আজকের তারিখ- Wed-29-05-2024

বাঁধের নিচে মানবেতর জীবন যাপন হকার সায়েদের

এস, এম নুআস: হকার সায়েদ আলী রমনা বাঁধের নিচে ৮ ছেলে মেয়েকে নিয়ে বসবাস। সারাদিন হকারী করে যা আয় হতো তা দিয়েই চলতো তার সংসার। কয়েকবার নদী ভাঙ্গনের পর আশ্রয় নিয়েছিলেন কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার রমনা মাষ্টার পাড়া বাঁধে। পানি উন্নয়নের বোর্ডের নোটিশ ও উচ্ছেদ অভিযানে ভেঙ্গে নিতে হয় থাকার ঘরটি। আশ্রয়হীন হয়ে পড়ে সায়েদ আলী। কোন স্থান না থাকায় বাঁধের নিচে ছোট একটি ছাপরা ঘরে ৮ ছেলে মেয়েকে নিয়ে শুরু করেন কষ্টের দিন। রোজগারের একমাত্র পথ ছিল তার হকারী। কিন্তু করোনার থাবার একমাত্র আয়ের অবলম্বন এখন বন্ধ। তার কাজ ছিল জনসমাগম করে ঔষধ বিক্রি করা। সারাদিন হকারী করে ঔষধ বিক্রি করে যা আয় হতো তা দিয়েই সংসারের খরচসহ ছেলে মেয়েদের পড়াশুনা চালিয়ে নিত। কিন্তু করোনার ঝড়ে এখন বন্ধ হয়েছে তার আয়ের একমাত্র উৎস। একমাত্র আয়ের উৎস বন্ধ হওয়ায় পরিবার পরিজন নিয়ে বড় বিপাকে পড়েছে সায়েদ আলী। নেই আয় নেই জমানো টাকা বড় কষ্টে দিন করতে হচ্ছে পাড়। দিন কাটলেও রাতে ছোট একটি ঘরে গাদাগাদি করে থাকতে হচ্ছে ছেলে মেয়েদের নিয়ে। খোজ নিয়ে জানা গেছে সায়েদ আলীর ছেলে মেয়ের মধ্যে বড় মেয়ে শাহিনুরের বিয়ে হলেও ঘরবাড়ি আর টাকা পয়সা না থাকায় উপযুক্ত বাকি ছেলে মেয়েদেরও বিয়ে দিয়ে পাচ্ছেনা তিনি। মেয়ে শাহনাজ মাষ্টার্স পাশ করে রয়েছে ঘরে বসে, অপর মেয়ে কুড়িগ্রাম সরকারী কলেজ থেকে ডিগ্রী পড়ছে। ছেলে সুমন এখন ডিগ্রী ১ম বর্ষের ছাত্র, সুজনের তেমন পড়াশুনা না করলেও ঢাকায় একটি প্রতিষ্ঠানে চাকরী করতো কিন্তু করোনার কারনে সেও চলে এসেছে বাড়িতে। ছোট ছেলে সাগর ৭ শ্রেনীর ছাত্র। মেয়ে নদী ৪র্থ ও দিঘি ১ম শ্রেনীর ছাত্রী। ছেলে সুমন জানায় উচ্ছেদ অভিযানে সব ভেঙ্গে নিতে হয়েছে থাকার কোন জায়গা না থাকায় বাঁধের পাশেই থাকতে হচ্ছে। অপর ছেলে সুজন বলেন দিনে তো রাস্তার উপর থাকি কিন্তু রাতে ১৩ হাত একটি ঘরে পরিবারের ৯সদস্যকে গাদাগাদি করে খুব কষ্টে থাকতে হচ্ছে। সায়েদ আলী স্ত্রী বেলেদা বেগম জানান অভাবী সংসার স্বামীর আয়ের উপর ছিল ভরসা কিন্তু করোনা ভাইরাসের জন্য আয় রোজগার বন্ধ বড় বিপদে আছি। এর উপর বিয়ের উপযুক্ত মেয়েদের নিয়ে নির্জন একটি ভাঙ্গা ঘরে খুব ভয়ের রাত কাটতে হচ্ছে। হকার সায়েদ আলী বলেন বাবারে অভাবি সংসার তার উপর এখন আয় রোজগার বন্ধ নেই জায়গা জমি থাকতে হচ্ছে বাঁধের নিচে বড় কষ্ট করে। তিনি আরো জানান জায়গা না থাকায় বাঁধের সরকারী জমিতেই থাকছি পড়ি এর উপর পাশের জমির মালিক বারবার দিচ্ছে হুমকি দেখাচ্ছে ক্ষমতার দাপট। সায়েদ আলী কষ্টে দিনাপাত করলেও এখনো মিলেনি সরকারী বা বে-সরকারী কোন সাহায্য। রমনা ইউপি চেয়ারম্যান জানান তাদের ভোট চিলমারী ইউনিয়নে তবে একটি মেয়ের ভোট রমনা ইউনিয়নে তবুও বিষয়টি আমি দেখবো। সায়েদ আলী কষ্টে আছে তা স্বীকার করে চিলমারী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ গওছল হক মন্ডল বলেন সম্ভবত ১০ কেজি চাল দেয়া হয়েছে। তিনি জানান বরাদ্দ অনেক তাই হিমশিম খেতে হচ্ছে। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ, ডবিøউ, এম রায়হান শাহ্ এর সাথে কথা হলে তিনি জানান, খোঁজ খবর নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। কোন মানুষ যেন সমস্যায় না পড়ে সেদিকে আমাদের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-২০২৪
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )