আজকের তারিখ- Fri-19-07-2024

রৌমারীতে ব্রহ্মপুত্রের ভাঙনের কবলে হাজারো পরিবার

মাসুদ রানা, রৌমারী (কুড়িগ্রাম): বন্যার পানি শুকিয়ে গেলেও কয়েকদিনের ভারী বর্ষণে ও ভারতীয় পাহাড়ী ঢলে ব্রহ্মপুত্র নদে তীব্র স্রোতের সৃষ্টি হয়েছে। এতে ভাঙনের কবলে পড়েছে হাজারো পরিবার। ক্রমে পাল্টে যাচ্ছে কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারী উপজেলা। বছরের পর বছর নদী ভাঙনের ফলে নতুন নতুন গ্রাম থেকে চরের জন্ম হচ্ছে। এতে ঘর-বাড়ি ফসলি জমি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গাছপালা বিলীন হয়ে যাচ্ছে নদীতে। অসহায় মানুষ তাদের বাপ-দাদার ভিটে মাটি হারিয়ে পরিণত হচ্ছে ভূমিহীনে। গত কয়েক দিনে উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের ১৫টি গ্রামের প্রায় ৫শত পরিবারের ঘরবাড়ি, প্রাথমিক বিদ্যালয়, মসজিদ, মাদ্রাসা, কাচাঁ পাকা রাস্তা নদী গর্ভে হারিয়ে গেছে।
নদী ভাঙনে অসহায় মানুষ আশ্রয় নিয়েছে বিভিন্ন রাস্তা, উঁচুস্থানে, আশ্রয়ন প্রকল্পে ও আত্মীয় স্বজনদের বাড়িতে। ঝুপড়ি তুলে তারা মানবেতর জীবনযাপন করছে।

ভাঙনের মুখে বিলীন হওয়া গ্রামগুলো হলো রৌমারী উপজেলার ইটালুকান্দা, সাহেবের আলগা, চর গেন্দার আগলা, ঘুঘুমারী, খেরুয়ারচর, খেদাইমারী, পশ্চিম বাগুয়ারচর, বাইসপাড়া, বলদমারা, পশ্চিম পাখিউড়া ফলুয়ার চর, পালের চর, ধনারচর, দিগলাপাড়া, তিনতেলী বাগুয়ারচর, বাইটকামারী ধনারচর ও দিগলাপাড়া।

জানা গেছে, এসব এলাকার কোনো কোনো পরিবার ৭ বারও নদী ভাঙনের শিকার হয়েছে। এরকম পরিবারের সংখ্যা ১৭’শয়ের অধিক। যেহারে ভাঙন এগিয়ে চলছে তাতে জরুরি কোন পদক্ষেপ না নিলে আগামীতে উপজেলা পরিষদ ভবনসহ সরকারের কয়েক হাজার কোটি টাকার সম্পদ নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাবে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড ভাঙনের কবল থেকে উপজেলা শহর রক্ষার জন্য অপরিকল্পিত ভাবে কয়েকশ কোটি টাকার প্রকল্প গ্রহণ করলেও বাস্তবে তেমন কোন কাজে লাগছে না। চলছে দুর্নীতি আর লুটপাট। ফলে নদী ভাঙনে মানুষ দিন দিন নিঃস্ব ও ভূমিহীন হয়ে পড়ছে। সেক্ষেত্রে রৌমারী উপজেলাটি সম্পূর্ণরূপে মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাবে।

রৌমারীর পালেরচর গ্রামের ছোরমান মাঝি বলেন, আমাদের এক সময় অনেক সয়-সম্পত্তি ছিল। বর্তমানে সব নদীতে ভেসে গেছে। রাস্তার ধারে পলিথিন কাগজের ছাপড়া দিয়ে পোলাপান নিয়া কোন মতে বাইচা আছি।

উত্তর ফলুয়ারচর গ্রামের জব্বার, আছমা বেগম, নুরুন্নবী, হাজেরা, কাওসার, আমজাদ, কছিম, রহমত, আক্কাছ, জবেদ, সামছুল, আকবর, রহিম জানান, দিনের পর দিন নদীর ভাঙনে বসতবাড়ি, ফসলি জমি নদী গর্ভে বিলিন হচ্ছে। প্রতি বছরই নদী ভাঙনে আমাদেরকে আতঙ্কে থাকতে হয়। আমরা শুনেছি বর্তমান সরকার এ নদের বাম তীর ভাঙন থেকে রক্ষা পেতে ৪শত ৭৯ কোটি ২৩ লাখ টাকার প্রকল্প নিয়েছে। দ্রুত কাজটি করলে হয়তো আমরা নদী ভাঙন থেকে রক্ষা পাবো।

বন্দবেড় ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান ও বন্দবেড় ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ সভাপতি আলহাজ্ আব্দুল কাদের ও সিএসডিকে পরিচালক আবু হানিফ মাস্টার এবং খেদাইমারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাধান শিক্ষক ও বন্দবেড় ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, নদী ভাঙনের কবলে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ মাদ্রাসাসহ হাজার হাজার বাড়ি ঘর নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে ।আরো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ রৌমারী উপজেলার প্রায় ১০হাজার পরিবার হুমকির মুখে রয়েছে।

রৌমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ আব্দুল্যাহ বলেন, গত ১ বছরে রৌমারী উপজেলার প্রায় ১ হাজার পরিবার নদী ভাঙনের কবলে পড়ে উদবাস্তু হয়েছে। এ সব পরিবারের একটি বড় অংশ ঢাকা শহরসহ দেশের বিভিন্ন শহরে বস্তিতে বসবাস করছে। উদবাস্তু পরিবারের পুনর্বাসন ও নদী ভাঙন রোধ না করলে আগামী ২/৩বছরের মধ্যে বাংলাদেশের মানচিত্র থেকে রৌমারী নামের উপজেলাটি বিলিন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তবে দুটি উপজেলার নদী ভাঙ্গন রোধে টেন্ডার হয়েছে।
দ্রুতগতিতে কাজ করলে হয়তো রৌমারী উপজেলাটি নদী ভাঙন থেকে রক্ষা পাবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-২০২৪
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )