রোনমিক্যাল ওষুধের প্রবৃদ্ধি ২১.৯৫ শতাংশ। কেন গ্যাস্ট্রোনমিক্যল ওষুধের এই বাড়বাড়ন্ত প্রবৃদ্ধি? দেশে গ্যাস্ট্রিক রোগীর সংখ্যা দ্রুত হারে বাড়ছে। যে কোনো হাসপাতালের গ্যাস্ট্রো এন্টারোলজি বিভাগের সামনে দাঁড়ালে দেখা যাবে, অন্য আর সব বিভাগের তুলনায় এ বিভাগের সামনে লাইন সবচেয়ে দীর্ঘ। স্বাস্থ্যসেবা খাত নিয়ে কাজ করেন এমন আন্তর্জাতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইএমএস হেলথ ও লংকা বাংলার গবেষণা প্রতিবেদন বলছে, ২০১৭ সালে বাংলাদেশের বাজারে সর্বাধিক বিক্রীত ১০টি ওষুধের মধ্যে ৬টিই গ্যাস্ট্রোনমিক্যাল। দেশের বিভিন্ন হাসপাতালের গ্যাস্ট্রো এন্টারোলজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধানরা স্বীকার করে বলেছেন, দেশের প্রাপ্ত বয়স্ক ৯০ শতাংশের গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা রয়েছে। পরবর্তী গবেষণায় হয়তো প্রমাণ হবে, কিশোর-তরুণদেরও ৯০ শতাংশ গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় আক্রান্ত। আপাতত জানা যাচ্ছে, গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ ক্যান্সারের চিহ্নগুলোকে সহজে লুকিয়ে ফেলে। ফলে রোগী বা ডাক্তার কেউই সহজে বুঝতে পারেন না যে, তাদের ক্যান্সার হয়েছে। এও প্রযুক্তির এক আশীর্বাদ ! অসুখ-বিসুখে হাওয়া বদলের একটা সংস্কৃতি চালু ছিল এ অঞ্চলে। ব্যাধির চেয়ে আধি বড় হয়ে উঠলে এবং নানা ছাপের ও মাপের ওষুধের শিশি কৌটো জড়ো হয়ে টেবিল ভর্তি হয়ে যাওয়ার পরও রোগীর অবস্থা অপরিবর্তিত থাকলে ডাক্তাররা পরামর্শ দিতেন হাওয়া বদলের। এতে কাজও হতো। এখন সে সুযোগ আছে? কোথায় হাওয়া বদল করতে যাবে রোগীরা? কিছুদিন আগে পর্যন্ত বাংলাদেশে রাজশাহী জেলার হাওয়া ছিল সবচেয়ে বিশুদ্ধ। রাজশাহী জেলার মানুষও ছিলেন সবচেয়ে সুখী। রাজশাহীর সে হাওয়া এখন কানায় কানায় সিসা আর কার্বনে ভরপুর। সুখী মানুষের তালিকা থেকেও বাদ পড়েছেন রাজশাহীর মানুষ। আমরা ধরে নিতে পারি, বিশুদ্ধ হাওয়া নেই; তাই সুখ নেই। মানুষ যে প্রকৃতির সম্প্রসারিত অংশ, এটাও তার এক প্রমাণ। আদিবাসীরা নিজেদের প্রকৃতির অংশ ভাবে, প্রকৃতিঘনিষ্ঠ পরিশ্রমী জীবনযাপন করে। ফলে তারা পেয়েছে দীর্ঘ আয়ু, রোগমুক্ত জীবন, মসৃণ প্রাণবন্ত ত্বক-চুল, ভারসাম্যপূর্ণ ওজন। ষাট-সত্তরের দশকে প্রায় প্রত্যেক বাড়িতে একটি ইঁদারা বা কুয়া থাকত। দীর্ঘ রশি দিয়ে বাঁধা বালতি দিয়ে কুয়া থেকে সেই পানি টেনে টেনে তুলতে হতো। কুয়া থেকে পানি তোলা পরিশ্রমের কাজ সন্দেহ নেই। কিন্তু সেই পরিশ্রমলব্ধ পানি পানের যে তৃপ্তি; দেয়ালে ঝোলানো সাত স্তরের ‘অসমস ফিল্টারের’ পানিতে সে তৃপ্তি নেই।
দুই. একুশ শতকের করপোরেট দুনিয়া এক স্মার্টফোনকেই সব কৃতকার্যতার চাবিকাঠি ধরে নিয়েছে। এখানে কৈশোরের সাফল্য নির্ধারিত হয় জিপিএ ৫-এ। তারুণ্যের সাফল্য নির্ধারিত হয় বিসিএস ক্যাডার হতে পারায় আর গোটা জীবনের সাফল্য নির্ধারিত হয় কোনো না কোনো ক্ষমতার আশ্রয়ে থাকায়, যে কোনো পন্থায় অর্থবান হতে পারায়। এ ক’টি ক্যাটাগরি ছাড়া বাদবাকিতে অকৃতকার্য। অর্থ, বিত্ত, ক্ষমতা, পদক পুরস্কারকে যারা কৃতকার্যের মানদণ্ড হিসেবে বিবেচনা করে, তাদের মোক্ষম জবাব দিয়েছিলেন জীবনানন্দ দাশ। লিখেছিলেন, আমার জন্ম হয়েছে অকৃতকার্য হওয়ার জন্য। কিন্তু আমাদের বিবেচনায় কৃতকার্য মানুষের তালিকায় সবার ওপরে থাকবে তার নাম। পৃথিবীর প্রত্যন্ত প্রান্তে একাকিনী কোনো নদীর তীরে খড়ের ঘর বেঁধে থাকতে চেয়েছেন। রক্ত নয়, মাংস নয়, কামনা নয়, দেখতে চেয়েছেন সোনালি রোদের ঢেউয়ে উড়ন্ত কীটের খেলা। দেখতে চেয়েছেন কীভাবে ভাদ্রের বিকেলের রোদ ঝুপ করে পড়ে যায়। দেখতে চেয়েছেন কী করে পাখিদের চোখ ঘুমে ভারি হয়ে আসে। ছায়াসিঁড়ি নদীর পাশে কীভাবে ধানক্ষেত হলুদ হয়ে আসে। সন্ধ্যার আকাশে ধূসর লক্ষ্মীপেঁচা উড়ে যায়। প্রথম হেমন্তের নরম গন্ধ কী করে প্রাণের ভেতর শান্তি বয়ে আনে। কিন্তু কুটিল বিশ শতক তাকে নিয়ে গেছে জটিল কলকাতায়। যেখানে তিনি হারিয়ে ফেলেছিলেন বরিশালের দেবদারু-পামের নিবিড় মাথা। হারিয়ে ফেলেছিলেন মাইলের পর মাইল জনবিরল দুপুরের গভীর বাতাস কীভাবে দূর শূন্যে চিলের পাটকিলে ডানার ভেতর অস্পষ্ট হারিয়ে যায়। হারিয়ে ফেলেছিলেন শেষ শরতের শুকনো পাতার রাশের ভেতর বালিহাঁসের বিবর্ণ ডিম।
তিন. প্রযুক্তি মানুষের জীবনকে সুব্যবস্থিত করে না। বরং কর্ণের চাকার মতো তাকে দাবিয়ে রাখে। মানুষ মৌলিকভাবে প্রাকৃতিক। তাই মাথার ওপর গাঙশালিকের দল উড়ে গেলে আমাদের ভালো লাগে। উঁচু গাছের মাথায় শরতের পিছলে পড়া কমলালেবু রঙা রোদ দেখতে ভালো লাগে। কাঁচপোকা আর গঙ্গাফড়িং দেখতে ভালো লাগে।
কাশের বন আর চোরকাঁটা ছেড়ে কোনো কাঠবিড়ালির ছুটে যাওয়া দেখতে ভালো লাগে। হলুদ পেঁপে পাতাকে ভুল করে একটি পাখি ভাবতে ভালো লাগে। মানুষ মৌলিকভাবে প্রাকৃতিক বলেই গল্পের বিষয়ের চেয়ে গল্প শোনার প্রতি আগ্রহ দেখায় যে শ্রোতা, সে-ই তার আবেগকে পরিতৃপ্ত করে।
চার. প্রকৃতি যদি হয় চেরাপুঞ্জি প্রযুক্তি, তবে গোবি কিংবা রাজস্থানের মরুভূমি। পৃথিবীতে তো মরুভূমিরও প্রয়োজন আছে। কিন্তু মরুভূমির প্রয়োজন বৃষ্টির চেয়ে বেশি নয়। যতটুকু মরুভূমি পৃথিবীতে মানায়, তার চেয়ে বেশি হলে যেমন বিপজ্জনক, প্রযুক্তিও তাই। মানুষ জন্ম নেওয়ার সবচেয়ে গভীরতর লাভ এই যে সজনে গাছের হালকা ডালে ঘাসের চেয়ে বেশি গাঢ় সবুজ পাখিগুলোকে প্রাণভরে দেখতে পাওয়া। মাঝ সংক্রান্তির রাতে অনন্ত নক্ষত্র বীথিকে দেখতে পাওয়া। চারপাশে বনের বিস্ময়কে দেখতে পাওয়া। একটি স্মার্টফোনের মুখোমুখি ঘাড় গুঁজে বসে থাকা ‘মানুষের সাথে যার হয়নাকো দেখা’ জীবন শতভাগ প্রযুক্তির। এই জীবন শেষ পর্যন্ত কোথায় নিয়ে যাবে মানুষকে, তা সুস্থিতভাবে ভাবা দরকার আবারও।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪