আজকের তারিখ- Sat-13-04-2024

নাগেশ্বরী বানুরখামার নিম্ন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে নিয়োগ নিয়ে অনিয়ম নিঃস্ব এক যুবক

নাগেশ্বরী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে এক নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির বিরুদ্ধে অফিস সহকারী পদে নিয়োগ নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার বানুরখামার নিম্ন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক জহুরুল হক ও সভাপতি আব্দুল বাতেন মিয়ার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ করেছেন ফরিদুল ইসলাম পলাশ নামের এক ভুক্তভোগী অফিস সহকারী।
অভিযোগে জানা যায় দীর্ঘ এক যুগ ধরে বিদ্যালয়টি এমপিওভুক্ত না হলেও সেখানকার অফিস সহকারী পদে ফরিদুল ইসলাম পলাশ বিনা বেতনে চাকরী করে আসছিলেন। এরই মধ্যে গত ২০১১ সালের ২৩ মার্চ ফরিদুলের নিকট থেকে ১ লাখ ৮০ হাজার টাকার বিনিময়ে সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক ফরিদুল ইসলামকে অফিস সহকারী পদের সমস্ত কার্যাদি ও দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়ে নিয়োগ প্রদান করেন। এরপর কিছুদিন পরে বিভিন্ন অযুহাতে আবারও ৫৩ হাজার টাকা হাতিয়ে নেন। এভাবে মোট ২ লাখ ৩৩ হাজার টাকা হাতিয়ে নেন ওই প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি।
এমতাবস্থায় গেলো ৬ জুলাই প্রতিষ্ঠানটি সরকার কর্তৃক এমপিও ভুক্তির ঘোষণা হয়। পরে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অফিস সহকারী ফরিদুলকে না জানিয়ে অন্য একজনকে দিয়ে অফিসের কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। এমনকী অফিসের হাজিরা খাতা থেকে তার নাম মুছে দিয়ে নতুন খাতা তৈরী করেন। বিষয়টি একাধিকবার সভাপতি ও প্রধান শিক্ষককে জানালেও কোনো কাজে আসেনি। এমনকী তাকে বাদ দিয়ে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে অন্য একজনকে গোপনে নিয়োগ দেয়ার পায়তারা করছে বলেও অভিযোগে উল্লেখ রয়েছে।
এদিকে ফরিদুল ইসলাম পলাশ অফিস সহকারী পদে বাহাল থাকার জন্য বারবার সভাপতি ও প্রধান শিক্ষককে বললে তার কাছে আরও ৮ লাখ টাকা দাবি করছেন। নয়তো তাকে চাকরি ছেড়ে যেতে বলেন।
ফরিদুল ইসলাম জানান তিনি এর আগে ভিটেমাটি বিক্রি করে ২ লাখ ৩৩ হাজার টাকা দিয়েছেন। এখন তার পক্ষে আবারও ৮ লাখ টাকা দেয়া সম্ভব নয়। তিনি বিনা বেতনে, জমিজমা বিক্রি ও ধার দেনা করার মাধ্যমে ২৬ মার্চ-২০১১ থেকে ৫ জুলাই ২০২২ সাল পর্যন্ত সততার সাথে, নিঃস্বার্থভাবে চাকরি করে আসলেও এখন চাকরি না পেয়ে এখন নিঃস্ব। তাই তিনি চাকরি ফিরে পেতে সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।
এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. জহুরুল ইসলামের কাছে মোবাইলে ফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমি কোনো বক্তব্য দেব না। বলে ফোন কেটে দেন।
সভাপতি মো. আব্দুল বাতেন বলেন, বর্তমানে আমি সভাপতি নেই। এ বিষয়ে আমার জানা নাই। সব প্রধান শিক্ষক জানেন। প্রধান শিক্ষকের নিকট সব কাগজপত্র।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. কামরুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত চলমান রয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-২০২৪
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )