আজকের তারিখ- Tue-20-02-2024

চার বছর ধরে তেল শুন্য চিলমারীর ভাসমান তেল ডিপো

এস, এম, নুআস: কুড়িগ্রামের চিলমারীতে দীর্ঘ চার বছর ধরে ভাসমান তেল ডিপো যমুনা অয়েল কোম্পানি লিমিটেড ও মেঘনা পেট্রোলিয়াম লিমিটেড এর বার্জ দুটি তেল শুন্য হয়ে পরে আছে। সংশ্লিস্টদের অবহেলায় ডিপো দুটি তেল শুন্য হয়ে আছে বলে এলাকাবাসীসহ বিভিন্ন ব্যক্তিদের অভিযোগ। অপর দিকে ডিপো দুটি তেল শুন্য হয়ে পরে থাকায় সেখানে দৈনিক হাজিরার ভিত্তিতে কর্মরত কর্মচারীসহ ডিপো সংশ্লিষ্ট কাজে নিয়োজিত শ্রমিকরা পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে।
জানা গেছে, ১৯৮৯ সালে ভাসমান তেল ডিপো যমুনা অয়েল কোম্পানি লিমিটেড ও মেঘনা পেট্রোলিয়াম লিমিটেড স্থাপিত হয়ে কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, জামালপুর ও লালমনিরহাটের কয়েকটি উপজেলায় জ্বালানি তেল সরবরাহ করে আসছে। ডিপো দুটির ২২ জন ডিলার সরকারিভাবে প্রদত্ত দরে জ্বালানি ক্রয় করে খুচরা বিক্রেতাদের নিকট সরবরাহ করে আসছিল। খুচরা ব্যাবসায়ীরা সামান্য মুনাফায় তেল বিক্রি করতেন। ২০২০ সালের ৮ জানুয়ারি তারিখে যমুনা অয়েল কোম্পানি লিমিটেড এর তেল শেষ হয়ে যাওয়ার পর থেকে কর্তৃপক্ষের অবহেলায় অজানা কারণে ডিপো দুটিতে আর তেল আসছেনা। তেলের দাম বৃদ্ধি, ডিপো দুটিতে তেল শুন্য হয়ে পড়ায় পার্বতীপুর অথবা রংপুর ডিপো থেকে ১০৫.০৮ টাকায় কিনে সড়ক পথে তেল পরিবহন করলে ১ লড়ি অর্থাৎ ১৫ হাজার লিটার তেল অতিরিক্ত পরিবহন ঘাটতি ও লেবার খরচ হয় প্রায় ২০ হাজার টাকা, যা প্রতি লিটারে ১ টাকা ৫০ পয়সা বেশি, সবমিলে ডিলারদের তেল কিনতে হয় প্রায় ১০৭.৫০ টাকায়। এরপর পাইকারি বিক্রেতা থেকে খুচরা ক্রেতা। এর ফলে কৃষকদের তেল কিনতে হচ্ছে ১১১ টাকায়। ভাসমান ডিপো দুটি উপজেলার চাহিদা মেটানোর পরও রৌমারী, রাজিবপুর, সাহেবের আলগা, যাত্রাপুর, উলিপুর, গাইবান্ধার জেলার কামারজানি সুন্দরগঞ্জসহ বিভিন্ন জায়গায় সেচ মৌসুমে এই ভাসমান ডিপো দুটি থেকে প্রতি দিন তেলের চাহিদা প্রায় ৯০০/৯৫০ ব্যারেল। নদ নদীতে নৌকা, ড্রেজার, শ্যালো মেশিন, পাওয়ার টিলারসহ বিভিন্ন সরকারি বে-সরকারি প্রতিষ্ঠানে জেনারেটরসহ বিভিন্ন কাজে চালানোর জন্য প্রতি দিন প্রায় অতিরিক্ত ১০০/১৫০ ব্যারেল তেলের চাহিদা রয়েছে। এছাড়াও বর্তমানে বিভিন্ন চর অঞ্চলে ভুট্টা চাষেও সেচে প্রতি দিন ২০ হাজার থেকে ৩০ হাজার লিটার তেলের চাহিদা রয়েছে। ডিলাররা পারবর্তীপুর/ রংপুর ডিপো থেকে তেল নিয়ে স্থানীয়সহ বিদ্যমান এলাকায় তেলের চাহিদা পূরণ করতে অতিরিক্ত অর্থ গুণতে হচ্ছে ভোক্তাদের। শুধু তাই নয় এভাবে চলতে থাকলে ডিলারদের হাতে থাকা দীর্ঘদিনের বিক্রিতা ও ক্রেতা হাতছাড়া হচ্ছে। ফলে চিলমারীর তেল ব্যবসায়ীরা বিক্রেতার নিকট পরে থাকা দীর্ঘদিনের বাকি অর্থ উত্তোলন করতে না পারায় আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। অপর দিকে ডিপো দুটি দীর্ঘদিন যাবত বন্ধ থাকায় সেখানে দৈনিক হাজিরা ভিতিত্বে কর্মরত ১৭জন কর্মচারীসহ প্রতিদিন খেটে খাওয়া প্রায় ২৫০ জন শ্রমিক কাজ না থাকায় পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।
এব্যাপারে মেঘনা পেট্রোল লিঃ বার্জ ইনচার্জ মোঃ মহসিন হোসেনের সাথে কথা হলে তিনি জানান, তেল বিষয় হেড অফিস থেকে আমাকে কিছু বলা হয়নি।
অপরদিকে যমুনা অয়েল কোম্পানি লিঃ এজিএম, (ডিপো অপারেশন) মোঃ জাহিদ মুরাদ বলেন, চিলমারীতে এখন তেল যাবে না। অপর একটি ডিপো করার চিন্তা ভাবনা চলছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com, smnuas1977@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-২০২৪
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )