আজকের তারিখ- Fri-12-07-2024
 **   ‘আন্দোলনের মাধ্যমে আইনশৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে বরদাস্ত করা হবে না’ **   কোটা আন্দোলনে কিছুটা রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র আছে: আইনমন্ত্রী **   শিক্ষার্থীদের পুঁজি করে বিএনপি আন্দোলনের পাঁয়তারা করছে: কাদের **   যেসব সিনেমায় কাজ করতে চান মাহি **   সরকার চাইলে কোটা পরিবর্তন করতে পারবে : হাইকোর্ট **   দেশের অর্ধেক মানুষ চিকিৎসার জন্য বিদেশে যান: স্বাস্থ্যমন্ত্রী **   পুতুল অসুস্থ থাকায় রাতেই দেশে ফিরছেন প্রধানমন্ত্রী: পররাষ্ট্রমন্ত্রী **   বাংলাদেশকে ১০০ কোটি ডলার অর্থনৈতিক সহায়তা দেবে চীন **   আদালতের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে যাওয়ার অনুরোধ কাদেরের **   ডা. সাবরিনাসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

জাতীয় শোক দিবস: বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়তে হবে

চিলমারী , মঙ্গলবার, ১৫ আগষ্ট, ২০২৩খ্রিঃ
আজ ১৫ আগস্ট। জাতীয় শোক দিবস। ১৯৭৫ সালে এই দিনে আমরা হারিয়েছি স্বাধীন বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের অধিকাংশ সদস্যকে। সেনাবাহিনীর বিপথগামী একদল ঘাতকের হাতে নৃশংস হত্যাকান্ড ছিল জাতির ইতিহাসে বড় কলঙ্ক। দেশের স্থপতি ও নির্বাচিত রাষ্ট্র্রপ্রধানকে তার পরিবারের সদস্যসহ এমন নির্মমভাবে হত্যার ঘটনা পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল।
রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের মধ্যে দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশ যখন বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে একটি সুখী ও সমৃদ্ধ জাতি হিসেবে গড়ে ওঠার প্রয়াস পাচ্ছিল, তখন সে প্রয়াস ব্যর্থ করে দিতে সংঘটিত হয় ইতিহাসের নৃশংসতম হত্যাযজ্ঞ। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে দেশ ও জাতিকে বিপথগামী করার অপচেষ্টা চালানো হয় পরবর্তীকালে। একটি স্বাধীন ও গণতান্ত্রিক দেশে বছরের পর বছর এ নৃশংস হত্যাকান্ডের বিচারের পথ রুদ্ধ থাকা ছিল আইনের শাসনের পরীপন্থী। খুনিদের বিচার ও শাস্তি নিশ্চিত করার পরিবর্তে তাদের সুরক্ষার জন্য জারি করা হয় ইনডেমনিটি আইন। তাদের পুরস্কৃত করা হয় লোভনীয় ও লাভজনক চাকরি দিয়ে। পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর অবদান মুছে ফেলার প্রক্রিয়াও চালানো হয়েছে নানাভাবে। বাংলাদেশ যাতে স্বাভাবিক পথে সামনে এগিয়ে যাওয়ার দিশা হারিয়ে ফেলে, সেজন্য জাতীয় রাজনীতি হয়ে ওঠে ষড়যন্ত্রনির্ভর।
তবে স্বস্তির বিষয়, অনেক দেরিতে হলেও বঙ্গবন্ধু কন্যা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকার নির্মম এ হত্যাকান্ডের বিচার সম্পন্ন করেছে। কয়েকজনের মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়েছে। এর মধ্যদিয়ে জাতি কলঙ্কমুক্ত হয়েছে। তবে বঙ্গবন্ধুর অন্য খুনিরা পালিয়ে বেড়াচ্ছে বিভিন্ন দেশে। তাদের দেশে এনে শাস্তি কার্যকর করতে হবে। এ ব্যাপারে বর্তমান সরকার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তবে তৎপরতা আরো বাড়ানো প্রয়োজন।
বঙ্গবন্ধুর সমগ্র জীবনে একটিই ব্রত ছিল- বাংলা ও বাঙ্গালির মুক্তির জন্য নিজেকে উৎসর্গ করা। এর শুরু ১৯৪৮ সাল থেকে। ১৯৪৭ সালে দ্বিজাতীতত্ত্বের ভিত্তিতে পাকিস্তান সৃষ্টির পরপরই তিনি উপলব্ধি করেছিলেন, এই রাষ্ট্র কাঠামোর মধ্যে আমরা বাঙালিরা নির্যাতিত-নিষ্পেষিত হব। তাই এ থেকে জনগণের মুক্তির জন্য তিনি বেছে নিয়েছিলেন আন্দোলন-সংগ্রামের পথ। ১৯৫২-এর মহান ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে ‘৫৬-এর শাসনতন্ত্রের জন্য আন্দোলন, ‘৬২-এর ১৭ সেপ্টেম্বরের শিক্ষা আন্দোলন, ’৬৪-এর সাম্পদায়িকতা বিরোধী আন্দোলন, ’৬৬-এর ছয় দফা আন্দোলন, ‘৭০-এর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নিরস্কুশ বিজয়- প্রতিটি ক্ষেত্রেই বঙ্গবন্ধুর ছিল বলিষ্ঠ নেতৃত্ব। বাংলাদেশ ও বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে একাত্তরের ১৬ ডিসেম্বর স্বাধীন বাংলাদেশ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা লাভ করে।
দীর্ঘ সংগ্রামী জীবনে জেল-জুলুম, অত্যাচার-নির্যাতন আর স্বৈরশাসকের রক্তচক্ষু ছিল বঙ্গবন্ধুর নিত্যসঙ্গী। তিনি নিশ্চিত মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েছেন বহুবার। একাধিকবার ফাঁসির মঞ্চ তৈরি হয়েছিল তার জন্য। বাঙালির প্রতি তার বিশ্বাস ও আস্থা ছিল আকাশচুম্বি। সেজন্যই হাসিমুখে, নির্ভীকচিত্তে মানুষের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে সব ধরনের জুলুম-নির্যাতন বরণ করেছেন তিনি।
ইতিহাসে যার স্থান সুনিদিষ্ট ও স্বীয় মহিমায় সমুজ্জ্বল, তাকে অস্বীকারের মূঢ়তা ও ধৃষ্টতা বিভিন্ন সরকারের আমলে কম দেখানো হয়নি। এতে সাময়িক সুবিধা হাসিল করা গেলেও চুড়ান্ত বিচারে তা সফল হয়নি। বরং মৃত বঙ্গবন্ধু হয়ে উঠেছেন আরো শক্তিশালী। জাতির ইতিহাসে অবিস্মরণীয় অবদানই তাকে অজেয় করে রেখেছে। আজ শেখ মুজিব এক চেতনার নাম, আদর্শের নাম। সারা বিশ্বের কোটি কোটি মুক্তিকামী মানুষের অনিঃশেষ প্রেরণা শেখ মুজিব। তাই জাতীয় শোক দিবসে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর পাশাপাশি তার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার প্রতিজ্ঞা করতে হবে। তিনি যে বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন, সেই গণতান্ত্রিক, অসাম্প্রদায়িক, সমতাভিত্তিক সুখী ও সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ে তোলার অঙ্গীকার পূরণে গোটা জাতিকে উদ্যোগী হতে হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-২০২৪
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )