চিলমারীতে আমন ধানের বাম্পার ফলন ॥ কৃষকের মনে স্বস্থি

Chilmari News 13-11-17 (1)

এস,এম নুআস: কুড়িগ্রামের চিলমারীতে ক’ দফা বন্যার পরও আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। স্বস্থি ফিরে এসেছে কৃষকদের মাঝে। মাঠে মাঠে আধা পাকা ধান বাতাসে খেলছে। আর মাত্র ক’ দিনের অপেক্ষা, তার পরই সোনালী ধানগুলো উঠবে কৃষকের গোলায়। বাড়ীতে বাড়ীতে বানানো হবে নানা ধরনের ধানের পিঠা, স্বাগত জানানো হবে নতুন শীতকে। বন্যার পর লক্ষ্যমাত্রার দ্বিগুন জমিতে ধান বপন করা হয়, ফলে ছাড়িয়ে যায় লক্ষ্যমাত্রা। তাই উৎপাদনও হবে দ্বিগুন।
এবারে চলতি আমন মৌসুমে প্রায় ৩ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে আমন ধানের চারা রোপন করা হয়। কিন্তু মৌসুমের শুরুতেই কয়েক দফা বন্যা হওয়ায় কৃষকদের বিভিন্ন প্রকারের ফসলহানি সহ ধানের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়। বন্যার পর কৃষকরা জীবন বাঁচানোর তাগিদে ধারদেনা করে দূর-দূরান্ত থেকে অত্যন্ত চড়া দামে আমন ধানের চারা সংগ্রহ করে রোপন করেন। যা লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যায়। বাঁচার তাগিদেই কৃষকরা কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে পরিচর্যার মধ্যদিয়ে পূর্ণাঙ্গ ক্ষেতে পরিণত করে। ফল স্বরুপ ফলনও হয়েছে বাম্পার। উপজেলার রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের দক্ষিন খামার এলাকার আব্দুল মজিদ (৫০) জানান, তিনি প্রায় ২ একর জমিতে আমন ধান রোপন করেন। এর মধ্যে একশ বিশ শতক জমিতে পোকা আক্রমণ হলেও পরে তা কাটিয়ে উঠেন। বর্তমানে মাঠের ধান দেখে তিনি পূর্বের কষ্ট ভুলে গেছেন। একই এলাকার ইসাহক আলী (৫৫) মোনাফ আলী (৪৫), নুরু মিঞা (৪০), মাজেদুল ইসলাম (৫২) জানান, তাদের সকলের ক্ষেতে ব্যাপক পোকার আক্রমণ হয়ে ছিল, তার পরও ধানের ফলন ভাল হয়েছে। থানাহাট ইউনিয়নের জাহেদুল (৪০), মশিউর রহমান (৫২) ও সাজু মিঞা (৫০) জানান, ধানের ফলন দেখে তারা খুব সন্তোষ্ট। চর বড়ভিটা এলাকার কৃষক হাসান মিঞা (৩৫), রহিম মিঞা (৬৫) ও হালিম মিঞা (৭৯) বলেন, কয়েক দফা বন্যার পর এতো ভালো ফলন হবে তারা সেটা আশা করেনি। ধানের ফলন তাদের বুকে শান্তির বাতাস বইয়ে দিয়েছে।
স্থানীয় কৃষি অফিসের সূত্র মোতাবেক, চলতি খরিপ-২ মৌসুমে চিলমারী উপজেলায় আমন ধানের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছিল ৩৫৪০ হেক্টর জমি। অর্জিত হয়েছে ৮০৫০ হেক্টর। এর মধ্যে হাইব্রীড ৩০ হেক্টর, উফসী ২৬৫০ হেক্টর এবং স্থানীয় ৫৩৭০ হেক্টর। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ খালেদুর রহমান জানান, আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে সম্ভাব্য উৎপাদন হতে পারে ২২,৭০১ মেট্রিক টন চাউল। তিনি আরও জানান, কৃষি অফিসের সহযোগিতায় প্রতিটি ১ একর জমিতে ১ টি করে মোট ৩০টি প্রদর্শনী প্লট স্থাপন করা হয়েছে। যার মধ্যে ব্রী ধান-৫২  এর ২০টি এবং ব্রী-ধান ৪৯ এর ১০টি প্রর্দশনী প্লাট রয়েছে। এছাড়াও রাজস্ব খাতে আরও ৫টি প্রদর্শনী প্লট রয়েছে। প্রর্দশনী প্লটগুলির জন্য বিনামূল্যে সার ও বীজ সরবরাহ করা হয়েছে। সেই জমিগুলিতেও বাম্পার ফলন হয়েছে।

Leave a Reply

You must be logged in to post a comment.

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচ¬িত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৪