আজকের তারিখ- Tue-18-06-2024

২৬ বছরের অভিজ্ঞতা: ফোন করলে ছুটে যায় চিকিৎসা সেবা দিতে নজির হোসেন

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: ২৬ বছর থেকে চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছেন পল্লি চিকিৎসক নজির হোসেন সরকার। দুই যুগ আগে যখন কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলায় চিকিৎসাসেবা ছিল নাজুক অবস্থায়। ঠিক সেই সময়ে পল্লি চিকিৎসক নজির হোসেন সরকার বাইসাইকেল চালিয়ে উপজেলার দুই লক্ষ মানুষের চিকিৎসা দিয়ে আসছিলেন। আজেও তিনি দুর্বার গতিতে দ্বারে দ্বারে ঘুরে মানুষের চিকিৎসা দিচ্ছেন। শতশত পরিবারের কাছে পারিবারিক চিকিৎসক হিসেবে নিয়োজিত রয়েছেন তিনি। ৬টি ইউনিয়ন নিয়ে রৌমারী উপজেলাটি গঠিত। এখানে একমাত্র চিকিৎসা কেন্দ্র রৌমারী উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্র। ওই সময়ে এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি মাত্র ১/২ জন চিকিৎসক নিয়ে চলছিল স্বাস্থ্যসেবা। যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন থাকায় প্রত্যন্ত এলাকার মানুষ চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হতো। ফলে সেই সময়ে পল্লি চিকিৎসক নজির হোসেন সরকারের বেশ কদর ছিল। অসুস্থ রোগীর সংবাদ পেলে তিনি অনেক সময় পায়ে হেটে কিংবা বাইসাইকেল চালিয়ে রোগীর বাড়িতে চলে যেতেন এবং চিকিৎসা দিতেন। ওই সময় এবং বর্তমান একমাত্র ভরসা পল্লি চিকিৎসক নজির হোসেন সরকার।
সম্প্রতি দেশে করোনা মহামারিতে চিকিৎসাসেবা ব্যাহত সৃষ্টি হয়েছে। সাধারন কিংবা কঠিন রোগের চিকিৎসা নিয়ে রোগীরা পড়েছেন বিপাকে। তবুও রোগীরা থেমেনি। রোগীরা আসছেন নজির হোসেনের চেম্বারে। তিনি করোনাকে জয় করে সকল প্রকার রোগীর চিকিৎসা দিচ্ছেন। রোগীরা ভির জমাচ্ছেন তার চেম্বারে। দিন-রাত চিকিৎসা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি ।
রৌমারী বিশিষ্ট ব্যবসায়ী কামরুজ্জামান, সাজু মিয়া, চাকুরীজীবি শহিবর রহমান, গৃহবধু কমেলা খাতুন জানান, নজির হোসেন আমাদের পারিবারিক চিকিৎসক। অনেক দিন থেকে আমরা তার কাছে চিকিৎসা নিই। তিনি অনেক ভালো মানুষ। চিকিৎসাপত্র নিতে তাকে যা দেই তাই নেন। মুক্তিযোদ্ধা, প্রতিবন্ধি ও গরীব রোগীদের কাছ থেকে তিনি কোন ভিজিট নেন না।
তিনি ২১ জানুয়ারী ১৯৭৫ সালে উপজেলার শৌলমারী ইউনিয়নের বাতারগ্রামে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে তার জন্ম। তার পিতার নাম আব্দুল লতিফ সরকার ও মাতা মোছা. ফাতেমা খাতুন। ৮ ভাই বোনের মধ্যে তিনি হলেন তৃতীয়।
তিনি বড়াইকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পঞ্চম শ্রেণী পাশ করেন। পরে কুড়িগ্রাম মগলবাসা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, রংপুর মোলাটল কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করে রংপুর কারমাইকেল কলেজে ডিগ্রিতে ভর্তি হন। সেখানে তিনি রাজনৈতিক কারনে পড়াশোনা শেষ করার আগেই রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওয়ার্ডবয় পদে চাকুরিতে যোগদান করেন।
পাশাপাশি তিনি মানুষের সেবা করার স্বপ্ন দেখেন। ১৯৯২ সালে রংপুর দাতব্য চক্ষু হাসপাতাল থেকে চক্ষু বিষয় প্রশিক্ষণ গ্রহন করেন এবং সেখানেই তিনি ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত চাকুরি করেন। পরে তিনি ১৯৯৪ সালে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক অনুমোদিত কমিউনিটি ডেভ: এন্ড হেলথ সার্ভিস (সিডিএইচএস) এ প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। দ্বিতীয় ধাপে রংপুর লোকাল মেডিকেল প্রাকটিশনার (এলএমপি) বিষয় প্রশিক্ষণ নেন। তৃতীয় ধাপে শিশু স্বাস্থ্য ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ থেকে ২০০৯ সালে মা ও শিশু বিষয়ক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। তিনি ব্রাদার্স ফার্মেসীতে নিয়মিত তার চেম্বারে বসেন।
পল্লি চিকিৎসক নজির হোসেন জানান, ২৬ বছর থেকে আমি চিকিৎসা দিয়ে আসছি। গরীব অসহায় রোগীদের কাছ থেকে কোন ভিজিট নেই না। এছাড়াও অন্যান্য রোগীরা আমার সেবা পেয়ে যা দেয় আমি তাই নিয়ে খুশি হই।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-২০২৪
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )