আজকের তারিখ- Mon-18-11-2019

চিলমারীতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ জন প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্কুল উন্নয়নের টাকা আতœসাৎ ও সহকারী শিক্ষা অফিসারকে অপমান করাসহ নানা অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার: কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার অষ্টমীর চর ইউনিয়নে অবস্থিত কালিকাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু সাঈদের বিরুদ্ধে উক্ত স্কুল উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন খাতে মোট ২ লক্ষ ১০ হাজার টাকার কাজ না করে উক্ত টাকা আতœসাৎ এর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়াও বিদ্যালয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুুমতি ছাড়া স্কুলে অনুপস্থিত থাকা এবং স্কুল ক্লাষ্টার সহকারী শিক্ষা অফিসারকে অপমাান করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
প্রাপ্ত অভিযোগের আলোকে সরেজমিনে স্কুলটিতে গিয়ে, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে সরকারীভাবে স্কুলটির উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন খাতে দেয়া অর্থ সঠিক ভাবে ব্যয় না করার অভিযোগের সত্যতা মিলেছে। স্কুলটি পরিদর্শনের সময়, অষ্টমীরচর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু তালেব, এসএমসির সদস্যবৃন্দ এবং স্কুল সংলগ্ন গ্রামের সাধারণ জনগণ ও ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকগণ উপস্থিত ছিলেন। ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে কালিকাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উন্নয়নের জন্য সরকারীভাবে রুটিন মেইনটেন্যান্স খাতে ৪০ হাজার, মাইনর মেরামত খাতে ২ লক্ষ, প্রাক প্রাথমিক খাতে ১০ হাজার ও ¯িøপ গ্রান্ড খাতে ৭০ হাজার টাকা মিলে মোট ৩ লক্ষ ২০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। যার মধ্যে মাইনর মেরামতের ২ লক্ষ টাকার মধ্যে ১ লক্ষ টাকা প্রথম পর্যায়ে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা অফিস থেকে ছাড় দেয়া হয়। এছাড়া রুটিন মেইনটেন্যান্স, প্রাক প্রাথমিকও ¯িøপ গ্রান্ডের টাকাসহ মোট ২ লক্ষ ২০ হাজার টাকা শিক্ষা অফিস থেকে স্কুলটির একাউন্টে ছাড় দেয়া হয়। উক্ত টাকার কাজ সন্তোষজনক হলে মাইনর মেরামতের বাকী ১ লক্ষ টাকা ছাড় দেয়ার কথা রয়েছে।
স্কুলটি পরিদর্শনের সময় প্রধান শিক্ষক আবু সাঈদের নিকট উক্ত টাকা ব্যয় সংক্রান্ত স্কুলের এসএমসির রেজুলেশন, পরিদর্শন খাতা, মাইনর মেরামতের ইষ্টিমেট, বিভিন্ন খাতওয়ারী অর্থ ব্যয়ের হিসেব এবং ভাউচার দেখতে চাইলে তিনি, কোন কিছুই না দেখিয়ে বলেন, সব খাতাপত্র তিনি তার নিজ বাসায় রেখে এসেছেন। স্কুলটিতে ৩-৪টি ষ্টিল ও কাঠের আলমারী থাকা সত্বেও তিনি স্কুলের গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র কেন বাসায় রাখেন?- জানতে চাইলে, তিনি বিধি বর্হিভূতভাবে এসকল সম্পত্তি বাসায় রেখেছেন মর্মে স্বীকার করেন। অপরদিকে মাইনর মেরামতসহ বিভিন্ন খাতের টাকা ব্যয় করার পূর্বে ৫ সদস্যের একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি গঠন করার বিধান থাকলেও, তিনি তা করেননি মর্মে উপস্থিত এসএমসির সদস্য আশরফ আলী মুন্সী ও আব্দুর রহিম এই প্রতিনিধিকে জানান। এ সময় প্রধান শিক্ষক নিরব থাকেন। এসএমসির সদস্য আব্দুর রহিম বলেন, প্রধান শিক্ষক তার হাতে ১০ হাজার টাকা দিয়ে বলেছিলেন, স্কুলের উন্নয়নের জন্য মাত্র ১০ হাজার টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে। উক্ত টাকা হাতে দিয়ে তাকে একটি টিউবয়েল কিনে বোরিং, গোড়া পাকা করা এবং টিনের লেট্রিন মেরামত করতে বলেন, তাকে টাকা দেয়ার সময় স্কুলটির এসএমসির সভাপতি হাসমত আলী ডিলার উপস্থিত ছিলেন। তিনি উক্ত টাকা দিয়ে টিউবওয়েল ক্রয়সহ প্রধান শিক্ষকের নির্দেশিত কাজ গুলি করেছেন। সরেজমিনে শুধুমাত্র টিউবওয়েল ও লেট্রিন মেরামতের কাজ করার দৃশ্যমান প্রমান পাওয়া যায়। বাকী টাকার কোন দৃশ্যমান কাজ চোখে পরেনি। অপর একজন এসএমসির সদস্য আশরাফ আলী মুন্সী বলেন, সম্প্রতি উপজেলা শিক্ষা অফিসার স্কুলটি পরিদর্শনে এলে, তিনি তার নিকট থেকে স্কুলটির উন্নয়নের জন্য মোট ৩ লক্ষ ২০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে মর্মে জানতে পেরেছেন। এসএমসির অপর সদস্য আব্দুর রহিম জানান, বরাদ্দের ব্যাপারটি নিশ্চিত হওয়ার জন্য তিনি এসএমসির সভাপতি হাসমত আলীকে জিজ্ঞাসা করলে, তিনি তাকে বলেছেন, তুমি ভুল শুনেছ, মাত্র ১০ হাজার টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে। স্কুলটি পরিদর্শনকালে এসএমসির সভাপতি হাসমত আলী অনুপস্থিত থাকায় তার বক্তব্য নেয়া যায়নি। গ্রামবাসী ও অভিভাবকদের সাথে কথা বলে জানাগেছে, তাদের ধারনা প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির যোগসাজসে উক্ত টাকা আতœসাৎ করেছেন। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, স্কুলটিতে লেখা পড়া হয়না। প্রধান শিক্ষক সপ্তাহে ১ থেকে ২ দিন স্কুলে আসেন।
অপরদিকে উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার মোঃ শাখাওয়াৎ হোসেন জানান, তিনি অষ্টমীরচর, রাণীগঞ্জ এবং নয়ারহাট ইউনিয়নের ক্লাষ্টারের দায়িত্বে আছেন। তিনি এ প্রতিনিধিকে অভিযোগ করে বলেন, স্কুলটির জন্য বিভিন্ন খাতের বরাদ্দের ৩লক্ষ ২০ হাজার টাকার মধ্যে ২০ হাজার টাকারও কাজ করা হয়নি। উক্ত প্রধান শিক্ষক সপ্তাহে ৩-৪ দিন পর একদিন হঠাৎ স্কুলে উপস্থিত হয়ে উপিস্থিতি খাতায় প্রতিদিন উপস্থিতির স্বাক্ষর করেন। তিনি স্কুলে না এসে, স্কুল সময়ে কোচিং সেন্টারে যান এবং প্রাইভেট টিউশনি করেন। তিনি আরও বলেন, গত ২৩-০৯-২০১৯ ইং তারিখে স্কুলটি পরিদর্শন শেষে অর্থ ব্যয়ের বিষয়টিসহ প্রধান শিক্ষকের বিধি বর্হিভূত আচরণ ও অনিয়মসমূহ পরিদর্শন বহিতে লিপিবদ্ধ করার সময়, প্রধান শিক্ষক আবু সাঈদ তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন এবং উত্তেজিত হয়ে কথা বলার এক পর্যায়ে তাকে শারীরিক ভাবে সকল শিক্ষক কর্মচারীর সামনে অপমান করার চেষ্টা করেন।
এ ব্যাপারে উক্ত ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান আবু তালেব কিছু জানেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, উক্ত প্রধান শিক্ষক তার সামনে সহকারী শিক্ষা অফিসারকে অপমান করেছেন। তিনি নিয়মিত স্কুল আসেন না। তিনি আরও বলেন, তার ইউনিয়নে ১৩টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। প্রত্যেক স্কুলেই শিক্ষার উন্নয়নে বিভিন্ন খাতে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। তার ইউনিয়নের মধ্যে কালিকাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সর্বচ্চো ৩ লক্ষ ২০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। অথচ স্কুলটির প্রধান শিক্ষক কিংবা সভাপতি আজ পর্যন্ত তাকে কোন তথ্যই জ্ঞাত করাননি। এমন কি, কি কি কাজ করছেন, তা দেখার জন্যও কোন দিন ডাকেননি। তিনি বলেন, স্কুলটির মোট বরাদ্দের ২০ ভাগ টাকাও স্কুল উন্নয়নে ব্যয় করা হয়নি। চেয়ারম্যানের প্রশ্ন, বাকী টাকা কোথায় গেল? একই সাথে তিনি ১৩টি স্কুলের যে সকল শিক্ষকগণ থানাহাট থেকে নদী পেড়িয়ে আসেন, তাদের অনিয়মিত স্কুল আসা-যাওয়া এবং প্রায়ই অনুপস্থিত থাকার কারণে তার ইউনিয়নটিতে শিক্ষার মান ক্রমে নি¤œমুখী হচ্ছে বলে জানান।
স্কুলটির প্রধান শিক্ষক আবু সাঈদের বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ সর্ম্পকে তার মতামত জানতে চাইলে তিনি বলেন, অভিযোগ গুলি মিথ্যা। তিনি সঠিকভাবে স্কুলের অনুকুলে আসা বরাদ্দের টাকা যথাযথভাবে স্কুলটির উন্নয়নে ব্যয় করেছেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ আবু সালেহ্ সরকারের মুখোমুখি হলে তিনি প্রধান শিক্ষক আবু সাঈদের বিরুদ্ধে সকল অভিযোগের সত্যতা রয়েছে স্বীকার করে বলেন, তিনি নিজে স্কুলটি সরেজমিনে পরিদর্শন করে দেখেছেন, প্রাক প্রাথমিকের ১০ হাজার টাকা বরাদ্দ থেকে ২,৮৫০/= টাকা, রুটিন মেইনটেনেন্সের ৪০ হাজার টাকা বরাদ্দের মধ্যে ৬ হাজার টাকা, ¯িøপ এর ৭০ হাজার টাকা বরাদ্দের মধ্যে ৩৫০/= টাকা এবং মাইনর মেরামতের ২ লক্ষ টাকা বরাদ্দে থেকে মাত্র ২৭ হাজার টাকা ব্যয় করার প্রমাণ তিনি পেয়েছেন। তিনি আরও বলেন, উক্ত প্রধান শিক্ষককে বিগত দিনের কর্মরত বিদ্যালয় গুলিতে বিভিন্ন ধরণের চাকুরীবিধি বর্হিভূত কর্মকান্ডের কারণে, তাকে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সরকারী কর্মচারী বিধি মোতাবেক (শৃৃংখলা ও আপীল) বিধিমালা-১৯৮৫ এর ৪ (২)(বি) ধারা অনুযায়ী লঘুদন্ড হিসেবে ০১টি বার্ষিক বেতন বৃদ্ধি ০১ বৎসরের জন্য (সেপ্টেম্বর/২০১১ হতে আগষ্ট/২০১২ পর্যন্ত) স্থগিত করেছিলেন।
প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বর্তমান অভিযোগের প্রেক্ষাপটে তিনি কি ব্যবস্থা নিয়েছেন? জানতে চাইলে তিনি বলেন, উক্ত প্রধান শিক্ষক আবু সাঈদের বিরুদ্ধে বর্তমান যে সকল অভিযোগ রয়েছে, তা সত্য বলে প্রতিয়মান হয়েছে। সে ব্যাপারে তিনি, উক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের নিমিত্তে একটি পত্র জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার,কুড়িগ্রাম বরাবরে পাঠিয়েছেন। একই সাথে উক্ত পত্রের অনুলিপি সদয় অবগতির জন্য তিনি উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চিলমারী, কুড়িগ্রাম ও বিভাগীয় উপ-পরিচালক, প্রাথমিক শিক্ষা রংপুর বিভাগ, রংপুর বরাবরে প্রেরণ করেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এইচ, এম রহিমুজ্জামান সুমন
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ এস, এম নুরুল্ আমিন সরকার্
নির্বাহী সম্পাদকঃ নাজমুল হুদা পারভেজ
সম্পাদক কর্তৃক সারদা প্রেস, বাজার রোড, কুড়িগ্রাম থেকে মূদ্রিত ও উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম থেকে প্রকাশিত।
অফিসঃ উপজেলা পরিষদ মোড়, চিলমারী, কুড়িগ্রাম।
ফোনঃ ০৫৮২৫-৫৬০১৭, ফ্যাক্স: ০৫৮২৪৫৬০৬২, মোবাইল: ০১৭৩৩-২৯৭৯৪৩, ইমেইলঃ jugerkhabor@gmail.com
এই ওয়েবসাইট এর সকল লেখা,আলোকচিত্র,রেখাচিত্র,তথ্যচিত্র যুগেরখবর এর অনুমতি ছাড়া হুবহু বা আংশিক নকল করা সম্পূর্ন কপিরাইট আইনে আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত যুগেরখবর.কম – ২০১৩-১৯
Design & Developed By ( Nurbakta Ali )