আজকের তারিখ- Tue-18-06-2024

স্কুলে জমি দাতার শর্তভঙ্গ রৌমারীতে নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নানা অনিয়মের অভিযোগ

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের রৌমারী শৌলমারী ইউনিয়নের ডাঙ্গুয়াপাড়া রাবেয়া কাদের নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের জমিদাতার শর্তভঙ্গসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। এ অভিযোগ গড়িয়েছে জেলা প্রশাসকসহ থানা কোর্ড পর্যন্ত।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে,নিজ নামে বোয়ালমারী মৌজার আরএস ২২১৮ নং খতিয়ানের ১৮২১ নং দাগের রেকোডিও ৩৮ শতাংশ জমির মধ্যে দুই সন্তানকে সহকারি শিক্ষক পদে চাকুরি দেওয়ার শর্ত অনুযায়ী ১২ শতাংশ জমি প্রতিষ্ঠানের নামে দলিল এবং প্রতিষ্ঠান নির্মানের জন্য ৩ লাখ টাকাও দেয়া হয়। সেই মোতাবেক তার দুই সন্তান রেজেনা খাতুন ও নবির হোসেন (২০১৫) সাল প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে অত্র বিদ্যালয়ে নির্বিগ্নে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। কিন্তুু কি এক অজানা কারণে প্রধান শিক্ষক আনোয়ার হোসেন জমিদাতার শর্তভঙ্গ করে বিদ্যালয়ের শূন্য পদে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে নিয়োগ দেওয়ার চেষ্টা করছেন। এদিকে বিদ্যালয়টি বর্তমানে অভিযোগকারীর জমির মধ্যে অবস্থিতও বটে।
অন্যদিকে অভিযোগে আরো উল্লেখ্য যে, প্রধান শিক্ষক আইজুদ্দিন ও মনিরুল ইসলামেরর নিকট নিয়োগ দেয়ার নামে অর্থ আত্মসাত, প্রতিষ্ঠানের সামনে কেজি স্কুল নির্মান, প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নেই। ভাড়াটিয়া শিক্ষক ও শিক্ষার্থী দিয়ে পরিচালিত, স্কুলের নিজস্ব মাঠ নেই, স্কুলের সামনে অন্যের জমি, নিজ স্কুলে মাত্র ৩৫ থেকে ৪০ জন শিক্ষার্থী এবং নিয়মিত খোলা হয় না স্কুল, জেনুইন ও সাদেক মেমোরিয়াল প্রাইভেট স্কুলের সাথে যোগসাজসে ছাত্র/ছাত্রী দেখিয়ে বোর্ড থেকে তদন্তটিমকে দেখিয়ে সাধু সাজা ও আর্থিকভাবে লাভোবান হওয়া, অন্যের রেকোডিও সম্পত্তি কৌশলে বন্দবস্ত করে নেয়া, প্রধান শিক্ষক হয়েও এমআর স্কুলে সহকারি শিক্ষক পদে নিয়োগ নেয়া, প্রতিষ্ঠানে নিয়োগকৃত শিক্ষক না থাকলেও ভাড়াটিয়া লোকজনদেরকে আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট গ্রহনে দায়িত্বে থাকার জন্য শিক্ষা অফিসে তালিকা দেয়া, নিয়োগকৃত শিক্ষক না থাকলেও ভাড়াটিয়া লোক শিক্ষক দেখিয়ে প্রশিক্ষনে দেয়া, ৯ম ও ১০ শ্রেণীতে পাঠদানের অনুমতি পেলেও নেই শিক্ষক ও শিক্ষার্থী।
স্থানীয় এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, বিদ্যালয়ে ভাড়াটিয়া শিক্ষক থাকলেও আসেন না সময় মত, ছাত্র-ছাত্রী খুবই কম, বেশির ভাগ সময় স্কুল বন্ধ থাকে।
অভিযোগকারী জমিদাতা আব্দুর রাজ্জাক বলেন, একদিকে এই অজোপাড়া গায়ে শিক্ষার আলো ছড়াতে এবং অন্যদিকে আমার দুটি শিক্ষিত ছেলে মেয়েকে সহকারি শিক্ষক পদে চাকুরি নিয়োগে স্কুল প্রতিষ্ঠার জন্য ১২ শতক জমি দলিল করে দেই। সেই সাথে প্রতিষ্ঠান নির্মানের জন্যও ৩ লাখ টাকা দেয়া হয়। কিন্তুু প্রতিষ্ঠান নির্মানের পর থেকে ছেলে মেয়ে প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা করে আসছিল। এখন বলছে নিয়োগ দেয়া সম্ভব নয়। এতে আমার জমির দলিলে শর্তমোতাবেক ভঙ্গ করছে প্রধান শিক্ষক।
প্রধান শিক্ষক আনোয়ার হোসেন বলেন, শিক্ষক নিয়োগের শর্ত ছিল। কিন্তু বর্তমানে শিক্ষা অধিদপ্তরের নিয়ম মতে তাদের সহকারি শিক্ষক পদে নিয়োগ দেয়া সম্ভব নয়।
প্রতিষ্ঠানের সাবেক সভাপতি মিষ্টার বলেন, জমিদাতার সাথে শর্ত ঠিক ছিল। কিন্তু শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নিয়ম শিক্ষক নিবন্ধন ছাড়া নিয়োগ দেয়া সম্ভব নয়। তাছাড়াও আমরা এ নিয়োগ দেয়ার কেউ নই।
উপজেলা মাধ্যমিক একাডেমিক সুপারভাইজার মুক্তার হোসেনের সাথে কথা হলে তিনি জানান, প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে অভিযোগেও এর আগে অনেকবার বসা হয়েছিল। সমাধানের চেষ্টাও করা হয়েছে। কেনজানি বারবার এমন ঘটনা ঘটছে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদ হাসান খান এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, অভিযোগের তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-২০২৪
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )