আজকের তারিখ- Sat-25-01-2020
 **   ভালোবাসা দিবসে ‘বয়ফ্রেন্ড’ **   মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করাই আমাদের লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী **   চিলমারীতে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দুই সহকারী শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা **   রোহিঙ্গা হত্যা বন্ধে মিয়ানমারকে নির্দেশ আইসিজের **   চিলমারী: সরকারি মোটর সাইকেল পারিবারিক কাজে ব্যবহার বিল উত্তোলন হচ্ছে সরকারি কাজের **   বিপাকে ঊর্বশী **   চিলমারীতে বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের মাঝে অ্যাসিসটিভ ডিভাইজ বিতরণ **   মুজিববর্ষের প্রথম উপহার ই-পাসপোর্ট: প্রধানমন্ত্রী **   চিলমারীতে উপজেলা পর্যায়ে আন্তঃ প্রাথমিক বিদ্যালয় ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত **   মাহিনের ‘বর্ডার লাইন’

উৎসবমুখর পরিবেশে মনোনয়নপত্র জমা

যুগের খবর ডেস্ক: ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিনে মঙ্গলবার উৎসবমুখর পরিবেশে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন প্রার্থীরা। এদিন মেয়র, সাধারণ ও সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর এই তিন পদে সব মিলিয়ে এক হাজার ৩৯টি মনোনয়নপত্র জমা পড়েছে। এদের মধ্যে মেয়র পদে ১৪ জন প্রার্থী মনোয়নপত্র দাখিল করেছেন। গত কয়েক দিনে দুই সিটিতে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছিলেন দুই হাজার ২৬০ জন।

ডিএনসিসির রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আবুল কাসেম জানিয়েছেন, মেয়র পদে সাতজনসহ ৪৭০ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এদের মধ্যে সাধারণ ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে ৩৭৪ জন ও সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে ৮৯ জন মনোয়নপত্র জমা দিয়েছেন। মেয়র পদে যে সাতজন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন, তারা হলেন- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আতিকুল ইসলাম, বিএনপির তাবিথ আউয়াল, জাতীয় পার্টির জি এম কামরুল ইসলাম, পিডিপির শাহীন খান, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ফজলে বারী মাসউদ, সিপিবির সাজেদুল হক ও এনপিপির আনিসুর রহমান দেওয়ান।

ডিএসসিসির রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আবদুল বাতেন জানিয়েছেন, মেয়র পদে সাতজনসহ মোট ৫৬৯ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এদের মধ্যে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৬০ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১০২ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। মেয়র পদে যে সাতজন মনোয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তারা হলেন- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শেখ ফজলে নূর তাপস, বিএনপির ইশরাক হোসেন, জাতীয় পার্টির সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন, ইসলামী আন্দোলনের মো. আবদুর রহমান, এনপিপির বাহরানে সুলতান বাহার, বাংলাদেশ কংগ্রেসের মো. আকতার উজ্জামান ওরফে আয়াতুল্লা ও গণফ্রন্টের আবদুস সামাদ সুজন।

বেলা সোয়া ১২টার দিকে গোপীবাগের ৮ নম্বর ওয়ার্ড কমিউনিটি সেন্টারে স্থাপিত রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে মননোয়নপত্র জমা দিতে আসেন শেখ ফজলে নূর তাপস।

এ সময় তার সঙ্গে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, যুগ্ম সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাসিম, প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুর রহমান, জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল, তাপসের ভাই যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ, ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমদ মন্নাফী, সাধারণ সম্পাদক মো. হুমায়ুন কবিরসহ অনেক কর্মী-সমর্থক ছিলেন।

মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, “আশা করি আগামী বছর ঢাকাবাসীর জন্য একটি নবসূচনা করতে পারব। আমাদের অনেক করণীয় রয়েছে। প্রথমত দীর্ঘদিন ঢাকাবাসী যে বঞ্চিত অবহেলিত নাগরিক সুবিধা থেকে, সেটাকে আমরা মৌলিক দায়িত্ব হিসেবে গ্রহণ করব। যদি ঢাকাবাসী আমাকে জয়ী করেন, সেবা করার সুযোগ দেন, ঢাকাবাসীর মৌলিক নাগরিক সুবিধাগুলো নিশ্চিত করাই আমার প্রধান কাজ হবে।”

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র প্রার্থী এবং আওতাধীন সব ওয়ার্ডের কান্সিলর ও সংরক্ষিত আসনের প্রার্থীরা আগারগাঁওয়ের নির্বাচন কমিশন ভবনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার নির্দেশনা ছিল। সে অনুযায়ী সকাল ১০টা থেকেই আসতে থাকেন প্রার্থীরা। প্রার্থীদের সঙ্গে তাদের কর্মী-সমর্থকদের স্লোগানে মুখরিত হয়ে ওঠে পুরো এলাকা।
সকাল সাড়ে ১১টায় মনোনয়ন জমা দেন ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের প্রার্থী এবং দলটির ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি শেখ মো. ফজলে বারী মাসউদ।

মনোনয়ন জমা দিয়ে তিনি সংবাদিকদের বলেন, গত ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে সবচেয়ে বড় ভোট ডাকাতি হয়েছে। এ নির্বাচন কমিশনের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে, এটা জনগণ বিশ্বাস করে না। নির্বাচনের ন্যূনতম পরিবেশ তৈরি হয়েছে বলে আমরা মনে করি না। এ নির্বাচন কমিশনের প্রতি ন্যূনতম আস্থা অর্জিত হয়নি আমাদের। নির্বাচন কমিশন চাইলে ইভিএম দিয়েও স্বচ্ছ করতে পারে, আবার ইভিএম ছাড়াও নির্বাচন স্বচ্ছ করতে পারে। এ নির্বাচন সুষ্ঠু হবে কি না তা নিয়ে আমাদের শঙ্কা রয়েছে। তবুও জনগণকে নিয়ে যেহেতু আমরা রাজনীতি করি, তাই আমরা এ নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। দুপুর সোয়া ১২টায় মনোনয়ন জমা দেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম। জমাদান শেষে তিনি বলেন, আমি আমরা মনে করি আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হবে। যে কোনো নির্বাচনে হার জিত থাকে। আমি আগে বিজিএমইএ এর প্রেডিডেন্ট ছিলাম। সেখানে নির্বাচন করতে গিয়ে কোনো সময় হেরেছি, কোনো সময় জিতেছি, এটাই বাস্তবতা। আমরা কখনো মাঝপথে গিয়ে নির্বাচন বর্জন করিনি। সবাইকে অনুরোধ করবো একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য। সকালে ৪৪,৪৭,৪৮ এর কাউন্সিলর প্রার্থী খাদিজা আক্তার, ২৬নং ওয়ার্ডের শামীম হাসান মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন।

এরপর মনোনয়নপত্র জমা দেন বিএনপি প্রার্থী তাবিথ আউয়াল। তিনি বলেন, গতবার আমরা পরিস্থিতির কারণে নির্বাচন বর্জন করেছিলাম। এবার শেষ পর্যন্ত দেখে যাব। মনোনয়নপত্র জমা দিতে প্রার্থীরা একেকজন পাঁচজনের বেশি সঙ্গে আনতে পারবেন না বলে নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা ছিল। কিন্তু গতকাল প্রার্থীদের সঙ্গে বিপুলসংখ্যক কর্মী-সমর্থক দেখা যায় মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময়। এতে নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘিত হয়েছে কি-না জানতে চাইলে আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি উভয় দলের প্রার্থীরা বলেন, একসঙ্গে মেয়র এবং কাউন্সিসলরদের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার দিন নির্ধারিত থাকায় কিছু লোক হয়তো বেশি হয়েছে তবে তা সব প্রার্থীর কর্মী-সমর্থক মিলিয়ে। সুতরাং নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘিত হয়নি।

নির্বাচন বর্জন করবে বাসদ: ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচন বর্জনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাসদ। গতকাল মঙ্গলবার বিকালে বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যালয়ে আয়োজিত সভায় এই সিদ্ধান্ত হয়। দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বজলুর রশীদ ফিরোজ ও রাজেকুজ্জামান রতন। বাসদের পক্ষ থেকে বলা হয়, বিরোধী সব রাজনৈতিক দল যখন ৩০ ডিসেম্বর ভোট ডাকাতির এক বছর ‘কালো দিবস’, ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ পালন করছে তখন সবাইকে অপ্রস্তুত রেখে সরকার আজ্ঞাবহ নির্বাচন কমিশনকে দিয়ে তড়িঘড়ি সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে, যাতে বিরোধী দলসমূহ নির্বাচনে অংশ নিতে না পারে। প্রস্তাবে বলা হয়, নির্বাচন কমিশন নির্বাচনকে একটা ব্যবসায়িক পণ্যে পরিণত করেছে। জামানতসহ নির্বাচনী ব্যয়সীমা এমনভাবে নির্ধারণ করা হয়েছে যেখানে সাধারণ মানুষের প্রার্থী হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। মেয়র নির্বাচনে জামানত এক লাখ টাকা এবং নির্বাচনী ব্যয়সীমা ৫০ লাখ টাকা নির্ধারণ করেছে। এতে একদিকে সাধারণ মানুষ যেমন নির্বাচনে অংশ নিতে পারবে না অপরদিকে ধনীরা অংশ নিয়ে ব্যয়সীমা লঙ্ঘন করে নির্বাচন করবে। কিন্তু কমিশন তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থাই গ্রহণ করতে পারবে না। এছাড়া বিরোধীদের মতামত উপেক্ষা করে বিতর্কিত ইভিএম ব্যবহারের সিদ্ধান্তে কমিশন অটল রয়েছে। অথচ কয়েক দিন পূর্বে সিইসি বললেন সব প্রার্থী না চাইলে ইভিএম ব্যবহার হবে না। আবার ২ দিন পরেই বরিশালে গিয়ে বললেন নির্বাচন ইভিএম-এ হবে। এটা বলে বাস্তবে আবারও নিজেদের প্রশ্নবিদ্ধ করলেন।

ইভিএমে সন্দেহ জাতীয় পার্টির: ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটগ্রহণে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারের সাফল্য নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী হাজি সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন। তিনি বলেন, ইভিএম পৃথিবীর অনেক দেশেই সফলতা পায়নি। এই নির্বাচনেও সফল হবে কিনা, সন্দেহ রয়েছে।

মঙ্গলবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের রিটার্নিং অফিসারের কাযার্লয়ে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়ে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। মিলন বলেন, একজন রাজনীতিবিদের জন্য সবচেয়ে বড় অপমানজনক ও লজ্জার বিষয় হচ্ছে, মাঠে নামার পর দল থেকে বসিয়ে দেওয়া। এটা মৃত্যুর সমান। গত নির্বাচনের শেষ দিন পর্যন্ত আমি নির্বাচনের মাঠে ছিলাম। নির্বাচনের দিন সকাল ৯টায় আমি যখন নির্বাচনের কেন্দ্রে গিয়ে দেখলাম স্বাভাবিক নির্বাচন হচ্ছে না, তখন আমি বলেছিলাম, নির্বাচন সুষ্ঠু হচ্ছে না। কেন্দ্র দখল হয়ে গেছে। জাপার এই মেয়র প্রার্থী আরও বলেন, আমরা মহাজোটের একটি অংশ। বাংলাদেশের রাজনীতির মঞ্চে আমরা তৃতীয় শক্তি। দীর্ঘ ৪০ বছর ঢাকার রাজনীতিতে আমার অবস্থান। গতবার যেভাবে মানুষের সাড়া পেয়েছিলাম, তাতে আশা করেছিলাম আমি বিজয় লাভ করব। কিন্তু সকাল ৯টায়ই নির্বাচন শেষ হয়ে যায়। ভোটাররা বিমুখ হয়েছে, যার কারণে তারা কেন্দ্রে যাননি। বর্তমান ডিএসসিসি মেয়র সাঈদ খোকন পুরোপুরি সফল হতে পারেননি দাবি করে মিলন বলেন, মানুষ ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়ার মতো রোগে মহামারীর মতো আক্রান্ত হয়েছে। কিন্তু মেয়র সমাধান দিতে পারেননি। অন্য কোনো ক্ষেত্রে হয়তো তিনি সফল, তবে এ ক্ষেত্রে তিনি ব্যর্থ।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )