আজকের তারিখ- Tue-20-02-2024

ভোটাধিকারের দাবিতে লেখক-শিল্পী-শিক্ষক-সাংবাদিকদের ‘মুক্তির যাত্রা’

যুগের খবর ডেস্ক: গণতন্ত্রের মুক্তি, স্বৈরাচারের পতন, মতপ্রকাশের স্বাধীনতা ও ভোটাধিকার রক্ষার দাবিতে রাজধানীতে ‘মুক্তির যাত্রা’ করেছেন লেখক-শিল্পী-শিক্ষক-সাংবাদিকরা। ‘কারার ঐ লৌহ কপাট’ ও ‘এই শিকল পরা ছল’সহ মুক্তির গানে গানে এই মিছিল জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে শাহবাগ পর্যন্ত হেঁটে এসেছে।

শুক্রবার (৮ ডিসেম্বর) বিকেলে ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘ভোটাধিকার আমার মত প্রকাশেরই অধিকার’ এবং ‘আমার কলম, আমার কণ্ঠ স্তব্ধ করা যাবে না’ এই দুই বার্তা নিয়ে মিছিলটি অনুষ্ঠিত হয়। পুরো যাত্রাপথে মিছিলটি ঘিরে রেখেছিলো পুলিশ।

মুক্তির যাত্রা শীর্ষক এই ব্যতিক্রমী গানের মিছিলে প্রতিকী ‘ভোটাধিকার’ আটকে রেখে একটি বদ্ধ খাঁচা বহন করেন আয়োজকরা। কালো কাপড় পরিহিত এই অংশটি মিছিলের অগ্রভাগে ছিল। আর পিছনে ‘মুক্তির যাত্রা’র গান গেয়ে শিল্পীরা দেশের বর্তমান পরিস্থিতি থেকে মুক্ত করার আহ্বান জানান।

এর আগে প্রেস ক্লাবের সামনে এই আয়োজনে যোগ দিয়ে লেখক, শিল্পী, শিক্ষক ও সাংবাদিকরা বলেন, বাংলাদেশ যে দীর্ঘমেয়াদি সংকটের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে তা থেকে মুক্তির লক্ষ্যেই এই আয়োজন।

শিল্পী ও চিন্তক অরুপ রাহী বলেন, ‘দেশে জুলুমশাহী কায়েম করা হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মানুষের স্বাধীনতা লুট করে রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিল করা হচ্ছে। দুঃখজনক যে এসবই হচ্ছে গণতন্ত্র ও উন্নয়নের নামে।’

লেখক রাখাল রাহা ইতিহাস তুলে ধরে জানান, এদেশেই স্বৈরাচার পতনের আন্দোলন হয়েছে। হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদকে ক্ষমতা থেকে হটিয়েছে দেশের স্বর্বস্তরের মানুষ। জনগণের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ হয়েছিলেন দেশের বুদ্ধিজীবীরা, মুক্তচিন্তার লেখক ও শিল্পীরা। অথচ দেশের বর্তমান শিক্ষক, লেখক ও শিল্পীদের একটা বড় অংশই ক্ষমতার পক্ষে দাঁড়িয়ে দেশকে পেছনে নিয়ে যাচ্ছেন। এ থেকে দায় মুক্তির লক্ষ্যে সংখায় সীমিত হলেও মুক্তচিন্তা ও সচেতন সমাজকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন রাখাল রাহা।

রাখাল রাহা আরও বলেন, নির্মম রাজনৈতিক বাস্তবতায় এখন কেউ কথা বলতে সাহস পায় না, প্রতিবাদ করতে সাহস পায় না। এই কতৃত্ববাদী শাসনের কবলে লেখক, সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবীসহ বিভিন্ন শ্রেণী আজ দালালে পরিণত হয়েছে। তারা এই সরকারের অপকর্মের সাফাই গাইছে। এখন এরকম টাউটদের বাম্পার ফলন ঘটেছে। এদের কারণেই এই সরকার বহাল তবিয়তে আছে। অথচ একসময়ে এই শ্রেণীর লেখনীতে, কবিতায় আর গানে মুক্তিযুদ্ধ তরান্বিত হয়েছিলো।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগে অধ্যাপক আসিফ নজরুল বলেন, ‘দেশের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শুরু করে পুলিশ, প্রশাসন এবং নির্বাচন কমিশন, আদালতসহ সব সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলো স্বাধীনতা কেড়ে নিয়ে ধ্বংস করা হয়েছে। এভাবে আরও চলতে থাকলে সংবিধানকে রক্ষা করা যাবে না। মুক্তির আর কোনো পথ খুঁজে পাবে না এই সংবিধান ও রাষ্ট্রের মালিক দেশের মানুষ।’

প্রতিহিংসার রাজনীতির মধ্য দিয়েই বিশ্বের বিভিন্ন দেশে স্বৈরতন্ত্রের উত্থান হয়েছে বলেও মত দিয়েছেন অধ্যাপক আসিফ নজরুল।

‘স্বৈরাচার নিপাত যাক’, ‘গণতন্ত্র মুক্তি পাক’, ‘লাথি মার ভাঙরে তালা, যতসব বন্দিশালা’, ‘ভোটাধিকার নাই, নাগরিক অধিকারও নাই’, ‘আমার ভোট আমার স্বাধীনতা, আমার ভোট আমার অধিকার’, ‘কারার ওই লৌহকপাট ভেঙে ফেল কর রে লোপাট’, ‘বাঁধন ছেড়ার হয়েছে কাল…’ ইত্যাদি স্লোগান লেখা প্ল্যাকার্ড ও স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে শহিদ নূর হোসেনের ছবি হাতে অংশ নেন বিক্ষোভকারীরা।

এই ‘মুক্তির যাত্রা’য় অংশ নিয়ে ছিলেন সংগীত শিল্পী ফারজানা ওয়াহিদ সায়ান, কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক মাহবুব মোর্শেদ, কথাসাহিত্যিক এহসান মাহমুদ, রাহমান মুস্তাফিজ, সাংবাদিক সাঈদ খান, শিল্পী অমল আকাশ, সংগীত শিল্পী বিথী ঘোষ, এক্টিভিস্ট আবু হানিফসহ শতাধিক লেখক, শিল্পী, কবি, সাংবাদিক, অ্যাক্টিভিস্ট ও রাজনৈতিক কর্মী।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-২০২৪
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )