আজকের তারিখ- Fri-19-07-2024

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ঘুরে দাড়ানোর চেষ্টা

মাসুদ পারভেজ, রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলায় দফায় দফায় বন্যা হওয়ার কারণে কৃষকদের বীজতলা নষ্ট হয়ে যায়। বর্তমানে বন্যার পানি নেই নতুন বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা আবারো ঘুরে দাড়ানোর চেষ্টা করছে। পরবর্তী চাষাবাদের জন্য বীজতলার জমি অনুকুলে না থাকায় বিপাকে পড়েছে কৃষকরা।
এদিকে বন্যার পানি নেমে যাওয়ায় কৃষক আমন ধান রোপণে ঝুঁকছেন। প্রতিদিন শত শত কৃষক আমন ধানের চারা কিনতে উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজারে ছুটছেন। বন্যায় বীজতলা নষ্ট হওয়ায় কৃষকরা বাজার থেকে চড়াদামে চারা কিনতে বাধ্য হচ্ছেন। কৃষকদের অভিযোগ, বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারের পদক্ষেপ না থাকায় ইচ্ছে মতো দামে বিক্রি করছে চারা ব্যবসায়ীরা।
ধানের চারা ব্যবসায়ীরা গাইবান্ধা, টাংগাইল, লালমনিরহাট, রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে চারা কিনে এনে উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারে বিক্রি করছেন। তবে গত মৌসুমের চেয়ে এবার বেশি দামে চারা বিক্রি হচ্ছে। প্রতি পোন চারা বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৫শত টাকা পর্যন্ত। সরেজমিনে গিয়ে এসব তথ্য পাওয়া যায়।
উপজেলার ফুলবাড়ি গ্রাম থেকে ধানের চারা কিনতে আশা কৃষক রাইস উদ্দিন বলেন, এমনিতেই বন্যায় বীজতলা নষ্ট হয়েছে। আবার চড়াদামে চারা কিনতে হচ্ছে। ধান রোপন নিয়ে বিপদে আছি।
রৌমারী হাটে চারা কিনতে আসা বাঞ্ছারচর গ্রামের ছলিম উদ্দিন জানায়, বেসন কিনবার জন্য আইসি বেসন কিনবার পারছিনা। আমগো টাকার সমস্যা। বন্যায় বেসন খাইয়া গেছে। আমরা সরকারের কাছে সহযোগীতা চাই।
চারা বিক্রেতা আব্দুস সালাম জানায়, আমরা গাইবান্ধা থেকে চারা কিনে আনি, তাতে গাড়ি ভাড়া, কুলি ভাড়া, নৌকা ভাড়া বেশি খরচ পরে। যেখান থেকে কিনে আনি সেখানেও চড়াদামে কিনতে হয়। রৌমারীর কৃষকদের স্বার্থে সীমিত লাভের জন্য চড়াদামে আনতে হচ্ছে ধানের চারা।
আরেক চারা ব্যবসায়ী বাবুল মিয়া বলেন, ধানের চারা গাইবান্ধা থেকে নিয়ে এসে রৌমারীতে বিক্রি করছি। এই চারাগুলো বেশি দামে কিনতে হয়েছে। আবার গাড়ি ভাড়াসহ অনেক খরচ পড়ছে। তাই একটু বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।
উপজেলা কৃষি অফিস তথ্য সূত্রে, এবারের বন্যায় রৌমারী উপজেলায় ২৮০ হেক্টর জমিতে আমন ধানের বীজতলা ছিলো তার মধ্যে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ২শত ৮ হেক্টর জমির বীজতলা। উপজেলা কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে ৬০ জন কৃষকের মাঝে ৩শত কেজি ধানের বীজ বিতরণ করা হয়েছে। পারিবারিক পুষ্টি বাগানের জন্য ১৯২জন কৃষক কে সহযোগীতা করা হয়। দের শতক জমির রোপা আমনের চারা দেওয়া হয় বলেও জানা গেছে (৩০ শতক জমির চারা রোপনের জন্য)।
উপজেলা কৃষি অফিসার শাহরিয়ার হোসেন জানান, এবারের বন্যায় রৌমারী উপজেলার ২০৮ হেক্টর জমির আমন বীজতলা নষ্ট হয়ে গেছে। তবে আমাদের পক্ষ থেকে ৬০জন কৃষকের মাঝে ৩শত কেজি ধানের বীজ বিতরণ করা হয়েছে। পারিবারিক পুষ্টি বাগানের জন্য ১৯২জন কৃষককে সহযোগীতা করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল আমিন সরকার
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও মাচাবান্দা নামাচর, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ঢাকা অফিসঃ শ্যাডো কমিউনিকেশন, ৮৫, নয়া পল্টন (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা- ১০০০।
ফোনঃ ০৫৮২৪-৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩,
ইমেইলঃ [email protected], [email protected]
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-২০২৪
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )